বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২

যেভাবে ডাক্তার থেকে আল কায়দা প্রধান হলেন আয়মান আল জাওয়াহিরী

আয়মান আল জাওয়াহিরী একবার বক্তব্যে বলেছিলেন, ”আমরা কুরবানী দিচ্ছি। দ্বীনের জন্য এই কুরবানী রক্তের শেষ বিন্দু পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। আমাদের লক্ষ্য দূরবর্তী শত্রু তথা আমেরিকা এবং নিকটবর্তী শত্রু তথা আরবের উদারপন্থীদের পরাজিত করে বিশ্বব্যাপী একটি মুসলিম খেলাফত ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করা।” এই বক্তব্য থেকেই তাঁর জীবনের লক্ষ্য উদ্দেশ্য নিয়ে স্পষ্ট হওয়া যায়।

জাওয়াহিরী ৭১ বয়সী মিশরীয় চক্ষু ডাক্তার। যাকে আমেরিকা ১৯৯৮ সালে কেনিয়া ও তানজানিয়ায় আমেরিকার দূতাবাসে হামলা এবং ৯/১১ এ ওয়াশিংটন ডিসি ও নিউইয়র্কে হামলার কেন্দ্রীয় চরিত্র দাবি করে আসছে।

২০১১ সালে আল কায়দার প্রতিষ্ঠাতা উসামা বিন লাদেনকে হত্যা করে আমেরিকা। এর ২ মাসের মাথায় আল কায়দার প্রধান দায়িত্বে আসেন জাওয়াহিরী। বিন লাদেন যেখানে বিশিষ্ট সৌদি পরিবার থেকে আগত, জাওয়াহিরী ছিলেন অভ্যন্তরীণ বিপ্লবের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন নেতা। বিন লাদেন অসাধারণ নেতৃত্বগুণ ও অর্থের মাধ্যমে আল কায়দাকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন, কিন্তু জাওয়াহিরী ছিলেন কৌশল ও সাংগঠনিক দক্ষতাসম্পন্ন। বলা হয়ে থাকে, সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে বিন লাদেন সর্বদা জাওয়াহিরীর দিকে চেয়ে থাকতেন। জর্জটাউন ইউনিভার্সিটির সিকিউরিটি স্টাডিজ বিভাগের প্রফেসর ব্রুচ হফম্যান বার্তা সংস্থাকে দেওয়া তথ্যে এমনটাই উল্লেখ্য করেন।

জাওয়াহিরী ১৯৫১ সালে মিশরের কায়রোতে এক বিশিষ্ট পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর দাদা শাইখ মুহাম্মাদ আল আহমদী আল জাওয়াহিরী মিশরের বিখ্যাত মসজিদ আল আজহার জামে মসজিদের  প্রধান ইমাম ছিলেন। তাঁর বাবা মুহাম্মাদ আল রাবি ছিলেন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ। তিনি যেখানে বড় হয়েছেন সেখানে যুবকরা সাধারণত পশ্চিমা সংস্কৃতি লালন করতেন, অথচ তিনি এর ঘোর বিরোধী ছিলেন।

তিনি মাত্র ১৫ বছর বয়সে মুসলিম ব্রাদারহুডে যোগ দেওয়ার অভিযোগে কারাবরণ করেন। তিনি মিশরীয় লেখক সাইয়েদ কুতুবের বিপ্লবী চিন্তাধারা থেকে অনুপ্রাণিত। যাকে ১৯৬৬ সালে মিশরের সরকার ষড়যন্ত্র করে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করে।

১৯৭০ এর দশকে কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদে যারা জাওয়াহিরীর সহপাঠী ছিলেন তারা সিনেমা, গানবাজনা ও বন্ধুদের সাথে হাসিতামাশা নিয়ে মত্ত থাকতেন। কিন্তু জাওয়াহিরী ভিন্ন চিন্তার মানুষ ছিলেন। তিনি তখন থেকেই সশস্ত্র সংগঠনের চিন্তাভাবনা করতেন। তিনি নিজের চিন্তাধারার সাথে সামঞ্জস্য অন্যান্যদের নিয়ে একটি জিহাদী বাহিনী গঠন করেন। এবং প্রশিক্ষণের জন্য সেনাবাহিনীতে যোগদানের পরিকল্পনা করেন।

জাওয়াহিরী প্রথম আলোচনায় আসেন ১৯৮১ সালে। যখন আদালত তাকে মিশরের প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সাদাতকে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত করে। যখন আনোয়ার সাদাত ইহুদিবাদি ইসরাইলের সাথে চুক্তি করে তখন জাওয়াহিরী মিশররের যুবকদের জড়ো করে স্লোগান দেন, “আমরা ইসলামের জন্য কুরবানী দিতে প্রস্তুত। ইসলামের বিজয় আসা আগ পর্যন্ত আমাদের কুরবানী অব্যাহত থাকবে”।

তিনি প্রেসিডেন্ট হত্যার অভিযোগ থেকে খালাস পেলেও তখন অবৈধ অস্ত্র রাখার অভিযোগে ৩ বছরের কারাবন্দী ছিলেন। কারাগারে তিনি ব্যাপক নির্যাতনের শিকার হোন। যা তাঁর মনোবলকে আরো দৃঢ় করে তোলে।

জাওয়াহিরী একজন প্রশিক্ষিত সার্জন। যিনি ডাক্তার হিসেবে পরিচিত। রেড ক্রিসেন্ট দলের সাথে আফগান-সোভিয়েত যুদ্ধে হতাহতদের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে পাকিস্তানে আসেন। সেখানে তিনি বিন লাদেনের সাথে পরিচিত হোন এবং আফগান প্রতিরোধ বাহিনীতে যোগ দেন।

জাওয়াহিরী ১৯৯৩ সালে মিশরের ইসলামি জিহাদের নেতৃত্বে আসেন। ৯০ দশকের মাঝামাঝি সময়ে মিশরের প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারককে হটানোর জন্য ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তোলা হয়। সেসময় মিশরের সরকার নির্বিচারে ১২০০ সাধারণ জনগণকে হত্যা করে। ১৯৯৫ সালের জুনে ইথোপিয়ার আদ্দিস আবাবায় হোসনি মুবারককে হত্যার চেষ্টা করা হলে জিহাদীদের উৎখাত করার জন্য উঠেপড়ে লাগে মিশরের সরকার।

১৯৯৫ সালে পাকিস্তানে অবস্থিত মিশরের দূতাবাসে হামলা চালানো হয়। যেখানে ১৬ জনের মৃত্যু হয়। এ হামলাটি জাওয়াহিরীর নির্দেশে সম্পন্ন হয় বলে দাবী করা হয়। এছাড়াও ১৯৯৭ সালে মিশরের লুক্সর শহরে বিদেশি পর্যটকদের উপর হামলা করা হয় যেখানে ৬২ জন মানুষ মারা যায়। বলা হয় এর পিছনেও জাওয়াহিরীর হাত রয়েছে।

১৯৯৯ সালে মিশরের একটি সামরিক আদালত জাওয়াহিরীকে অনুপস্থিত মৃত্যুদণ্ডের রায় দেয়। ততক্ষণে জাওয়াহিরী বিন লাদেনের সাথে আল কায়দাকে সংগঠিত করে ফেলেছেন। যার মূল ঘাটি ছিল আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সীমান্ত অঞ্চল।

২০০১ সালে যখন আমেরিকা আল কায়দার নিরাপদ আশ্রয়স্থল ধ্বংস করে দেয় এবং বিভিন্ন নেতাকর্মীদের হত্যা ও গ্রেফতার করে। তখন জাওয়াহিরী আল কায়দাকে পুনর্গঠনে কাজ করেন। আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী এলাকায় পূনরায় বন্ধুদের জড়ো করেন এবং গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্বের স্থানে আসীন হোন। তিনি একসময় আন্দোলনের মুখপাত্র হয়ে উঠেন। যখন বিন লাদেন আত্মগোপনে থাকতেন তিনি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে আন্দোলনকে চাঙ্গা রাখতেন। তিনি শত বাধা বিপত্তি এড়িয়ে সংগঠনের নতুন আকার দেন৷ তিনি এলাকাভিত্তিক স্বায়ত্তশাসিত শাখা তৈরি করেন। ইরাক, সৌদি আরব, ইয়েমেন, উত্তর আফ্রিকা, সোমালিয়া এবং এশিয়াতে ভিন্ন ভিন্ন শাখা তৈরি করেন।

৯/১১ এর পরেও আল কায়দাকে ইউরোপ, পাকিস্তান ও তুরস্কে কিছু হামলার জন্য দায়ী করা হয়। এরমধ্যে ২০০৪ সালে মাদ্রিদে ট্রেন বোমা হামলা এবং ২০০৫ সালে লন্ডনে ট্রানজিট বোমা হামলা অন্যতম। এছাড়াও ২০০৯ সালে আল কায়দার ইয়েমেন শাখা একটি আমেরিকার যাত্রীবাহী বিমানে বোমা হামলা করে বলে উল্লেখ্য আছে।

বিন লাদেনের মৃত্যুর পর নেতৃত্বে আসেন জাওয়াহিরী। তখন তিনি আমেরিকার বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে যাওয়ার প্রতিজ্ঞা করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে যা হয়েছে তা ভিন্নরকম। ২০১১ সালে শুরু হয় আরব বসন্ত। এরপর ২০১৪ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত ইরাক এবং সিরিয়ায় ‘আইএসআইএস’ বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

তালহা আব্দুর রাজ্জাক, এক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক। তিনি আল জাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, বিন লাদেনের পর জাওয়াহিরী যখন আল কায়দার নেতৃত্বে আসেন তখন সংগঠনের অবস্থা ভঙ্গুর প্রায়। তিনি নেতৃত্বে আসলেও অনেক মুজাহিদ গ্রুপ বিন লাদেনের যায়গায় তাকে মেনে নিতে পারেনি।

গত ২ আগস্ট মঙ্গলবার আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এক লাইভ অনুষ্ঠানে ঘোষণা দেন আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ আয়মান আল জাওয়াহিরীকে আফগানিস্তানের কাবুলে এক ড্রোন হামলায় হত্যা করেছে।

আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী আফগানিস্তান সময় ৩১ জুলাই সকাল ৬ টা ১৮ মিনিটে এ হামলা চালানো হয়। ঘটনাটি ঘটে আফগানিস্তানের রাজধানী মধ্য কাবুলের শেরপুর এলাকায়। সেখানে জাওয়াহিরী নিজের পরিবার নিয়ে একটি নিরাপদ বাসায় অবস্থান করছিলেন।

আল কায়দা প্রধান শাইখ আয়মান আল জাওয়াহিরীর হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে সরাসরি কিছু না বললেও হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে ইমারতে ইসলামিয়া আফগানিস্তান। আফগানিস্তানের তথ্য উপমন্ত্রী জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ এক বিবৃতিতে বলেন, আমরা আমেরিকার এমন হামলার নিন্দা জানাই। এ হামলা করে আমেরিকা ‘দোহা চুক্তি ২০২০’ কে লঙ্ঘন করেছে।

সূত্র : আল জাজিরা
spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img