মঙ্গলবার, জুন ২৮, ২০২২

শায়েখ আক শামসুদ্দীন : ইস্তানবুল বিজয়ে যার অবদান অনস্বীকার্য

সা’দ আব্দুল্লাহ


ইস্তানবুল বিজয়ী বীর সুলতান মুহাম্মদ আল-ফাতিহের উস্তায শায়েখ আক শামসুদ্দীন শৈশবে তাঁর মনে এক ঐতিহাসিক স্বপ্ন এঁকে দিয়েছিলেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে সুলতান মুহাম্মদ আল-ফাতিহ অভিযানের যাবতীয় পরিকল্পনা সম্পন্ন করে ইস্তানবুলের উদ্দেশ্যে যাত্রার প্রস্তুতি নেন।

আক শামসুদ্দীন ছিলেন সে সকল মনীষীদের একজন, যারা সুলতান আল-ফাতিহের উপর অত্যধিক প্রভাব রাখতেন। শায়েখ আক শামসুদ্দীন উলামায়ে কেরামের সংঘবদ্ধ একটি দল সাথে নিয়ে সুলতানের সাথে সেনাবাহিনীর সম্মুখভাগে অগ্রসর হন। উলামায়ে কেরামকে সাথে নিয়ে শায়খের যাত্রা করার বিষয়টি ইস্তানবুল বিজয়ে প্রাণান্তকর প্রয়াসে সেনাবাহিনীকে সর্বাধিক উজ্জীবিত করেছিল।

বিশেষত ইস্তানবুল অবরোধকালে উসমানীয় বাহিনীর উপর যে কঠিন ও হতাশাময় পরিস্থিতি আবর্তিত হয়েছিল, সে সময় উলামাদের উপস্থিতি সেনাবাহিনীতে প্রচণ্ড শক্তি যুগিয়েছিল।

অবরোধকালের কঠিন পরিস্থিতিতে কতিপয় মন্ত্রী ও সেনাবাহিনীর কমান্ডার ইস্তানবুল শহরের উপর থেকে অবরোধ তুলে বাহিনী ফিরিয়ে নেওয়ার পক্ষে জোর দাবী জানান। সেসময় সুলতানের কাছে প্রেরিত শায়েখের অত্যন্ত বলিষ্ঠ ও প্রেরণাদীপ্ত একটি পত্রের কল্যাণে সুলতান মুহাম্মাদ আল-ফাতিহ’র পক্ষে সম্ভব হয়েছিল তাদের চাপ অগ্রাহ্য করে সম্মুখ পানে এগিয়ে যাওয়া। ফলশ্রুতিতে খৃষ্টীয় ১৪৫৩ সালের ২৯ মে সকালে সুলতান আল-ফাতিহ বিজয়ী বেশে ইস্তানবুলে প্রবেশ করেন।

তরুণ সুলতানের মনে শৈশবে তাঁর শিক্ষা ও লালন-পালনের সময় ইস্তানবুল বিজয়ের যে স্বপ্ন শায়েখ বদ্ধমূল করে দিয়েছিলেন, এবং পরবর্তীতে শায়েখের যে পত্র সুলতান ও তাঁর সেনাবাহিনীর উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলেছিল, একারণে শায়েখ আক শামসুদ্দীনকে ইস্তানবুল শহরের আধ্যাত্মিক বিজয়ী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

অবরোধকালে মুসলিম বাহিনীতে ব্যাপক হতাশা ছড়িয়ে পড়ে:

ইস্তানবুল শহর অবরোধের সময়, বিশেষত খৃষ্টীয় ১৪৫৩ সালের ২০ এপ্রিল বাইজেন্টাইনদের সাহায্যে প্রেরিত ভ্যাটিকান-পোপের চারটি যুদ্ধজাহাজ উসমানীয় নৌবাহিনীর প্রতিরক্ষা ডিঙ্গিয়ে সরাসরি যুদ্ধে অংশ নিতে অবরুদ্ধ শহর ইস্তানবুলের নৌ-বন্দরে ভিড়ে। জাহাজগুলো জেটিনবার্নু উপসাগর দিয়ে অতর্কিত চলে আসে। শত্রুবাহিনীর এই সাহসী পদক্ষেপের কারণে উসমানীয় বাহিনীতে ব্যাপক হতাশা দেখা দেয়।

শত্রুপক্ষের শক্তিশালী চারটি যুদ্ধজাহাজ অনুপ্রবেশের ফলে সুলতান আল-ফাতিহের সৈন্যদল যে ঘোর নিরাশায় আক্রান্ত হয়, তা কতিপয় উলামায়ে কেরাম এবং যুদ্ধবাজ কমান্ডারদের উপরও প্রভাব ফেলে। ফলে তারা সুলতানের সাথে দেখা করেন। এবং নিজ সেনাদলের জানমাল রক্ষার্থে শহরের উপর থেকে এই নিরর্থক অবরোধ তুলে নেওয়ার দাবী জানান।

এমতাবস্থায় শায়েখ আক শামসুদ্দীন পরিস্থিতি বুঝে সেনাবাহিনীর অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। এবং অতিদ্রুত সুলতানের উদ্দেশ্যে তীব্র ভাষায় কঠোর অভিব্যক্তিপূর্ণ একটি পত্র লেখেন, যা ছিল ইস্তানবুল অবরোধ এবং পরবর্তীতে তা বিজয়ের মূল চালিকা শক্তি।

যারা অবরোধ তুলে নেওয়ার পক্ষে দাবী জানাচ্ছিল, উক্ত চিঠিতে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিতে সুলতানের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। এবং একপর্যায়ে তাদেরকে কাফের মুনাফেক পর্যন্ত আখ্যা দেওয়া হয়।

সুলতান মুহাম্মদ আল-ফাতিহকে লেখা শায়েখ আক শামসুদ্দীনের ঐতিহাসিক পত্র:

শায়েখ আক শামসুদ্দীনের ঐতিহাসিক পত্রটি সুলতান ও তাঁর সৈন্যদলের মনে গভীর ছাপ ফেলে। তাঁদের মনোবল চাঙ্গা হয়ে উঠে। এই পত্রের প্রভাবে সুলতান এবং তাঁর সেনা কমান্ডাররা অবরোধ বহাল রাখার অবিচল সিদ্ধান্ত নেন। এবং চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত নির্ধারিত লক্ষ্য থেকে পিছু না হটার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

পত্রটির উল্লেখযোগ্য সারাংশ হল,
“যুদ্ধজাহাজের অতর্কিত উপস্থিতি আমার হৃদয়কে গভীর হতাশক্রান্ত করেছে। শহরটি জয় করার একটি সুবর্ণ সুযোগ এসেছিল, কিন্তু এই ঘটনায় তা হাতছাড়া হতে যাচ্ছে। পরিস্থিতির গতিপথ এখন আমাদের বিরুদ্ধে। কাফেরশক্তির মনোবল বেড়ে গেছে। তারা আগের চে’ শক্তিশালী হয়েছে। আগত সৈন্যদের দ্বারা তাদের পরিখা-সুড়ঙ্গ পথগুলো ভরে গিয়েছে। নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য এটা অনেক সঙ্কট তৈরি হয়েছে। তন্মধ্যে সবচে’ জটিল সমস্যাটি হল নিজেদের সৈন্যবাহিনীর মধ্যে এই আওয়াজ ছড়িয়ে পড়েছে যে, সুলতানের দৃষ্টিভঙ্গি অসম্পূর্ণ। তাঁর সিদ্ধান্ত ভুল। এবং আমাদের দু‘আ কবুল হয়নি”।

শায়েখ লেখেন, “এখন দয়া ও সহানুভূতি দেখানোর কোন সুযোগ নেই। যাদের কারণে এই গুরুতর সঙ্কট তৈরি হয়েছে, অতিসত্বর তাদেরকে চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনুন। সেই সাথে যারা বিজয়ের পথে এগিয়ে যাওয়ার বিরোধিতা করেছে, তাদেরকে পদ থেকে অপসারণ করুন। যদি দ্রুত এই পদক্ষেপ না নেন, তাহলে শহরের দুর্গ এবং দেয়ালের উপর নতুন আক্রমণ শুরু হলে সেনাবাহিনীর মাঝে সেই দৃঢ় ও উদ্যমী মনোভাব বাকী থাকবে না”।

উল্লেখ্য যে, তারা সকলেই শক্তি ও দৃঢ়তার ভাষা বুঝে এবং পার্থিব জীবনের উন্নতি ও গণিমতের মাল অর্জনের আশায় লড়াই করে। তাদের মধ্যে খুব অল্প সংখ্যকই আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য নিজেদের জীবন ঝুঁকিতে ফেলে।

শায়েখ সুলতানের কাছে তলব করেন তিনি যেন বাহিনীর সামনে তাঁর প্রভাব কর্তৃত্ব প্রদর্শন করেন, এবং সর্বোচ্চ সামর্থ্য ও অবিচলতার সাথে কাজ এগিয়ে নিতে চৌকস পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। পাশাপাশি বাহিনীর নেতৃত্ব ঐ সকল লোকদের উপর ন্যস্ত করেন যারা তুলনামূলক কঠোর প্রকৃতির, প্রয়োজনের সময় দৃঢ় মানসিকতা কাজে লাগিয়ে বাহিনীর নেতৃত্বদানে সক্ষম। শায়েখ সুলতানকে সূরা তাওবাহ’র ৭৩নং আয়াতটি স্মরণ করিয়ে উৎসাহ দেন, “হে নবী! কাফের ও মুনাফিকদের বিরুদ্ধে জিহাদ করুন এবং তাদের প্রতি কঠোর হন। তাদের ঠিকানা জাহান্নাম, আর তা অতি নিকৃষ্ট ঠিকানা”।

শায়েখ এই বলে তাঁর পত্রটি শেষ করেন, “জেনে রাখুন আমরা আপনাকে ভালবাসি। আল্লাহ’র সাহায্যে আমরা অপদস্থ হব না, বরং বিজয়ী হয়ে বেরিয়ে আসব। প্রকৃত সত্য হচ্ছে, বান্দা শুধু ব্যবস্থা গ্রহণ করে, আল্লাহ তা‘আলা তাকদীর নির্ধারণ করেন এবং ফায়ালা করেন। আর বান্দার সম্ভাব্য সমস্ত প্রচেষ্টার পরই আল্লাহর পক্ষ থেকে চূড়ান্ত সফলতা আসে”। শায়েখ লেখেন, “আমি কুরআন তিলাওয়াত করে একটু শুয়েছ

শায়েখ লেখেন, “আমি কুরআন তিলাওয়াত করে একটু শুয়েছিলাম। আমার মন ছিল দুঃখে ভারাক্রান্ত। স্বপ্নে আমি এমন অনেক কল্যাণ এবং সুসংবাদ পেয়েছি যা আগে কখনো পাইনি”।

কে ছিলেন এই শায়েখ আক শামসুদ্দীন?

নাম মুহাম্মদ শামসুদ্দীন ইবনে হামজা, তিনি ‘শায়েখ আক শামসুদ্দীন’ নামে পরিচিত। ঐতিহাসিকদের মতে, তার বংশ ইসলামের প্রথম খলীফা হযরত আবু বকর সিদ্দীকের রাযি. এর সাথে সম্পর্কিত। তিনি ১৩৮৯ সনে দামেস্ক শহরে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবকাল থেকেই তিনি গভীর পাণ্ডিত্য অর্জনে আগ্রহ লালন করতেন। মাত্র সাত বছর বয়সে সম্পূর্ণ কুরআন মুখস্ত করেন। তিনি প্রথমে তুরস্কের আমাসিয়া প্রদেশ, এরপর আলেপ্পো এবং সর্বশেষ আঙ্কারায় অধ্যয়ন করেন। এবং খুব অল্প সময়ের মধ্যেই উসমানীয় যুগে ইসলামী সভ্যতার একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিতে পরিণত হন। শরিয়া ইলমের পাশাপাশি তিনি চিকিৎসাবিজ্ঞান, জ্যোতির্বিদ্যা, জীববিজ্ঞান এবং উদ্ভিদতত্ত্বে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেন।

যখন শায়েখের কাছে সুলতান দ্বিতীয় মুরাদ তাঁর পুত্র মুহাম্মদের শিক্ষা-দীক্ষা, ব্যক্তিত্ত্ব ও বুদ্ধি গঠনের দায়িত্ব অর্পণ করেন, তখন থেকে শায়েখের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়তে থাকে। শায়েখ তাঁকে (সুলতান মুহাম্মদকে) ইসলামী জ্ঞান তথা কুরআন, সুন্নাহ, ফিকহ এবং সেই সময়ের প্রসিদ্ধ ভাষাসমূহ – যেমন :- আরবী, ফারসী ও তুর্কী ভাষা – শিক্ষাদান করেন। সেই সাথে জ্যোতির্বিদ্যা, গণিত, ইতিহাস এবং যুদ্ধের রণকৌশলও শিক্ষা দেন।

সুলতান দ্বিতীয় মুরাদ তাঁর পুত্র মুহাম্মদকে প্রশাসন ও সরকারী ব্যবস্থা পরিচালনার প্রশিক্ষণস্বরূপ যখন মানিসা নগরীর প্রশাসকের দায়িত্ব অর্পণ করেন, তখন শায়েখ এই তরুণ যুবরাজের সাথে থেকে তাঁকে সঙ্গ দেন। এই সময়েই শায়েখ আক শামসুদ্দীন যুবরাজ মুহাম্মদের মনে ইস্তনাবুল বিজয়ের স্বপ্ন এঁকে দেন। শায়েখ আক শামসুদ্দীন তরুণ মুহাম্মদকে বারবার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ঐতিহাসিক হাদীসটি শুনিয়ে উজ্জীবিত করেন, “নিঃসন্দেহে কনস্টান্টিনোপল (বর্তমানে ইস্তানবুল) বিজিত হবে। এর আমীর হবে উত্তম আমীর, এবং সেই বাহিনী হবে উৎকৃষ্টতম সেনাবাহিনী”।

সুলতান মুহাম্মদ তাঁর পিতার মৃত্যুর পর উসমানী খেলাফতের শাসনভার গ্রহণ করেন। এবং শৈশবে শায়েখ আক শামসুদ্দীন তাঁর মনে যে স্বপ্ন গেঁথে দিয়েছিলেন, তা বাস্তবায়নে তাৎক্ষণিক প্রস্তুতি শুরু করেন। তিনি অবিলম্বে একটি শক্তিশালী ও দৃঢ় মনোবলসম্পন্ন সেনাবাহিনী গঠনে উদ্যোগী হন। এবং ইস্তানবুল বিজয়ে যাবতীয় পরিকল্পনা করতে থাকেন। একপর্যায়ে খৃষ্টীয় ১৪৫৩ সালের ২৯ মে সকালে সুলতান মুহাম্মদ আল-ফাতিহের হাতে ইস্তানবুল বিজয় হয়। এ সময় সুলতানের বয়স ছিল মাত্র একুশ বছর।

সূত্র : টিআরটি ওয়ার্ড

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img