বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

আমরা শিশু নই: আরএসএস প্রধানকে ওয়াইসি

রোববার (২৫ অক্টোবর) ভারতে উগ্র হিন্দুত্ববাদ রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) প্রধান মোহন ভাগবত মুসলিম বিরোধী সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন সিএএ সম্পর্কে দাবি করেছেন যে, এই আইনে কোনও বিপদ নেই। মুসলিম সম্প্রদায়কে বিভ্রান্ত করার ষড়যন্ত্র চলছে।

উগ্র হিন্দুত্ববাদী আরএসএস প্রধানের দাবির পাল্টা জবাবে ভারতের মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেছেন, ‘আমরা শিশু নই যে কেউ আমাদের বিভ্রান্ত করবে। বিজেপি এটা বলতে পারেনি যে একসঙ্গে সিএএ-এনআরসির (মুসলিমবিরোধী সংশোধিত নাগরিক আইন-জাতীয় নাগরিক পঞ্জি) উদ্দেশ্য কী? যদি এটি কেবল মুসলিমদের জন্য না হয় তাহলে সমস্ত আইন থেকে ধর্ম শব্দ সরিয়ে দিক।

ওয়াইসি বলেন, জেনে রাখুন যতক্ষণ ওই আইনে আমাদের নিজেদের ভারতীয় প্রমাণ করার কোনও বিষয় থাকবে ততক্ষণ আমরা বার বার প্রদর্শন করতে থাকব। আমরা এই জাতীয় সমস্ত আইনের বিরোধিতা করব, যেখানে ধর্মের ভিত্তিতে জনগণের নাগরিকত্বের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

অন্যদিকে, বিহার বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে রোববার (২৫ অক্টোবর) বিহারে এক নির্বাচনী সমাবেশে ‘সিএএ-এনআরসি’ ইস্যুতে কংগ্রেস এবং আরজেডি’র সমালোচনা করে ওয়াইসি বলেন, আমার কংগ্রেস, আরজেডি এবং অন্যদের এটা স্পষ্ট করে দিতে চাই যে, ‘সিএএ’-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের সময়ে লোকেরা আপনার নীরবতা ভুলে যাবে না। বিজেপি নেতারা যখন বিহারের সীমান্ত অঞ্চলের জনগণকে ‘অনুপ্রবেশকারী’ হিসেবে অভিহিত করেছিলেন, তখন আরজেডি এবং কংগ্রেস মুখ বন্ধ করে রেখেছিল। তারা ওই বিষয়ে কিছুই বলেনি।

ওয়াইসি বলেন, ‘এনআরসি’ এবং ‘সিএএ’ কেবল মুসলিম ও দলিতদের জন্য মাথাব্যথা নয়, বরং ৫০ শতাংশেরও বেশি ভারতীয় এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এর উদাহরণ হলো আসাম। এখানে, ২০ লাখ মানুষ এনআরসি’র বাইরে রয়েছে। এরমধ্যে মাত্র পাঁচ লাখ মুসলিম রয়েছেন। যেখানে হিন্দুদের সংখ্যা ১৫ লাখ।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ