বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২১

ইউক্রেন থেকে ক্রাজ স্পার্টান এপিসি সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ

ইউক্রেন থেকে আমদানি করা ক্রাজ স্পার্টান আর্মার্ড পারসনেল ক্যারিয়ারের (এপিসি) প্রথম চালান গ্রহণ করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

ঢাকার পিলখানায় বিজিবি সদরদফতরে সরবরাহ করা প্রথম চালানে রয়েছে ১২টি স্পার্টান এপিসি ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট স্বল্প পাল্লার এন্টি-ট্যাঙ্ক গাইডেড মিসাইল সিস্টেম আরকে-৩ কোরসার (কোরসার)।

বাংলাদেশের প্রধান সীমান্ত রক্ষা বাহিনীর আধুনিকায়নের অংশ হিসেবে এসব এপিসি সংগ্রহ করা হচ্ছে। এর আগে এই বাহিনীর জন্য অল-টেরিন ভেহিকেল, ওয়াটার ক্রাফট ও এমআই-১৭১ই হেলিকপ্টার সংগ্রহ করা হয়।

কানাডার স্ট্রেইট গ্রুপের লাইসেন্স নিয়ে ক্রাজ স্পার্টান এপিসি তৈরি করে ইউক্রেন। এটা স্পার্টান মাল্টিপারপাস আর্মার্ড ভেহিকেলের একটি ভেরিয়েন্ট।

২০১৪ সাল থেকে এসব এপিসি সার্ভিসে রয়েছে। ইউক্রেনে যুদ্ধের সময় ইউক্রেনিয়ান ন্যাশনাল গার্ড এগুলো মোতায়েন করেছিলো।

ক্রাজ স্পার্টান ফোর্ডের এফ-৫৫০ পিকআপ ট্রাকের উপর বসানো। ফলে এটি ব্যয়সাশ্রয়ী প্লাটফর্ম। এতে এগুলো আনআর্মড ট্যাকটিক্যাল ইউটিলিটি ভেহিকেল ও বিপিআর-সিরিজের এপিসি’র মাঝামাঝি একটি রূপ পেয়েছে।

ব্যয়সাশ্রয়ী, পেলোড ক্যাপাসিটি, ভালো ক্রস-কান্ট্রি মবিলিটি ও শক্তিশালী ইঞ্জিনের কারণে অন্যান্য এপিসি প্রস্তুতকারকও ফোর্ড এফ-৫৫০ পিকআপ চেসিস ব্যবহার করে। তাছাড়া বেসামরিক বাজারে এগুলোর খুচরা যন্ত্রাংশ সহজলভ্য।

ফোর্ড এফ-৫৫০ চেসিসে রয়েছে ফোর্ড ৬.৭ লিটার ভি৮ টার্বোচার্জড ডিজেল ইঞ্জিন, যা ৪০০ অশ্বশক্তি উৎপন্ন করে। ৬-স্পিড অটোমেটিক ট্রান্স মিশনে কাজ করে এবং সিলেক্টেবল অল-হুইল ড্রাইভ ক্যাপাসিটি রয়েছে।

স্পার্টানের বর্ম কামানের গোলার সপ্লিনটার ও ক্ষুদ্র অস্ত্রের গুলি ঠেকাতে সক্ষম। এর মেঝে গ্রেনেড বিস্ফোরণেও কিছু হয় না বলে নির্মাতার দাবি।

এতে চালক, সেনা ও গানার থাকতে পারে। সাইড ডোর ও পেছনের ডোর দিয়ে সেনারা ওঠানামা করতে পারে। এছাড়া আছে ফায়ারিং পোর্ট ও ভিশন ব্লক। ফলে বাইরে দেখা ও ব্যক্তিগত অস্ত্র দিয়ে গুলি করতে পারে সেনারা।

এটি ১,১০০ কেজি পর্যন্ত ভার বহন করতে পারে। সেনার পরিবর্তে রসদ পরিবহনের কাজেও একে ব্যবহার করা যায়।

একে বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রে সজ্জিত করা যায়, যেমন শিল্ডেড ১২.৭ এমএম হেভি মেশিনগান। এছাড়া এতে সারমাট রিমোটলি কন্ট্রোল্ড উইপন স্টেশন (আরসিডব্লিউএস) বসানো যায়। এতে ১২.৭এমএম কর্ড এইচএমজি ও ৪ কোরসার এন্টি-ট্যাঙ্ক গাইডেড মিসাইল থাকে, যার সর্বোচ্চ পাল্লা ২.৫ কিলোমিটার। আরকে-৩ মিসাইলগুলো লেজার-নিয়ন্ত্রিত। এগুলো রাশিয়ার তৈরি মেটিস-এমআই-এর সমতুল্য। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে মেটিস-এমআই রয়েছে। স্পার্টানে মোট ৮টি আরকে-৩ এটিজিএম থাকে, যার মধ্যে চারটি থাকে আরসিএমএস মাউন্ট থেকে নিক্ষেপ করার জন্য প্রস্তুত অবস্থায়।

বাংলাদেশ অনেক দিন ধরেই স্ট্রেইট গ্রুপের সরঞ্জামের গ্রাহক। পুলিশ বাহিনীর জন্য বাংলাদেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় স্পার্টান ও টাইফুন মডেলের এপিসি সংগ্রহ করেছে। বিজিবি বর্তমানে তুর্কি মডেলের ওতোকার এপিভি ব্যবহার করে। এগুলো এমজি৩ মেশিনগানে সজ্জিত।

ক্রাজ স্পার্টান ভারত ও মিয়ানমার সীমান্তে বিজিপির শক্তিমত্তা বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও ডিফেন্স.পিকে

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img