মঙ্গলবার, জুন ২৮, ২০২২

পতাকা মিছিলের আগে মুসল্লীদের অবরুদ্ধ করে রাখে ইসরাইলীরা

ইনসাফ | সা’দ আব্দুল্লাহ


ফজর নামাযের কিছুক্ষণ আগে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলী বাহিনী জেরুসালেমের আল-আকসা মসজিদ সম্পূর্ণ ঘেরাও করে ফেলে। এবং সম্পূর্ণ এলাকায় কয়েক ডজন বসতি স্থাপনকারীদের জোরপূর্বক প্রবেশের প্রস্ততি স্বরূপ মসজিদটি খালি করার প্রয়াসে মুসল্লীদেরকে আল-আকসা প্রাঙ্গনে প্রবেশে বাধাদান করে।

রোববার (২৯ মে) পবিত্র আল-আকসা প্রাঙ্গনে এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনামতে, ইসরায়েলী বাহিনী শত শত ফিলিস্তিনিকে আল-আকসা মসজিদে ফজরের নামায পড়তে বাধা দেয়। অনেক দূর থেকে আসা ৪৮০০ ফিলিস্তিনি নামাযী ব্যক্তিকেও সেখানে প্রবেশে কঠোর বাধা দেয়। এতে বাধ্য হয়ে তারা দরজার বাইরে নামায আদায় করে।

ফজরের নামাযের পর ইসরাইলী পুলিশ বেশ কয়েকজন ফিলিস্তিনি যুবককে আক্রমণ করে, যারা মসজিদের ভিতর আত্মরক্ষা করছিল। এবং দখলদার শক্তির জোরপূর্বক অনুপ্রবেশ ঠেকাতে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞার কয়েক ঘণ্টা আগ থেকে প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

এদিকে “ফ্ল্যাগ মার্চ” এর কয়েক ঘন্টা আগের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে মনে হচ্ছিল, সেখানে বসতি স্থাপনকারীরা ইসরাইলী পতাকা উত্তোলনের সময় জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতে যাত্রা করবে।

ইসরাইলী বাহিনী আল-আকসা মসজিদের বিশেষ নামাযের স্থান আল-কিবলি মসজিদের অভ্যন্তরে কয়েক ডজন ফিলিস্তিনিকে অবরুদ্ধ রেখে লোহার শিকল দিয়ে (আল-কিবলি মসজিদের) দরজা বন্ধ করে দেয়। সেই সাথে কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের মাঝে বসতি স্থাপনকারীদের একটি প্রতিনিধিদল দ্রুতবেগে মসজিদে প্রবেশ করে, এবং এর চত্বর ও আশপাশ ঘুরে বেড়াতে থাকে।

এই দখলদার বাহিনী “বাবে হুত্তা”-এর কাছেও বেশ কিছু ফিলিস্তিনিকে আক্রমণ করে। এবং বৃহৎ শক্তি নিয়ে “আল-বুরাক প্রাচীর” এর কাছে অবস্থান নেয়, যা ভোরের প্রথম প্রহর থেকে শত শত বসতি স্থাপনকারীদের জমায়েতের সাক্ষী ছিল।

দূরবর্তী শহর ও গ্রাম থেকে কয়েক ডজন ফিলিস্তিনিদের বহনকারী বাসগুলোকে কুদস শহরে প্রবেশ করতে দেখা গেছে। অন্যদিকে, ইসরাইলী আমন্ত্রণের ছত্রছায়ায় আল-আকসা মসজিদে প্রবেশের অন্যতম দরজা “বাব আল-আমূদ”-এর কাছে পতাকা উত্তোলনে অংশ নেওয়ার জন্য বসতি স্থাপনকারীদের সবচে বড় জমায়েত সঙ্ঘটিত হয়েছে। অথচ এ স্থানে ফিলিস্তিনিদের প্রবেশে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল।

গত শুক্রবার, ইসরাইলী প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট একটি বিবৃতিতে পূর্ব জেরুসালেমে রবিবার (২৯ মে) ইসরাইলী পতাকা মিছিলকে তার নির্ধারিত অবস্থায় বহাল রাখার দৃঢ় সিদ্ধান্ত ব্যক্ত করে। এতে করে হিব্রু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী পূর্ব জেরুসালেমে ইসরাইলী দখলদারীর বর্ষপূর্তির সাথে মিল রেখে মিছিলটি উদযাপিত হবে। এই মিছিলটি ওল্ড সিটির অন্যতম গেট “বাব আল-আমুদ” থেকে যাত্রা করবে, এবং ইসরাইলী পতাকা নেড়ে ও “আরবদের জন্য মৃত্যু” স্লোগান দিতে দিতে শহরের অলি-গলির মধ্য দিয়ে যাবে।

মিছিলটি বহু বছর ধরে ফিলিস্তিনিদের সাথে সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটিয়ে আসছে।

ইসরাইলী বাহিনী ঘোষণা দিয়েছে, এই পদযাত্রাকে নিরাপদ করতে পূর্ব জেরুজালেমে তারা হাজার হাজার পুলিশ সদস্য মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এদিকে ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বলা হয়েছে, সমস্ত স্তরে চলমান পরিস্থিতির মূল্যায়ন এবং এই বিষয়ে পরামর্শ করার জন্য সপ্তাহের শেষ দিকে গুরুত্বপূর্ণ অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img