বুধবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২২

কংগ্রেসের কারণেই বিহারে মহাজোট সরকার গঠন হাতছাড়া হয়েছে: তারিক আনোয়ার

ভারতের বিহারে সাম্প্রতিক বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রসঙ্গে কংগ্রেস দলের সাধারণ সম্পাদক ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তারিক আনোয়ার বলেছেন, কংগ্রেসের দুর্বল পারফরম্যান্সের কারণে বিহার মহাজোটের সরকার গঠন হাতছাড়া হয়েছে। তিনি আজ (বৃহস্পতিবার) ওই মন্তব্য করেছেন।

তারিক আনোয়ার বলেন, ‘মহাজোটের অন্য শরিকদল তা সে আরজেডি হোক বা বামপন্থি হোক, তাদের ফল আমাদের চেয়ে ভালো। আমাদের ফল যদি ওদের মতো হতো তাহলে বিহারে মহাজোটের সরকার ক্ষমতায় আসত।’ এভাবে বিহারে কংগ্রেসের খারাপ ফলের জন্য দলটির ভেতর থেকেই আওয়াজ ওঠা শুরু হয়েছে।

তারিক আনোয়ারের মতে, আরজেডি-কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ‘মহাজোট’ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ ছিল কংগ্রেস। তিনি বিহারে আসাদউদ্দিন ওয়াইসির দল মজলিশ-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম)-এর প্রবেশ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

তারিক আনোয়ার বলেন, আমাদের অবশ্যই সত্যকে মেনে নিতে হবে। কংগ্রেসকে অবশ্যই এই বিষয়টি নিয়ে ভাবতে হবে যে কোথায় ভুল হয়েছে? বিহারে এমআইএমের (মিম) প্রবেশ শুভ লক্ষণ নয় বলেও তিনি কটাক্ষ করেন।

এ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদের আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রের অধ্যাপক মফিকুল ইসলাম আজ (বৃহস্পতিবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘বিহারে মিমের যে ফল তা দেখে জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে মুসলিমরা মুসলিমদেরও সহ্য করতে পারে না। তার কারণ হচ্ছে যে, মুসলিমরা সেক্যুলারিজমের বোঝাটা বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে। এবং কিছু অমুসলিমও আছেন যারা খুব সেক্যুলার। মুসলিমরা বিশেষ করে বেশি সেক্যুলার। তার কারণ হচ্ছে, তারা এধরণের ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলকে প্রাধান্য দেয়নি, বিশেষকরে স্বাধীনতার পরে। কিন্তু এখন ‘মিম’ ঢুকলে যে বিজেপি’র লাভ হয়ে যাবে বলে যা বলা হচ্ছে তা কী ঠিক? কারণ মিম পশ্চিমবঙ্গে আসার আগেই তো গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি ১৮টি আসন পেয়েছিল। এবং অনেকগুলো আসনে যেখানে তারা হেরেছে ওরাই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিল।’

অধ্যাপক মফিকুল ইসলাম আরও বলেন, ‘মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুর লোকসভা কেন্দ্রে এর আগের বারে বিজেপি মাত্র ৯৮ হাজার ভোট পেয়েছিল। কিন্তু বিগত লোকসভা নির্বাচনে তিন লাখেরও বেশি ভোট পেয়ে বিজেপি দ্বিতীয় স্থানে গেছে। ‘মিম’ পশ্চিমবঙ্গে আসা তো পরের ব্যাপার। বিজেপি’র সুবিধা হয়ে যাবে বলা হচ্ছে। কিন্তু রাজ্যে ক্ষমতাসীন তৃণমূলের লোকেরাও তো দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছে। এটাও তো খুব দেখা যাচ্ছে। যার যেখানে সুবিধা হচ্ছে, সে সেখানে ঝাঁপ মেরে যাচ্ছে। অনেক সময় দেখা যায় নির্বাচনে টিকিট না পেয়ে কেউ নির্দল হয়ে গেল। ভোটারদেরকে তো আর কেউ কিনে রাখেনি। সব দল যদি বলে এখান বিজেপিবিরোধী সরকার গড়ব তাহলে সবাই একসঙ্গে যৌথভাবে লড়ুক না। বিহারে ৩ টা জোট হয়েছিল।

পশ্চিমবঙ্গে ৩ টা জোট না করে এখানে বিজেপি থাকুক এবং অন্যসব দল মিলে বিজেপি বিরোধী জোট হোক। তাহলে দেখা যায় বিজেপি’র সঙ্গে পারা যায় কী না।’ কিন্তু সিপিএম, কংগ্রেস-সহ বিভিন্ন দল কেউই নিজেদের জায়গা ছাড়তে প্রস্তুত নয় বলেও অধ্যাপক মফিকুল ইসলাম মন্তব্য করেন। পার্সটুডে

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img