বুধবার, জানুয়ারি ১৯, ২০২২

তুরস্কে করোনার গণ টিকাদান শুরু

বৃহস্পতিবার থেকে করোনা কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে গণ টিকাদান কার্যক্রম শুরু করেছে তুরস্ক। তুর্কি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মতে, সারা দেশে ১০ লাখেরও বেশি স্বাস্থ্য কর্মীকে এ ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হবে। পরে দেয়া হবে নার্সিংহোমে বসবাসকারী বৃদ্ধদের।

ফেরিহা ওজেড ইমারজেন্সি হাসপাতালের প্রধান চিকিৎসক নুরউদ্দীন ইয়ায়েত জানান, তুরস্কের বৃহত্তম শহর ইস্তাম্বুলের স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের টিকাদান দুই দিনের মধ্যে সম্পন্ন হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ২০২০ সালে নির্মিত বিশেষায়িত এ হাসপাতালে দ্রুততম উপায়ে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য টিকা দেয়ার ৩০ কক্ষ বরাদ্দ করা হয়েছে।

হাসপাতালের সব কক্ষে একযোগে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার পর ডা. নুরউদ্দীন সিনহুয়াকে বলেন, ‘আমরা প্রতিদিন সর্বোচ্চ ১৮০০ জনকে ইনজেকশন করতে পারি।’

`প্রয়োজনে এ সংখ্যা আরও বাড়ানো যেতে পারে,’ বলেন তিনি।

ওই হাসপাতালে অ্যানেস্থেসিস্ট হিসেবে কাজ করা হেল এরিসির অনলাইনে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেয়ার পর তার টিকা নিতে খুব সকালেই আসেন টিকাদান সেন্টারে।

এরিসির ২০২০ সালের মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে তুরস্কে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই এ মহামারীর বিরুদ্ধে সক্রিয়ভাবে লড়াই করে চলেছেন।

সবাই টিকা পাবেন এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করে তিনি সিনহুয়াকে বলেন, ‘আমি সব সময় ভ্যাকসিনের ইতিবাচক প্রভাবগুলোতে বিশ্বাস করি এবং আমি নিশ্চিত যে এ কর্মসূচিটির মহামারি শেষ করার শক্তি রয়েছে।’

সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি একটি অনলাইন ব্যবস্থা এবং মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে দেশটির ৮১ প্রদেশে পরিচালিত হচ্ছে। প্রক্রিয়াটি ভ্যাকসিনের দীর্ঘ মেয়াদি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলোও শনাক্ত করতে পারে।

প্রয়োজনীয় সব সুরক্ষা সংক্রান্ত পরীক্ষা শেষে বুধবার দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সিনোভ্যাকের উৎপাদিত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেয়।

অনুমোদন পাওয়ার পর এক সরাসরি সম্প্রচারে ভ্যাকসিনের ডোজ নেন তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফখরুদ্দীন কোজা এবং করোনাভাইরাস সংক্রান্ত বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্যরা।

জনগণকে টিকা গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে কোজা বলেন, ‘এ টিকাদান কার্যক্রমটি আমাদের সাধারণ, পুরানো জীবনযাত্রায় ফিরে যাওয়ার জন্য প্রয়োজন।’

এর আগে ঘোষণা করা হয় যে সিনোভ্যাকের ভ্যাকসিন দেশে ট্রায়ালের ক্ষেত্রে ৯১.২৫ শতাংশ কার্যকর ছিল। ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীন থেকে ৩০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিনের প্রথম চালান পায় তুরস্ক।

সূত্র : ইউএনবি

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img