শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১

দুর্দান্ত রাশিয়ান ট্রেনার জেট ইয়াক-১৩০ কিনতে আগ্রহী বাংলাদেশ

রাশিয়ার তৈরি ইয়ক-১৩০ হলো একটি সর্বকাজে পারদর্শী দুর্দান্ত প্রশিক্ষণ জেট যা তার এরই মধ্যে অনেকের সমিহ আদায় করেছে। প্রশিক্ষণের পাশাপাশি নজরদারি, এমনকি হামলা চালানোর কাজেও একে ব্যবহার করা যায়।

বহুমুখি কাজে ব্যবহার ও দামে সাশ্রয়ী হওয়ার কারণে সোভিয়েত আমলের এই জেট পরবর্তী যুগের রফতানি বাজারে তার চাহিদা ধরে রেখেছে। বিশেষ করে উন্নয়নশীল দেশের কাছে এটা খুবই জনপ্রিয়। বাংলাদেশ, বেলারুশ, মিয়ানমার ও আলজেরিয়া কয়েক ডজন ইয়ক-১৩০ কেনার জন্য অর্ডার দিচ্ছে।

গত বছর দুবাই এয়ার শো-তে রাশিয়ার ইউনাইটেড এয়ারক্রাফট কর্পোরেশন (ইউএসি) জানায় যে তারা ইয়ক-১৩০ আধুনিকায়নের কাজ করছে। একে প্রশিক্ষণের চেয়ে কমব্যাট এয়ারক্রাফটে রূপ দিতে এ কাজ করা হচ্ছে।

সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পরও যেসব সামরিক প্রকল্প বিলুপ্তির হাত রক্ষা পায় তার একটি ইয়ক-১৩০। এর উন্নয়নের ইতিহাসটিও দীর্ঘ। ১৯৮০’র দশকে সোভিয়েত সরকার তার পুরনোর চেক এরো এল-২৯ ও এল-৩৯ ট্রেনারগুলো বাতিল করতে এই প্রকল্প হাতে নেয়। পাঁচটি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান প্রকল্পের জন্য প্রাথমিক ডিজাইন জমা দিয়েছিলো। এগুলোর মধ্যে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত টিকেছিলো মাত্র দুটি মিকোইয়ান মিগ-এটি ও ইয়াকভলেভ ইয়াক-ইউটিএস।

ইয়াকভলেভ ১৯৯৩ সালে তার কনসেপ্ট ডেমনেস্ট্রেটর ডিজাইন চূড়ান্ত করে। তবে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের কারণে তহবিল সঙ্কটে প্রকল্পের কাজ আটকে যায়। তখন বাধ্য হয়ে তারা বিদেশী বিনিয়োগকারী খুঁজতে শুরু করে। এতে এগিয়ে আসে ইটালির বিমান নির্মাতা আরমাচ্চি। ১৯৯৬ সালে গ্রোমভ এয়ারফিল্ডে প্রথম প্রদর্শনী উড্ডয়ন করে ইয়ক-১৩০ডি।

প্রশাসনিক মতবিরোধের কারণে কয়েক বছরের মধ্যে ইয়াকভলেভ ও আরমাচ্চি আলাদা হয়ে যায়। আরমাচ্চি পরে নিজস্ব উপজাত ফাইটার এম-৩৪৬ মাস্টার তৈরি করে। এই ফাইটার এখনো ইটালি, ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল ও পোল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি দেশের সার্ভিসে রয়েছে। ইয়াকভলেভ তার মূল ১৯৮০’র দশকের চেষ্টায় ফিরে যায় এবং ইয়াক-১৩০ চূড়ান্ত করে রাশিয়ান বিমান বাহিনীর জন্য নতুন প্রশিক্ষণ বিমানের উৎপাদন শুরু করে।

ইয়ক-১৩০ হলো দুই সিটের লাইট ট্রেনিং জেট। এগুলো মানসম্মত সুইপ্ট-উইং, হিঞ্জড ক্যানোপি, লাইট-ওয়েট অ্যালয়ে নির্মিত। ইয়ক-১৩০ডি-এর চেয়ে কম বাঁকানো নাক ও খাটো ফিউজিলাজের কারণে ৩৫ ডিগ্রি কোনাকুনিতে সহজেই ঘুরতে পারে ইয়ক-১৩০। এর ইঞ্জিনের থ্রাষ্ট/ওয়েট রেশিও চমৎকার-০.৭। ফলে এগুলো অনেক উপরে উড়তে পারে এবং বিরূপ পরিবেশেও উড্ডয়নের ক্ষমতা রাখে।

সোভিয়েত-পরবর্তী যুগে অনেক ফাইটারের আগমন ঘটলেও ইয়ক-১৩০ দিচ্ছে বলিষ্ঠ এভিয়নিক্স প্রাকেজ। যার মধ্যে রয়েছে ফ্লাই-বাই-ওয়ার সিস্টেম, হেলমেট মাউন্টেড ডিসপ্লে টেকনলজি, ডুয়াল জিপিএস/গ্লোসনাস কমপ্যাটিবিলিটিসহ আরো অনেক কিছু।

এটি প্রশিক্ষণ বিমান হলেও এতে কমব্যাট সিমুলেশন মুডও রয়েছে। চমৎকার এরোডায়নামিক ডিজাইন ও অনবোর্ড ইলেক্ট্রনিক্স-এর কারণে ইয়ক-১৩০-এর পারফরমেন্স চতুর্থ ও চতর্থ+ প্রজন্মের ফাইটারের মাঝামাঝি। মিগ-২৯ ও বোয়িংয়ের তৈরি এফ/এ-১৮ই-এফ সুপার হর্নেট হলো ৪+ প্রজন্মের বিমান।

ইয়ক-১৩০-এর নয়টি হার্ড পয়েন্টে রাশিয়ার ওয়ার্কহর্স আর-৭৩ ‘আরচার’ স্বল্পপাল্লার এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল, খ-২৫ এমএল লেজার-গাইডেড মিসাইল ও কেএবি-৫০০আর গাইডেড বম্ব বহন করা যায়।

একান্তভাবে প্রশিক্ষণ বিমান হিসেবে ডিজাইন ও উৎপাদন করা হলেও ইয়াকভলেভ ইয়াক-১৩০কে একটি ভার্সেটাইল লাইট-অ্যাটাক প্লেন হিসেবে তুলে ধরে। এটি এয়ারক্রাফট কেরিয়ার থেকে পরিচালনা ও হামলা চালানোর কাজে ব্যবহার করা যায়। রাশিয়ান নতুন ক্লোজ-এয়ার সাপোর্ট ফাইটারের শর্ট লিস্টে ইয়ক-১৩০-এর একটি ভেরিয়েন্টের নামও ছিলো। তবে পরে সেটা বাদ দিয়ে একটি অ্যাডভান্সড সু-২৫ উপজাত যুক্ত করা হয়।

সূত্র: ন্যাশনাল ইন্টারেস্ট ও সাউথ এশিয়ান মনিটর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

insaf-news-friday-september-17-2021-9

insaf-news-friday-september-17-2021-8

insaf-news-friday-september-17-2021-7

insaf-news-friday-september-17-2021-6

insaf-news-friday-september-17-2021-5

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img