বৃহস্পতিবার, জুন ৩০, ২০২২

এত ধর্মভীরু হলে সাহস করে মিয়ানমার যান না কেন: হেফাজতের উদ্দেশ্যে চিফ হুইপ

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে চিফ হুইপ ও আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সাধারণ সম্পাদক নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেছেন, যে আন্দোলন করা হচ্ছে তার যুক্তি কী? তারা বলছে, ভারতে মুসলমানদের ওপর নির্যাতন হচ্ছে তাই তারা ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আগমনে প্রতিবাদ করছে। আপনারা যদি এতই ধর্মভীরু হয়ে থাকেন, ভারতে মুসলমানদের নির্যাতনের প্রতিবাদে যদি আমাদের ছেলেদের আন্দোলনে নামাতেই পারেন। তাহলে সাহস করে মিয়ানমার যান না কেন? অসংখ্য মুসলমানদের হত্যা করল, লাখ লাখ মুসলমানকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের আশ্রয় দিলেন। তখন তো আন্দোলন দেখি নাই। তখন তো সাহস করে বলেন নাই। মুসলমানদের যদি কেউ অত্যাচার করে থাকে তাহলে সবচেয়ে বেশি করেছে মিয়ানমার, এখনো সেখানেই বেশি অত্যাচার হচ্ছে। সেখানে প্রতিদিন মুসলমানদের হত্যা করা হচ্ছে। এ দেশে গাড়ি না পুড়িয়ে পারলে সেখানে গিয়ে প্রতিবাদ করেন।

সোমবার (২৯ মার্চ) দুপুরে শিবচরে পদ্মা সেতুর রেললাইনের ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ক্ষতিপূরণের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফর নিয়ে রাজনীতি শুরু হয়েছে। ধর্ম ব্যবহার করে রাজনীতি বঙ্গবন্ধু বন্ধ করে দিয়েছিলেন সংবিধানে। জিয়াউর রহমান, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়। তারা রাজাকার আলবদর যুদ্ধাপরাধীদের কোথায় বসায় নাই। প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, মন্ত্রী, এমপি বানিয়েছে, রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছে, নাগরিকত্ব দিয়েছে, রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছে। অথচ মসজিদ মাদরাসায় যা করেছে বঙ্গবন্ধু আর শেখ হাসিনাই করেছে।

তিনি বলেন, প্রতিটি উপজেলায় কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে মসজিদ করে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। করোনাকালে শেখ হাসিনাই মসজিদ মাদরাসায় খাবার ও টাকা দিয়েছেন। ধর্ম ব্যবহার করে যারা মন্ত্রী হয়েছিল কেউ কিন্তু কওমি মাদরাসাগুলোকে স্বীকৃতি দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই স্বীকৃতি দিয়েছেন।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img