মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২২

‘আফগানিস্তানে মোতায়েন আমেরিকার সেনাবাহিনীর ওপর হামলার চেষ্টা চীনের’

পেন্টাগন দাবি করেছে, আফগানিস্তানে মোতায়েন মার্কিন বাহিনীর ওপর হামলা চালাতে চেয়েছিল চীন।

তবে সরাসরি নয়, এজন্য অর্থ সহায়তা দিতে চেয়েছিল তারা। খবর ডিডব্লিউ’র।

গত ১৭ ডিসেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিষয়টি নিয়ে অবহিত করে পেন্টাগন। তবে ট্রাম্প এর পরিপ্রেক্ষিতে কোনও ব্যবস্থা নিয়েছেন কি না, তা স্পষ্ট নয়। চীন ঠিক কাদের টাকা দিতে চেয়েছিল সেটিও স্পষ্ট নয়।

করোনার সময় থেকে চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক ক্রমশ তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। ট্রাম্প প্রকাশ্যে চীনের বিরোধিতা করেছেন।

বিশেষজ্ঞদের একাংশ মনে করছেন, জো বাইডেন ক্ষমতায় এলে বেইজিং-এর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক খানিকটা ভালো হতে পারে। তার মধ্যেই মার্কিন বাহিনীর ওপর চীনের হামলা চেষ্টার খবর সামনে এলো।

এই মুহূর্তে আফগানিস্তানে প্রায় দুই হাজার মার্কিন সেনা আছে। ন্যাটোর বাহিনীর সঙ্গে তারা কাজ করছে।

২০২০ সালের নভেম্বরে ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, ১৫ জানুয়ারির মধ্যে এই সেনাদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়া হবে। ন্যাটো অবশ্য এই বক্তব্যের বিরোধিতা করেছিল।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জিনজিয়াং প্রদেশে চীনের সঙ্গে আফগানিস্তানের ছোট সীমান্ত আছে। চীন বরাবরই চায় ওই সীমান্তের মাধ্যমে আফগানিস্তানে নিজেদের আধিপত্য বাড়াতে।

জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিমদের বসবাস। সেখানকার প্রায় দশ লাখ মুসলিমকে ডিটেনশন ক্যাম্পে আটক রাখায় বিশ্বজুড়ে সমালোচনার মধ্যে রয়েছে চীন। বেইজিং-এর বিরুদ্ধে উইঘুর মুসলিমদের বলপূর্বক দাসে পরিণত করার অভিযোগ করেছে গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর গ্লোবাল পলিসি।

চীনের ধারণা, আফগানিস্তান সীমান্ত থেকে জিনজিয়াং সীমান্ত অঞ্চলে চীনের ওপর নজরদারি চালায় মার্কিন বাহিনী। ফলে অনেক দিন ধরেই বেইজিং-এর দাবি, যুক্তরাষ্ট্রকে আফগানিস্তান ছাড়তে হবে।

চীন, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও যুক্তরাষ্ট্র একটি মঞ্চ শেয়ার করে। সেখানেও আফগানিস্তান প্রসঙ্গে আলোচনা হয়। চীন একাধিকবার সেখানে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা সরানোর দাবি জানিয়েছে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img