Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার | সম্পাদক ও প্রকাশক : ইনসাফ


আলহামদু লিল্লাহ। ছুম্মা আলহামদু লিল্লাহ। মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে বাংলাদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ ষষ্ঠবর্ষ অর্থাৎ অর্ধযুগ পূর্ণ করে সপ্তম বর্ষে পদার্পণ করেছে।

পাঠকদের ভালোবাসা আর সহযোগিতায় ইনসাফের আজ এতদূর আসা। দীর্ঘ এ পথচলাতে পাশে থাকায় ইনসাফ পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাদের জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ। আপনাদের ভালোবাসা এবং আস্থার কারণেই ইনসাফ আজ ‘আস্থার প্রতীক’ হয়ে উঠেছে।

প্রিয় পাঠক, গত ৫ মে আপনাদের প্রিয় ইনসাফ ষষ্ঠ বর্ষ পূর্ণ করে সপ্তম বর্ষে পদার্পণ করেছে। অনিবার্য কারণে শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন আমরা ৫ মে’র পরিবর্তে মে মাসের যেকোনো একটি তারিখে করে থাকি। এবারও বড় আয়োজনে অর্ধযুগ পূর্তি অনুষ্ঠানের ইচ্ছে ও পরিকল্পনা ছিলো। কিন্তু দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে তা আর সম্ভব হয়নি। তাই ছোট পরিসরে এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন অনলাইনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শত শত বছর ধরে স্বীয় অধিকারের প্রত্যাশায় লড়ে যাচ্ছে মুক্তিকামী জনতা। যে ধারা অব্যাহত ছিলো ১৭৫৭ থেকে ১৯৪৭ হয়ে ১৯৭১-এ। কোটি হৃদয়ের সেই আকাঙ্ক্ষাকে পূর্ণ করার চূড়ান্ত সংকল্প এবং ২০১৩ সালের ৫ মে’র চেতনাকে ধারণ করে তার ঠিক এক বছর পর ২০১৪ সালের ৫ মে ‘ইনসাফ’ যাত্রা শুরু করে।

২০১৩ সালের ৫ মে ও তার পরবর্তী ঘটনা প্রবাহে দেশের ইসলামপন্থী দেশপ্রেমিক জনতার মধ্যে নতুন বোধোদয়ের সৃষ্টি হয়। সেই বোধোদয়ের ফসলই আজকের ইনসাফ।

২০১৪ সালে ইনসাফ যখন গণমাধ্যম জগতে আত্মপ্রকাশ করে; তখন কার্যত এ দেশে হলুদ সাংবাদিকতার রাজত্ব চলছিলো। শাহবাগে কথিত জাগরণের প্রতিক্রিয়ায় শাপলা চত্বরে ইসলাম ও দেশপ্রেমী জনতার উত্থান এবং পরবর্তীতে তাদের উৎখাতে সাঁড়াশি অভিযানের ‘সাফল্য’ দেশের ইসলাম বিরোধী চক্রকে অভাবনীয় শক্তিশালী করে তুলে।

ইসলাম ও সংশ্লিষ্ট বিষয়কে কটূক্তি বা হেয় প্রতিপন্ন করাকে স্বাভাবিক বিষয় হিসেবে নেয়া হতো গণমাধ্যমগুলোতেও। নামে গণমাধ্যম হলেও কার্যত গণবিরোধীমাধ্যম এর মতোই ছিলো তাদের কার্যক্রম।

আর এসব প্রতিকূলতাই ইনসাফের জন্ম ও বেড়ে উঠার মূল প্রেরণা ছিলো বললে ভুল হবেনা।

প্রতিকূলতাকে যে প্রতিষ্ঠান প্রেরণা হিসেবে নেয়, স্বভাবতই সেই প্রতিষ্ঠানের পথ চলা সহজ হবার নয়। সমস্যা বহুমুখী হলেও সমাধানের রাস্তা ছিলো একেবারেই অজানা। ইনসাফ যাদের নিয়ে কাজ শুরু করে, তারা ইতিপূর্বে এ জগতকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করেননি। এছাড়াও গণমাধ্যম জগতের নানা বিষয়ে ছিলো তাদের প্রচণ্ড আপত্তি। তাই সহযোগিতা পাওয়া তো দূরের কথা, সহমর্মিতা আশা করাও বেশ কঠিন ছিলো।

এছাড়াও ইনসাফের পক্ষে দেশ ও বিশ্বে চলমান গণমাধ্যমের ধারাগুলোর আদর্শের মধ্যে কোনোটাকেই পূর্ণ অনুসরণ সম্ভব হচ্ছিলো না। বরং ইনসাফকে বেশির ভাগ সময় পথ চলতে হতো তথাকথিত মূল ধারার গণমাধ্যমের পূর্ণ বিপরীত অবস্থানে।

এজন্য ইনসাফকে কঠিন প্রতিকূলতায় যেমন কদম বাড়াতে হয়েছে; সাথে ইনসাফের মাধ্যমেই তৈরী হয়েছে নতুন এক আদর্শিক ধারার। যাকে বলা যায় গণমানুষের ধারা, মাজলুমের পক্ষের ধারা, ইনসাফ, সাম্য ও মানবিকতার ধারা। এই ধারায় হলুদ সাংবাদিকতার জোরে নির্দোষকে সন্ত্রাসী বানিয়ে দেওয়া হয়না। এ ধারায় সত্যকে সত্য হিসেবেই উপস্থাপন করা হয়, মিথ্যে এবং অন্যায়কে জনতার সামনে তুলে ধরা হয়। এধারায় সেক্যুলারিজমের নামে সংখ্যাগরিষ্ঠের ধর্মবিশ্বাসের সাথে তিরস্কার করা যেমন হয়না, তেমনি সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় আবেগ-অনুভূতিকেও পূর্ণ সম্মানের সাথে দেখা হয়। এধারায় কোনও সংঘ বা গোষ্ঠী কাওকে সন্ত্রাসবাদী ঘোষণা করে দিলেই তাকে মানদন্ড হিসেবে গ্রহণ করা হয়না, আবার ধর্মের নামে চালিয়ে দেওয়া অন্যায়কেও সমর্থন করেনা। এই ধারা ইনসাফের কথা বলে। ন্যায়ের কথা বলে। মজলুমের পক্ষে বলে।

ইনসাফ দেশের গণমাধ্যম জগতে দুইভাবে প্রভাব বিস্তার করতে পেরেছে। আলহামদু লিল্লাহ। প্রথম হচ্ছে ইনসাফ যে ধারার, অর্থাৎ ইসলামী ধারার গণমাধ্যমের একটি রাস্তা খুলে দিতে পেরেছে। ফলে এই ধারার নতুন নতুন গণমাধ্যম বাজারে এসেছে।একটি বাড়ি যত বড়ই হোক না কেন, কেউ গ্রাম বলবে না। তেমনি একটি ধারার একক গণমাধ্যম যতই সমৃদ্ধ হোক না কেন, তাকে ‘ধারা’ হিসেবে গ্রহণ করা হবেনা। তাই নতুন নতুন ইসলামী ধারার গণমাধ্যমের জন্ম হওয়ায় এই ধারাটিকে ‘ধারা’ হিসেবে বিবেচনা করা শুরু হয়।

দ্বিতীয় প্রভাবের বিষয়টি একটু ভিন্ন। এটি আদর্শিক প্রভাব। ইনসাফের আত্মপ্রকাশকালীন দেশের গণমাধ্যমের চরিত্র কেমন ছিলো, তা উপরে উল্লেখ করা হয়েছে। ইনসাফের প্রধানতম কাজ ছিলো দেশীয় গণমাধ্যমে চূড়ান্ত অবহেলিত ইসলাম ও মুসলমানদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে তুলে ধরা। আলহামদু লিল্লাহ। ইনসাফ আদর্শিক জায়গায় অবিচল থেকে সামর্থ্যের সবটুকু শক্তি দিয়ে চেষ্টা করে গেছে।

ইনসাফের কাজের এই ধরনটা ইসলামী ঘরানার গণমাধ্যমগুলো অনুসরণ করা ছিলো খুবই স্বাভাবিক বিষয়। তবে বড় সাফল্যের বিষয় হলো, এই প্রভাব শুধু ইসলামী ধারার গণমাধ্যমেই সীমাবদ্ধ থাকেনি, এটি প্রভাব বিস্তার করতে পেরেছে মূল ধারার গণমাধ্যমেও। যেখানে ইসলামী ধারার কোনও সংবাদ মূল ধারার গণমাধ্যমে আনতে এক সময় হাজার চেষ্টাতেও ব্যর্থ হতো, সেখানে ইসলামী ধারার গণমাধ্যমগুলোর চেয়েও এখন মূল ধারার গণমাধ্যমগুলো ইসলামী ধারার আইটেমগুলোকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে! এটাই ইনসাফের সবচেয়ে বড় সাফল্য। আলহামদু লিল্লাহ।

তবে একথা ঠিক যে, তারা ইসলামী ধারার সেটুকুকেই গুরুত্ব দেয়, যেটুকু তাদের পোষায়। যদিও তাদের অনেক বেশি আদর্শিক বলি দিতে হয়।

ইনসাফ ও পরবর্তী ইসলামী ঘরানার গণমাধ্যমগুলোর বর্তমান অবস্থান ও মূল ধারার গণমাধ্যমে এর প্রভাব দেখে আমরা আশা করতে পারি যে, ইন শা আল্লাহ খুব বেশি সময় লাগবেনা, অচিরেই দেশের গণমাধ্যম জগতে আমূল পরিবর্তন আসবে, এবং গণমাধ্যম গণমানুষের মাধ্যমে পরিণত হবে।

আমাদের এতো এতো সম্ভাবনার পরেও সংকটও কিন্তু কম নয়। সবচেয়ে বড় সংকটের জায়গা হচ্ছে পৃষ্ঠপোষকতা না থাকা। এতে আমরা যা করতে চাই, সামর্থ না থাকায় তার খুব সামান্যই করতে পারি। সামর্থের জন্য দরকার পৃষ্ঠপোষকতা, যা একেবারে নেই বললেও ভুল হবেনা। সঠিক পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে ইসলামী ধারার অনেক গণমাধ্যমকে ইতিমধ্যেই বিতর্কিত পথে পা

বাড়াতে হয়েছে। পৃষ্ঠপোষকতা পেলে ইনসাফসহ ইসলামী ধারার গণমাধ্যমগুলো অনেকদূর যেতে পারবে, ইন শা আল্লাহ।

ইসলামী ঘরানার একটি গণমাধ্যম অর্ধযুগ অতিক্রম করা অনেক বড় বিষয়। মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতেই কেবল তা সম্ভব হয়েছে। তা না হলে আমাদের কোনও যোগ্যতাই ছিলো না এতো প্রতিকূলতার মধ্যে একটি ২৪ ঘন্টার গণমাধ্যমকে টিকিয়ে এতদূর নিয়ে আসার।

আজকের এই আনন্দের দিনে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমার সকল সহকর্মী ও সহযোগীদের। যাদের সহযোগিতা না পেলে ইনসাফকে এতদূর নিয়ে আসা সম্ভব হতো না। যারা এখনো কর্মরত আছেন এবং এই দীর্ঘ পথে অতীতে আমাদের সাথে যারা ছিলেন, তাদেরও স্মরণ করছি।

প্রিয় পাঠক। আপনাদের কাছেও আমরা কৃতজ্ঞ, আপনাদের জন্যই আমাদের কাজ করে যাওয়া। আপনাদের দুআ ও ভালোবাসায় আমরা অর্ধযুগ অতিক্রম করে সপ্তম বর্ষে পা দিয়েছি। আমরা আশা করছি অতীতের মতো আপনাদের ভালোবাসা ও সহযোগিতা পাবো। আমাদের জন্য দুআ করবেন, ইনসাফের জন্য দুআ করবেন। আল্লাহ হাফিজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *