রবিবার, নভেম্বর ২৮, ২০২১

আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠার খাতিরে নিজ সীমানা উন্মুক্ত করতে রাজি তুরস্ক : এরদোগান

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


তুরস্ক আর্মেনিয়ার জন্য নিজ সীমানা উন্মুক্ত করে দিতে রাজি, তবে ইয়েরেভানকে আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন তুর্কী প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান।

বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) আজারবাইজানের বাকুতে আজারী প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভের সাথে একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

এরদোগান বলেন, লক্ষাধিক আর্মেনিয় তুরস্কে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছে। আর্মেনিয়ার জনগণের সাথে তুরস্কের কোনো সমস্যা নেই, সমস্যা আর্মেনিয়ার প্রশাসনের সাথে।

তাছাড়া, সপ্তাহব্যাপী চলতে থাকা আজারী-আর্মেনিয় সংঘাত বন্ধে রাশিয়ার ভূমিকারও ভূয়সী প্রশংসা করেন এরদোগান।

সংবাদ সম্মেলনে, ফ্রান্সের সংসদে নাগোরনো কারাবাখকে আলাদা রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেওয়ার অপতৎপরতার সমালোচনা করে এরদোগান বলেন, স্বতন্ত্র নাগোরনো কারাবাখ প্রজাতন্ত্র তত্ত্বকে যেখানে খোদ আর্মেনিয় প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনয়ানই মেনে নেননি সেই বিষয় বাস্তবায়নে ফ্রান্স উঠেপড়ে লেগেছে! মূলত, ফ্রেঞ্চ প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রন এখনো রাজনীতিই শিখেনি।

আগামী ৩ থেকে ৫ বছরের মধ্যে আজারবাইজানের প্রশাসন কারাবাখ অঞ্চলে উন্নয়ন ও অগ্রগতির নতুন ধারা তৈরি করতে পারবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অপরদিকে আজারী প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ তার বক্তব্যে আর্মেনিয়ার সাথে সংঘাত চলাকালীন সহায়তা করার জন্য তুরস্কের প্রতি ধন্যবাদ ও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

তিনি বলেন, কারাবাখ বিজয়ে তুর্কী বায়রাক্তার ড্রোন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। তাছাড়া, পুরো বিশ্বে উন্নয়ন, সৎ সাহস, ও সার্বভৌমের এক অনন্য দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেছে তুরস্ক।

সর্বশেষ ইলহাম আলিয়েভ বলেন,আর্মেনিয়ায় আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় নতুনভাবে সহযোগিতার হাত প্রসারিত করে ইয়েরেভানের সাথে আমরা কাজ করতে প্রস্তুত।

উল্লেখ্য, আজারবাইজান এবং আর্মেনিয়া সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন সাম্রাজ্য থেকে পৃথক হয়ে যাওয়ার পর ১৯৯১ সনে আর্মেনিয়ার সেনারা আজারবাইজানের ভূখণ্ড হিসেবে পরিচিত নাগোরনো কারাবাখকে অবৈধ ভাবে নিজেদের দখলে নিলে দেশ দুটির মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়।

সর্বশেষ, গত সেপ্টেম্বরে আবার নতুন করে উত্তেজনা দেখা দিলে তা সংঘাতে রূপ নেয়। সেই সংঘাতে আজারী সেনারা আর্মেনিয়ার অবৈধ দখল থেকে বেশ কয়েকটি শহর এবং ৩০০ টি জনবসতি ও গ্রাম পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

পরবর্তীতে, রাশিয়ার মধ্যস্থতায় দেশ দুটি রাশিয়ান ব্রোকার্ড চুক্তি সম্পাদন করলে গত ১০ নভেম্বর যুদ্ধ বিরতি সম্পাদিত হয়। এটিকে আজারবাইজানের বিজয় ও আর্মেনিয়ার পরাজয় হিসেবে গণ্য করছে সবাই।

সূত্র: ইয়েনি শাফাক

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img