রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

এই প্রথম মাত্র ১ ডিগ্রীর এক দশমাংশ দুরত্বে পাশাপাশি অবস্থান করতে যাচ্ছে বৃহস্পতি-শনি গ্রহ

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান

জুপিটার ও সেটার্ন বা বৃহস্পতি ও শনিগ্রহ একে অপরের সাথে মিশে যেতে যাচ্ছে রাতের আকাশে!

সোমবার (২১ ডিসেম্বর) আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা আল জাজিরার মহাকাশ বিষয়ক পাতায় এই সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়।

খবরে বলা হয়, ১৭ শতকে রাতের আকাশে গ্যালিলিও তার জীবদ্দশায় যত নিকটে আসতে ও মিশে যেতে দেখেছিলেন তার চেয়েও অতি নিকটে এবং মিশে যেতে চলেছে বৃহস্পতি ও শনি এই গ্রহ দুটি।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই গ্রহ দুটি এর আগে কখনো এতো কাছে আসে নি।

তাদের ভাষ্যমতে, মহাকাশের সর্ববৃহৎ এই দুটি গ্রহের পরস্পরের কোল ঘেঁষে গমন বা রাতের আকাশে মিশে গেছে বলে দৃশ্যমান হওয়ার ঘটনা খুব একটা বিরল নয়। প্রতি ২০ বছর অন্তর অন্তর বৃহস্পতি এবং তার পার্শ্ববর্তী শনিগ্রহ নিজ নিজ কক্ষপথ দিয়ে একে অপরের কোল ঘেঁষে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে থাকে। তবুও আজকের কোল ঘেঁষে অতিক্রমের বিষয়টি ২০ বছর পর পর অন্যান্য অতিক্রমণ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা।

কেনোনা আজ এই বৃহৎ দুটি গ্রহ একে অপর থেকে আমাদের পরিগণিত ১ ডিগ্রীর শুধুমাত্র এক দশমাংশ দুরত্ব দিয়ে অতিক্রম করবে! অথবা, পূর্ণ চাঁদের হিসাবে একে অপরের দূরত্বের পরিমাণ হবে পূর্ণ চাঁদের এক পঞ্চমাংশ সমান প্রস্থ!যা কিনা এই দুটি গ্রহের একে অপরের নিকট দিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে খুবই কম দুরত্ব। তাই এটি খুবই বিরল একটি বিষয়।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন, আজ আবহাওয়া ভালো থাকলে সূর্যাস্তের কিছুক্ষণ পরই পুরো বিশ্বজুড়ে খুব সহজেই তা দেখা যাবে।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের ভাষ্যমতে, বৃহস্পতি ও শনিগ্রহের রাতের আকাশে মিশে যাওয়ার দৃশ্যটি ভালোভাবে দৃশ্যমান হবে সূর্যাস্তের অল্পসময় পরেই। তাই সূর্যাস্তের কিছুক্ষণ পর দক্ষিণ-পশ্চিমাংশের দিগন্তের তুলনামূলক নীচে লক্ষ্য করলে উৎসুক দর্শকেরা তা ভালোভাবে দেখতে পাবেন।

দক্ষিণ-পশ্চিমাংশের দিগন্তের তুলনামূলক নীচে লক্ষ্য করলে বৃহস্পতিগ্রহের ডানদিকের সামান্য উপরের অংশে মিনমিনে আলোকচ্ছটা বা ম্লান অবস্থায় শনিগ্রহটিকে দর্শকেরা দেখতে পাবেন।

একে অপরের অতি নিকটে থাকায় গ্রহ দুটিকে আলাদাভাবে বুঝতে পারাও দুষ্কর হয়ে যাবে। তাই গ্রহ দুটিককে দৃষ্টি সীমায় স্পষ্ট করতে হলে দূরবীন ব্যবহার করতে হবে বলেও জানান জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা।

উল্লেখ্য, ১৬২৩ সালের জুলাইয়ের পর থেকে এটিই হবে বৃহস্পতি ও শনিগ্রহের সবচেয়ে বেশি নিকটে আসা। ১৬২৩ সালে সূর্যের অতি নিকটে থাকায় এই গ্রহ দুটির মাত্রাতিরিক্ত কাছে আসার দৃশ্যটি দেখা ছিল একেবারেই অসম্ভব।

এর আগে গ্রহ দুটি আজকের মতো মাত্রাতিরিক্ত সন্নিকটে না আসলেও তুলনামূলক নিকটে এবং তা আকাশেও দৃশ্যমান হয়েছিল ১২২৬ সনের মার্চে, যখন চেঙ্গিস খান এশিয়া বিজয় করছিলেন।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন গ্রহ দুটির পরবর্তী সুপার ক্লোসেট বা মাত্রাতিরিক্ত সন্নিকটে আসার ঘটনা আবার ঘটবে ২০৮০ সালের ১৩ মার্চ!

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img