রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

মুসলিম দেশগুলোকে ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক তৈরিতে চাপ দিতে ইন্দোনেশিয়াকে বিলিয়ন ডলারের অফার

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান

ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করা না করার মাঝে দোদুল্যমান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগের কয়েক বিলিয়ন ডলার!

মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন সরকারি কর্মকর্তার বরাতে এই সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা আল জাজিরা।

খবরে বলা হয়, ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে নিয়ে ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে মুসলিম দেশগুলোকে চাপ দেওয়ার মার্কিন প্রক্রিয়ায় ইন্দোনেশিয়া যদি অংশগ্রহণ করে, তবে তারা তাদের দেশে মার্কিন অর্থায়নের ক্ষেত্রে আরো অতিরিক্ত ১ বিলিয়ন ডলারের অর্থায়ন উন্মুক্ত করতে পারে।

তাছাড়া, বহির্বিশ্বে উন্নয়ন ও অর্থায়ন করা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রায়ত্ত অর্থনৈতিক সংস্থা ইউএস ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট ফিন্যান্স করপোরেশন ডিএফসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যাডাম ব্যোহলার গত সোমবার (২১ ডিসেম্বর) জেরুসালেমের কিং ডেভিড হোটেলে সাক্ষাতকার দানকালে বলেছিলেন, ইন্দোনেশিয়া ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুললে ইন্দোনেশিয়ায় ডিএফসির ১ বিলিয়ন ডলারের পোর্টফোলিও দ্বিগুণেরও বেশি হতে পারে।

এছাড়াও অ্যাডাম ব্যোহলার বলেছিলেন, আমরা তাদেরকে এই বিষয়ে বলেছিলাম, যদি তারা রাজি থাকে তবে আমরাও (অতিরিক্ত অর্থায়নে) রাজি। আর যদি বাস্তবিকই তারা রাজি থাকে, তবে আমরা যে পরিমাণ অর্থ সহায়তা দিয়ে থাকি তার চেয়ে অনেক বেশি পরিমাণ অর্থ সহায়তা দিতে পেরে বরং খুশিই হবো।

তার বক্তব্য মতে, বিশ্বের বৃহত্তম মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ায় তার সংস্থা যদি ১ বিলিয়ন বা ২ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি অর্থ সহায়তা দেয় তবে তিনি অবাক হবেন না।

গত কয়েকমাসে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ব্যাপারে সৌদি আরব, বাহরাইন, সুদান এবং মরক্কোর স্বতন্ত্র ঘোষণায় আশান্বিত হয়ে আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইলের নেতারা বলেছিলেন যে, অন্যান্য মুসলিম রাষ্ট্রগুলোও নিজ নিজ অবস্থানে থেকে ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের জাগরণে যোগ দিবে বলে তারা আশাবাদী।

ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে মুসলিম দেশগুলোকে ট্রাম্প প্রশাসনের চাপ প্রয়োগের প্রক্রিয়ায় ইন্দোনেশিয়ার পাশাপাশি সৌদি আরব ও ওমানও যোগ দিয়ে বিশাল অর্থায়নের সুযোগ লুফে নিবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

তবে এই ব্যাপারে অ্যাডাম ব্যোহলার বলেন, ডিএফসি কর্তৃক সৌদি ও ওমানে অর্থায়নের ব্যাপারটিতে প্রচুর সীমাবদ্ধতা থাকবে। কেনোনা এই অর্থনৈতিক সংস্থা বা সংগঠনের পক্ষ থেকে অতি উচ্চ আয়ের দেশগুলোতে সরাসরি বিনিয়োগ করার অনুমতি নেই।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img