বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২

জাওয়াহিরীকে হত্যায় আমেরিকাকে সহায়তা করেছে পাকিস্তান?

গত ২ আগস্ট মঙ্গলবার আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন দাবী করেন, আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ আল কায়দার আমীর আয়মান আল জাওয়াহিরীকে আফগানিস্তানের কাবুলে এক ড্রোন হামলায় হত্যা করেছে। হামলার ঘটনা ঘটে ৩১ আগস্ট অর্থাৎ হামলার ২ দিন পর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসে। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হামলা নিয়ে ব্রিফ করলেও কিছু প্রশ্ন থেকে যায়। এই হামলায় আমেরিকাকে সহায়তা করলো কে?

গত বছরের আগস্ট মাসে আফগানিস্তান থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করে আমেরিকা। এমনকি কাবুল থেকে নিজেদের দূতাবাস পর্যন্ত সরিয়ে নেয়। যেখানে তাদের স্থায়ী কোনো আবাস নেই তাদের পক্ষে কিভাবে এমন পরিকল্পিত হামলা করা সম্ভব? তাহলে কি তালেবান এ হামলায় আমেরিকাকে সহযোগিতা করেছে? শুরুতে এমনটা মনে হলেও তালেবান সরকারের এ হামলার নিন্দা জানানোর দ্বারা এ আশংকা দূর হয়ে যায়। কারণ তালেবান এর সাথে জড়িত থাকলে এ হামলার নিন্দা জানাতো না।

বিবিসি পশতুর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এ হামলার সাথে পাকিস্তান জড়িত থাকতে পারে। কারণ ইদানিংকালে পাকিস্তানের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই শোচনীয়। মুদ্রাস্ফীতি এবং বিদেশী ঋণের কবলে জর্জরিত পাকিস্তানের অর্থনীতি। অর্থনীতির এমন দশা থেকে মুক্তি পেতে স্বাভাবিকভাবেই আমেরিকার সাথে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতে চাইবে পাকিস্তান।

পাকিস্তানের ডন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী হামলার ২ দিন আগে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল ক্বামার জাভেদ বাজওয়া আমেরিকার সহকারী পররাষ্ট্র সচিব ওয়েন্ডি শেরমানের সাথে গুরুত্বপূর্ন ফোন আলাপ করেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাজওয়া আমেরিকার কাছে আবেদন করেন যেনো পাকিস্তানকে জরুরী ভিত্তিতে ১.২ বিলিয়ন ডলার ঋণের জন্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলকে (আইএমএফ) চাপ দেওয়া হয়। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র আসিম ইফতিখার আহমেদ ফোন আলাপকে অর্থনৈতিক বললেও এটা বুঝা যায় উভয়ের মাঝে আরো নানান বিষয়ে আলাপ হয়েছে। কারণ তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্ন এড়িয়ে যান।

বাজওয়ার ফোন আলাপের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ন মন্তব্য করেন পাকিস্তানের সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, “আমেরিকার কাছে সাহায্য চাওয়া সেনা প্রধানের কাজ নয়। আমেরিকা পাকিস্তানকে সাহায্য করলে তাদের অবশ্যই চাহিদা থাকবে। আমেরিকার চাহিদা পূরণ করলে পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়বে। এবং শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান ক্ষতিগ্রস্ত হবে।”

গত ১০ এপ্রিল পাকিস্তানের পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটে ইমরান খানকে হারিয়ে প্রধানমন্ত্রী হন শাহবাজ শরীফ। শুরু থেকেই ইমরান খান দাবী করে আসছেন তাকে হঠানোর পিছনে আমেরিকার ষড়যন্ত্র রয়েছে। আমেরিকার দাবী পূরণ না করার দরুণ তাকে ক্ষমতাচ্যুত হতে হয়েছে।

শাহবাজ ক্ষমতায় আসার পর প্রথমবারের মতো আফগানিস্তানে বিমান হামলা চালায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী। জার্মান ভিত্তিক বার্তা সংস্থা ডয়েচেভেলের প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৬ এপ্রিল আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় খোস্ত ও কুনার প্রদেশে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর হামলায় অন্তত ৪৮ জন প্রাণ হারায়। যাদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু।

এই হামলার পর অনেকে মন্তব্য করেন আমেরিকা ও ন্যাটো বাহিনী ২০ বছর যাবত আফগানিস্তানে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে, তারা আফগান ভূখণ্ড ত্যাগ করলেও পাকিস্তানের মাধ্যমে সেই স্বাদ জিইয়ে রাখতে চায়।

ইতিহাসে আলোকপাত করলে দেখা যায়। ২০১১ সালের ৩ মে পাকিস্তানের এবোটাবাদে একটি স্থল অভিযানে আল কায়দার প্রতিষ্ঠাতা আমীর উসামা বিন লাদেনকে হত্যা করে আমেরিকা। তখন নিজেদের ভূখণ্ডে এমন হামলায় আমেরিকাকে সহযোগিতা করেছে পাকিস্তান। যদিও তারা এর সাথে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে, কিন্তু পাকিস্তানের অগোচরে অ্যাবোটাবাদের মতো সংরক্ষিত সামরিক এলাকায় এতো বড় স্থল অভিযান কখনোই সম্ভব না।

বিশিষ্ট অনুসন্ধানী সাংবাদিক সেইমোর হার্শ বলেন, আমেরিকা তৎকালীন পাকিস্তানি জেনারেলকে এই হামলায় সহযোগিতার জন্য ব্লাকমেইল করেছিল। এই হামলায় পাকিস্তানের সংশ্লিষ্টতা গোপন করার দুটি কারণ হতে পারে। ওবামা প্রশাসন হামলার কৃতিত্ব একান্ত নিজেদের বলে ইমেজ বৃদ্ধি করতে চেয়েছে অথবা রাজনৈতিক কারণে পাকিস্তান এ বিষয়ে চুপ থেকেছে। কারণ পাকিস্তানে বিন লাদেনের অনেক বেশি জনপ্রিয়তা ছিল।

বারাক ওবামা যখন বিন লাদেনকে হত্যা করে তখন ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন জো বাইডেন। বিন লাদেন হত্যাকে পূঁজি করে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় যান ওবামা। এবং এতে প্রত্যক্ষ সহযোগিতা করে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। তাই প্রশ্ন থেকে যায় ওবামা থেকে বাইডেন, বিন লাদেন থেকে জাওয়াহিরী সব একই সূত্রে গাঁথা নয়তো?

সূত্র : বিবিসি, আল জাজিরা ও ডয়েচেভেলে
spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img