মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২২

‘কাশ্মীর আমেরিকান ডে’ ঘোষণা করবে নিউ ইয়র্ক; ক্ষোভে ফুসছে দিল্লি

বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে বসবাস করা ভারত দখলকৃত কাশ্মীরীরা ৫ ফেব্রুয়ারিকে ‘কাশ্মির সংহতি দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। আর এই দিনটিকে আরো স্বার্থক করে তুলতে ৫ ফেব্রুয়ারিকে ‘কাশ্মীর আমেরিকান ডে’ হিসেবে ঘোষণা করার প্রস্তাব পাস হয়েছে আমেরিকার নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের আইন পরিষদের নিম্নকক্ষ স্টেট অ্যাসেম্বলিতে ।

গত বুধবার (৩ ফেব্রুয়ারি) স্টেট অ্যাসেম্বলির এক সভায় এই প্রস্তাব পাস করা হয়।

এর আগে নিউ ইয়র্ক স্টেট অ্যাসেম্বলির ডেমোক্রেট দলীয় দুই সদস্য নাদের সাইয়েগ ও নিক পেরি অ্যাসেম্বলিতে এই প্রস্তাব উত্থাপন করেন।

কাশ্মীরীদের পক্ষে পাস হওয়া এই প্রস্তাবে পাকিস্তান সন্তুষ্টি প্রকাশ করলেও ক্ষোভে ফুসছে দখলদার ভারত।

ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাসের এক মুখপত্র জানান, নিউ ইয়র্ক রাজ্যের এই পদক্ষেপকে তারা ভারতের সম্মানের ওপর আঘাত হিসেবে দেখছেন।

তিনি দাবি করেন, বিচিত্র ও সমৃদ্ধ ভিন্ন ভিন্ন সাংস্কৃতিক নকশাকে ভারত ধারণ করেছে। কাশ্মীর এই সাংস্কৃতিক নকশারই অখণ্ড ও অবিচ্ছেদ্য অংশ বলেও তার দাবি।

নিউ ইয়র্ক স্টেট অ্যাসেম্বলিতে পাস হওয়া প্রস্তাবে বলা হয়, কাশ্মীরি সম্প্রদায় সব প্রতিকূলতা অতিক্রম করে তাদের অধ্যাবসায়ের মাধ্যমে নিউ ইয়র্কের অভিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছে। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে থাকা কাশ্মিরি জনগণ কশুর ভাষায় কথা বলে এবং ইসলাম, হিন্দু ও শিখ ধর্মের নিজস্ব প্রাচীন আচার অনুশীলন করে। হিমালয়ের পাদদেশ থেকে উদ্ভুত তাদের অনন্য সাংস্কৃতিক পরিচয় ও থরে থরে সাজানো ইতিহাসের স্বীকৃতি কাশ্মিরি পরিচিতিকে জীবন্ত রাখবে।

প্রস্তাবে বলা হয়, নিউ ইয়র্ক রাজ্য আমেরিকার সংবিধান অনুসারে ভিন্ন সংস্কৃতি, জাতি ও ধর্মীয় পরিচয়ের স্বীকৃতির বিধান অনুসারে সকল কাশ্মীরি জনগণের ধর্ম, আন্দোলন ও মত প্রকাশের স্বাধীনতাসহ মানবাধিকার রক্ষার সমর্থন করছে।

এদিকে নিউ ইয়র্কের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে পাকিস্তান। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জাহিদ হাফিজ চৌধুরী এক বার্তায় বলেছেন, এই প্রস্তাব কাশ্মীরি জনগণের সাহস ও অধ্যাবসায়ের প্রশংসা করেছে এবং তাদের অনন্য সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় পরিচয়ের স্বীকৃতি দিয়েছে। এই প্রস্তাব কাশ্মিরি জনগণের প্রতি আন্তর্জাতিক সমর্থনের আরেকটি নিদর্শন যারা শুধু তাদের আত্মনিয়ন্ত্রণের মৌলিক অধিকার রক্ষায় লড়াই করছেন। যা জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবনারই অন্তর্ভুক্ত।

তিনি বলেন, এই প্রস্তাব আরেকটি প্রমাণ যে, ভারত কাশ্মিরের জনগণের মানবাধিকার লঙ্ঘনের স্থূল ও নিয়মতান্ত্রিক পন্থা কোনোভাবেই গোপন করতে পারবে না।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img