Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

হতভাগা কবি রুমি

মুসাব ইমাদ আল-মোবায়েদ | ফিলিস্তিনি ব্লগার


অনুবাদ : নাহিয়ান হাসান


প্রথমেই আমাদের স্বীকার করতে হবে যে কোনো ব্যক্তিই প্রাকৃতিকভাবে অবচেতন জড় মাধ্যম নন; বরং তিনি এমন একজন মানুষ যিনি অপরকে প্রভাবিত করেন এবং নিজেও প্রভাবিত হন। আমরা বলতে পারি “মনোভাব এবং অঙ্গভঙ্গির দৃষ্টিকোণ থেকে যে চূড়ান্ত ফলাফল বিবেচনা করা হয়; তারই গঠন সমানতালে একীভূত হওয়ায় কিছুসংখ্যক ক্রিয়াশীল কারণের সারনির্যাস হল এই মানুষ”। সেই ক্রিয়াশীল কারণ সমূহের মধ্যে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল, ”মানসিক ও জীবনযাপনের অবস্থা”। জীবনযাত্রার চারপাশে স্থিতিশীলতার পরিধি ও অন্যান্য কারণগুলোও এক্ষেত্রে সমানভাবে প্রযোজ্য।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি এমন একজন ফুটবল খেলোয়াড় খুঁজে পেলেন যিনি “অর্থনৈতিক ও মৌলিক চাহিদাগুলোর স্থিতিশীলতা” এবং “ভাল মানের নৈতিক রসিকতা” উপভোগ করেন। এখন এগুলোর প্রতিফলন আপনি দেখতে পাবেন খেলার মাঠে তার ভালো পার্ফরম্যান্সে।

ঠিক তেমনি, লেখক যখন তার সাহিত্য মননে বিচরণ করেন, তখন আপনি দেখবেন, “তিনি অত্যন্ত চমৎকারভাবে সাহিত্যের আল্পনায় আপনাকে রাঙিয়ে দিচ্ছেন”। কিন্তু তিনি যদি তার সাহিত্য মননে বিচরণে স্থিতিশীলতা না পান”(বিরক্ত হয়ে যান), একই বিষয়ের সাহিত্য আল্পনায় আপনি তখন খুঁজে পাবেন বিস্তর ফারাক!

“যে কেউই ‘এই ভূমিকা’ এবং ‘ইবনে রুমির কবিতার মুন্সিয়ানায়’ যোগসূত্র কী তা জিজ্ঞেস করতে পারেন।”

-এর উত্তর পরবর্তী পঙক্তিতে রয়েছে যা ‘বিখ্যাত কবি ইবনে রুমির’ “জীবন ও চরিত্রের” একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক থেকে অজানার পর্দাকে সরিয়ে দিয়ে প্রশ্নবাণকে স্তিমিত করে দিবে। আর তা আমাদেরকে তার ব্যক্তিত্ব ও জীবনের অবস্থা সম্পর্কে বুঝতে সাহায্য করবে এবং এটাও বুঝতে সাহায্য করবে যে ‘ইবনে রুমি’ কে? কীভাবেই বা তার কবিতা তাকে মৃত্যু সুধা পান করিয়েছে?

আব্বাসীয় খলিফাদের শাসনামলে ‘ইবনে রুমি’ দীর্ঘ আট যুগ বেঁচে ছিলেন। খলিফাদের শাসনামলে দীর্ঘ সময়কাল অতিবাহিত করন এবং কাব্যরচনায় তার অসাধারণ পাণ্ডিত্য সুবিদিত হওয়া সত্ত্বেও প্রতিবার শাসক কর্তৃক ব্রাত্যই রয়ে গিয়েছিলেন তিনি।

ইবনে রুমিকে আব্বাসীয় অভিজাত কবিদের মধ্যে অন্যতম সেরা অভিজাত কবি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। তিনি জন্মগতভাবে বাগদাদী, তবে জাতিগত দিক থেকে রুমি বংশদ্ভূত এবং তার মা হলেন একজন ফারসি।

কবি জীবনে অনেক বিয়োগান্ত ও প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েছিলেন। যার ফলে তার ব্যক্তিসত্তা হতাশাগ্রস্থ ও বিভ্রান্ত প্রবণ হয়ে পড়ে। সেই সমস্ত বিয়োগান্তের অন্যতম বিয়োগ বেদনা হল, তার বাবা-মা ও বড় ভাইয়ের মৃত্যু। এছাড়াও তার বিবাহিত জীবনের মধ্যগগনে প্রিয়তমা স্ত্রী ও আদুরে তিন সন্তানের জীবনপ্রদীপ চিরতরে নিভে যায়। একারণেই প্রয়াত মিশরীয় সমালোচক ‘তোহা হুসাইন’ বলেন, “তিনি (ইবনে রুমি) তার ব্যক্তিজীবনে খুবই দুর্ভাগা ছিলেন”।

লোকজন তাকে পছন্দ করতো না, আর তিনিও তাদের প্রতি ছিলেন ক্রুদ্ধ। শুধু কি তাই? হিংসাত্মকও ছিলেন বটে। তার বিষয়টি শুধুমাত্র দুর্ভাগ্যে সীমিত থাকেনি বরং বদস্বভাবের গণ্ডিতে পৌঁছে গিয়েছিল।ফলে তিনি ছিলেন রুষ্ট, অস্থির, বদ মেজাজী ও ভীতিগ্রস্ত এবং প্রচন্ড স্পর্শকাতর। আর বাড়াবাড়ির কারণে প্রায়শই লোকজন তার ব্যাপারে নালিশ করতো। এসবকিছুর ফলশ্রুতিতে বিশ্ব দরবারে তিনি এমনকিছু কবিতা উপহার দিয়েছিলেন যা পাঠককে শোকাহত ও অশ্রুসিক্ত করেছে।

তার কবিতাগুলো ছিল তার কাছে এক উন্মুক্ত বিস্তৃত প্রান্তরের ন্যায়, যেখানে তিনি মানসিক চাপ ও দুর্দশা থেকে মুক্ত হতেন।

‘কাব্যিক কথামালা’ হোক বা ‘ব্যঙ্গাত্মক ছড়া’- তার সমস্ত কবিতায় তিনি রাজকীয় সিংহাসন অর্জন করার পরেও কাব্যের অন্যান্য ধারাগুলো যেমন, ‘প্রকৃতি প্রশংসা’, ‘বিলাপ’ এবং ‘গর্বের বর্ণনা’ দেওয়ার মত ভাবধারা গুলোতেও নজিরবিহীন নতুন ধারা আবিষ্কার করেছিলেন।

যেখানে প্রাণবন্ত হওয়ার পাশাপাশি নিষ্পাপ অনুভূতিগুলো কাব্যিক ঘরের ত্রিসীমানায় এমনভাবে প্রবেশ করে, যা বাস্তব বিলাসী কৃত্তিমতা বিবর্জিত কাব্যিক ছন্দ ও ছড়াতেও সমান গুরুত্ব বজায় রাখে। যার কারণে তার কবিতাগুলো অন্যান্যদের কবিতা থেকে একেবারেই আলাদা।

এটি একটি পুরনো জানা বিষয় যে, কবি ও রাজাদের মধ্যকার সম্পর্ক খুবই ব্যতিক্রমধর্মী থাকে। কারণ কবিগণ রাজাদের জন্য মিডিয়া ফ্রন্ট ছিলেন। তখন রাজারাই কবিদের জন্য অর্থ, নিরাপত্তা এবং পদমর্যাদা দানের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। ইবনে রুমি সেই আব্বাসীয় খলিফাদের শাসনামলে আট যুগ বেঁচে ছিলেন, যারা ছিলেন কবিদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক। তাদের শাসনামলে দীর্ঘকাল অতিবাহিত করন ও কাব্য রচনায় তার পাণ্ডিত্য সুবিদিত হওয়া সত্ত্বেও প্রতিবার শাসক কর্তৃক একপ্রকার ব্রাত্যই রয়ে গিয়েছিলেন। এমনকি তার কোনো কবিতাই গ্রহণ করা হয়নি, ফলে শাসকদের রাশি রাশি উপঢৌকনের ছিটেফোঁটাও তার হাতে উঠেনি।

তাই চারপাশের প্রত্যেকের বিদ্রুপ করার ক্ষেত্রে ইবনে রুমি তার কবিতাকে ব্যবহার করছিলেন।

ইতিহাসবিদ ‘মারজাবান’ তার সম্পর্কে বলেছিলেন,”আমি জানি না যে তিনি কখনো উচ্চতর বা অধীনস্ত কারও প্রশংসা করেছিলেন কিনা, এবং এতো বিদ্রুপ সহ্য করার পরেও কেউ যদি তার কাছে ফিরে আসতো, তবুও তিনি তাকে বিদ্রুপ করতে ছাড়তেন না। একারণেই তার কাব্যিক কথামালার কার্যকারিতা হ্রাস পাচ্ছিল আর উচ্চপদস্থরা এটাকেই সুবর্ণ সুযোগ হিসাবে গ্রহণ করেছিলেন।”

খলিফার অনেক মন্ত্রী ও প্রতাপশালী শাসক ইবনে রুমি থেকে নিষ্কৃতি পেতে চাচ্ছিলেন, যাতে অনবরত তাদের পিছনে ছুটতে থাকা রুমির তীক্ষ্ণ ফলা থেকে তারা পরিত্রাণ পেতে পারেন। হামলাপ্রবণ মন্ত্রীদের মধ্যে ‘আল কাসেম ইবনে ওয়াহাবই’ একমাত্র মন্ত্রী যিনি ইবনে রুমিকে বিষ দিয়ে হত্যা করার পরিকল্পনা করেছিলেন এই ভয়ে যে, নতুবা তার (ইবনে রুমির) বিদ্রুপাত্মক তীর তাকে ক্ষতবিক্ষত করে দিবে।

এই বিদ্রোপ থেকে নিষ্কৃতির জন্য ‘ইবনুল ফিরাশ’ নামী কোনো এক আগন্তুকের মাধ্যমে ইবনে রুমির সামনে এগিয়ে দেওয়া মিঠা খাদ্যে বিষ প্রয়োগ করা হয়। অতপর ইবনে রুমি অজান্তেই সেই বিষ গ্রহণ করে গ্রহণ করলে তার সারা দেহে ছড়িয়ে এবং বিষক্রিয়া তার স্বভাবগত বেদনা দিতে আরম্ভ করে।

তখন ইবনে রুমি সেই মজলিস ছেড়ে চলে যেতে উদ্যত হলে মন্ত্রী তাকে কটাক্ষ করে প্রশ্নবাণ ছুড়ে দিয়ে বলেন, “কোথায় যাওয়া হচ্ছে?” প্রতিত্তোরে তিনি বললেন, “যেথায় তুমি পাঠাচ্ছো আমায়।” তখন মন্ত্রী বিদ্রুপের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দিয়ে বলে বসলেন, “আমার পিতামাতাকে সালাম জানিয়ো।” তৎক্ষনাৎ ইবনে রুমি তার সদুত্তর দিতে ছাড়লেন না! তিনি বললেন, “আমি জাহান্নামের পথিক নই,”। তার পরপরই তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পরলেন, যাতে সকলের কাছে এটা স্পষ্ট হয়ে যায়, “অন্যের উপর প্রভাব বিস্তারের ক্ষেত্রে তার মুখ কখনোই ক্লান্তি বোধ করে না। এমনকি জীবনের শেষ নিঃশ্বাসের সময়েও নয়!”

তিনি আমাদেরকে এতো বিশাল সাহিত্য ভাণ্ডারের উত্তরাধিকার করে গিয়েছেন যে তার তুলনা হয় না! তার এই বিশাল সাহিত্য ভাণ্ডারই তাকে পুরো ইতিহাসে কবিতার বিশালাকার দৈত্যতে রুপান্তর করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *