মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২২

ফিলিস্তিন সংকট নিরসনে শান্তি প্রক্রিয়ার প্রসারে বাইডেনকে কাজ করার আহ্বান ইইউ’র

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান

নবনির্বাচিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংকট নিরসনে শান্তি প্রক্রিয়ার প্রসারে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে কাজ করে যাওয়ার আহবান জানিয়েছে একদল ইউরোপীয় রাজনীতিবিদ।

সোমবার (২১ ডিসেম্বর) এই সংক্রান্ত খবর প্রকাশ করে ফিলিস্তিনের সংবাদ সংস্থা ওয়াফা।

তাদের খবরে বলা হয়, যুক্তরাজ্য, আয়ারল্যান্ড, বেলজিয়ম, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, লুক্সেমবার্গ, স্পেন ও সুইডেনের পার্লামেন্টের একদল সাংসদ যারা ইইউর পার্লামেন্টের সংসদ সদস্যও বটে, গত শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) ইসরাইল-ফিলিস্তিন ইস্যু সমাধানে শান্তি প্রক্রিয়ার প্রসারে ইইউর সাথে কাজ করতে জো বাইডেনের কাছে একটি চিঠি লিখে।

চিঠিতে বাইডেনকে খেতাব করে বলা হয়, স্বীকৃত রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিত্বকারী ইউরোপীয় রাষ্ট্রের জাতীয় সাংসদ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের পার্লামেন্টের সংসদ সদস্য হিসেবে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের সম অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আমরা সকলেই উদ্বিগ্ন।

ন্যায়বিচার, পারস্পরিক সুরক্ষা ও শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আপনাকে আমরা আমাদের মতোই উদ্বিগ্ন বলে মনে করি।

কেনোনা, ইসরাইল বহু আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অধিকার রক্ষা ও দায়িত্বের প্রতি যত্নশীল হওয়ার ব্যাপারে চুক্তি সাক্ষর করেছে কিন্তু তারাই আবার অবলীলায় তা পদপিষ্ট করে চলেছে! ফিলিস্তিনিদের ঘরবাড়ি গুড়িয়ে দিয়ে ইহুদি বসতি স্থাপন, জেনেভা কনভেনশনে সাক্ষরিত চুক্তি ও স্বীকৃত আইনের মারাত্মক লঙ্ঘন। শুধু তাই নয়, ইসরাইলের সবধরনের ইহুদি বসতিই আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী অবৈধ, সেটা রামাত শ্লোমো, এরিয়েল বা বিশ্বের যেকোনো জায়গায় হোক না কেনো।

কেনোনা, গাজা উপত্যকা, পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুসালেম সহ ফিলিস্তিনের সব ভূমিই ১৯৬৭ সনে ইসরাইল কর্তৃক দখলকৃত। আর আইন অনুযায়ী বাহিনীর মাধ্যমে ভূমি দখল বা অধিগ্রহণ অবৈধ।

ডি ফ্যাক্টো সংযুক্তকরণ ভুল নীতির মতো গিভাত হামাতোস ও ই১ (E1) নীতিও সমান বিপজ্জনক। কেনোনা খারবাতু হামসার মতো অন্যান্য অঞ্চল থেকে ফিলিস্তিনিদের তাড়িয়ে দিয়ে তা নিজেদের সাথে সংযুক্ত করতে ইসরাইল নিয়মতান্ত্রিক ব্যবস্থাপনা স্বরূপ ডি ফ্যাক্টো সংযুক্তকরণ নীতি আর অতিদ্রুত অবৈধ বসতি বিনির্মানে গিভাত হামাতোস ও ই১ (E1) নীতি প্রণয়ন করেছে।

ডি ফ্যাক্টো, গিভাত হামাতোস ও ই১ (E1) সহ আরো যতো অবৈধ দখল সম্প্রসারণমূলক নীতি রয়েছে তা বন্ধ হওয়া দরকার। কেনোনা, এগুলো জনগণকে তাদের ব্যক্তি স্বাধীনতা ও রাষ্ট্রীয় অধিকার থেকে বঞ্চিত করার জন্য প্রণীত হয়েছে।

চিঠিতে আরো বলা হয় যে, আমরা দৃঢ় বিশ্বাস ও আশাবাদ ব্যক্ত করি যে, উভয় পক্ষের বিশ্বাসকে সমুন্নত রেখে বাইডেনের নেতৃত্বাধীন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দুই পক্ষের মাঝে নিঃস্বার্থভাবে একটি মধ্যস্থতা করে দিবে।

ঘাতপ্রতিঘাতে না যাওয়া উত্তম এবং বুদ্ধিমানের কাজ। তবে, গত ৪ বছরে ব্যক্তি অধিকার, স্বাধীনতা হরণ ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের পরিবর্তে মানবাধিকার লঙ্ঘন করে আইনের শাসনের যে পরিমাণ ক্ষতিসাধন ইসরাইল করেছে, ভবিষ্যত সতর্কতা স্বরূপ জরুরী ভিত্তিতে তার তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

অবৈধ বসতিতে গবেষণার কাজে অর্থ সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে আপনার নেতৃত্বাধীন প্রশাসন জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ২৩৩৪ ধারাটি যাতে প্রয়োগ করে তা নিশ্চিত করুন।

পরিশেষে বলা হয়, কোন বিষয়টি সঠিক তা পুনরায় বিবেচনা করে দেখতে আমরা আপনাকে অত্যন্ত সম্মানের সাথে আবারো অনুরোধ জানাচ্ছি। যদি আইন মেনেই আমাদের বসবাস করতে হয় তবে সঠিক বিষয়ে বিবেচনা করার প্রয়োজন অনস্বীকার্য।

কেনোনা আমাদের পারস্পরিক লক্ষ্য উদ্দেশ্য হল, জেরুসালেমকে দুটি রাষ্ট্রের রাজধানী করে ১৯৬৭ ‘র সীমানা আইনের ভিত্তিতে দুটি সার্বভৌম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু অবশ্যই তা হতে হবে পরস্পরের সন্তুষ্টিতে সমবন্টনের মাধ্যমে ভূমি অদলবদল করে এবং ১৯৬৭ ‘র অবৈধ দখলদারিত্বকে নিঃশেষ করে দিয়ে।

এক্ষেত্রে সমুদ্র এবং জর্ডান নদীর মাঝামাঝি বসবাসরত উভয়ের জন্যই জরুরী হল, নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে পারস্পরিক আলোচনা এবং শরণার্থী ব্যবস্থাপনা ও সম অধিকার নিশ্চিত করণার্থে একটি চুক্তি।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img