Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

মিডিয়া যা খেতে দিচ্ছে, আমরা তাই খেয়ে নিচ্ছি!

মুফতি এনায়েতুল্লাহ | বিভাগীয় প্রধান, বার্তা টোয়েন্টিফোর ডটকম


গণমাধ্যমকে বলা হয় রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। তথ্য-প্রযুক্তির সহজলভ্যতার এই সময়ে এসে সাংবাদিকতায় একটি নীরব বিপ্লব ঘটে গেছে। ফলে বলা চলে, এখন এই স্তম্ভ আরও শক্তপোক্ত। ছাপা পত্রিকার পাশাপাশি, টেলিভিশনগুলো দিনরাত সচিত্র খবর প্রচার করছে, অনলাইনগুলো মুহূর্তে মুহূর্তে খবরের আপডেট দিচ্ছে। কিন্তু এই খবর জনগণের উপকার করছে না অপকার- সে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।
কারণ সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতা বড় জিনিস। সমালোচকদের মতে, সেটা নাকি এই মুহূর্তে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে অনেকাংশেই অনুপস্থিত। এটা অবশ্য অনেক বড় বিতর্কের বিষয়। তার চেয়ে বরং সংবাদ মাধ্যমের চরিত্র, ধ্যান-ধারণা নিয়ে কিছুটা আলোচনা করা যেতে পারে।

বাংলাদেশের কথাই ধরুন। আমাদের দেশের প্রতিষ্ঠিত মিডিয়া হাউজগুলো অনেকটাই কর্পোরেট। তারা সংবাদ প্রচারের প্রতিযোগিতার নামে দায়িত্বশীল সংবাদ প্রচার করছে, নাকি মানুষের মধ্যে ভীতির সৃষ্টি করছে- সেটা বুঝা খুব কঠিন কিছু নয়। আগেভাগে খবর প্রচারের প্রতিযোগিতায় আমরা প্রায়ই তাদের বেহাল দশা দেখতে পাই। অনেকে সময় অবান্তর, অসত্য ও গুজবও তারা ব্রেকিংয়ের নামে প্রচার করে থাকে। জীবিত মানুষকে মৃত বানিয়ে খবর প্রচারের মতো অর্বাচীন কাজও তাদের থেকে প্রকাশ পেয়েছে। অনেককে আবার খবর প্রত্যাহার করেও নিতে দেখা যায়।

একটি উদাহরণ দেই। ‘আলু’ একটি সহজলভ্য সবজি। এই আলু দিয়ে কোনো গৃহিনী ভর্তা বানান, কেউ ভাজি, ফাস্টফুডের দোকানে চটপটি, চাইনিজে ফ্রেঞ্চফ্রাই, কোম্পানীগুলো চিপস থেকে শুরু করে অনেকে এর গয়রহ ব্যবহার করেন। আলু আসলে কোন কাজে ব্যবহার হচ্ছে সে দায় আলুর নয়, দায় ব্যবহারকারীর। আমাদের দেশের মিডিয়া হাউজগুলোর দশা অনেকটা এমন। খবর প্রচার করে তারা জনগণকে সতর্ক করছে না ভীতি ছড়াচ্ছে, জনমত গড়ছে না কারো পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছে, দেশের উপকার করছে না মালিকপক্ষের স্বার্থ উদ্ধার করছে- সেটা বুঝার জন্য অনেক বেশি জ্ঞান থাকার দরকার নেই।

অথচ ডিজিটাল যুগে আলোড়ন তৈরি করার মতো অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার সুযোগ তৈরি হয়েছিল। কিন্তু সেটার দেখা নেই। কোনো এক অজানা কারণে মিডিয়ার অভূতপূর্ব ক্ষমতা যেনো পানসে হয়ে গেছে। সংবাদ প্রকাশের কৌশলে কোনো নতুনত্ব নেই। চমকে দেওয়ার মতো অনুষ্ঠান নেই। পড়ে তৃপ্ত হওয়ার মতো রিপোর্ট নেই। খবরের পেছনের খবর প্রকাশ হয় না। খবরে নেই কোনো মানবিকতার ছোঁয়া, রহস্য, রোমাঞ্চ। সব চলছে গৎ বাঁধা।
মানছি, মিডিয়া হাউসগুলো ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। অতএব এটা মুনাফা অর্জনের ওপর নির্ভরশীল। মিডিয়ায় যিনি টাকা ঢেলেছেন, তিনি তার বিনিয়োগ যেমন তুলে আনতে চাইবেন, তেমনি বিনিয়োগ থেকে মুনাফাও কামাতে চাইবেন। যদি সরাসরি মিডিয়া থেকে তার মুনাফা না আসে তাহলে মিডিয়া তাকে যে বিশেষ ক্ষমতা দেয় তা ব্যবহার করে তার অন্য ব্যবসা থেকে তিনি ফায়দা আদায় করবেন, এটাই স্বাভাবিক। আধুনিক বিপনন কৌশলে বাজার ব্যবস্থার ওপর নির্ভরশীলতার এটা অন্যতম দিক।

অতএব খবরে একটু তেল, দলবাজি, আদর্শের প্রচার না থাকলে চলে না। আর হ্যাঁ, বিজ্ঞাপনের জন্য মিডিয়াকে বড় দেশী কোম্পানি বা বহুজাতিক কোম্পানির ওপর নির্ভর করতে হয়। সরকারের আনুকূল্য পেতে তদবির করতে হয়। এই নির্ভরশীলতা ছাড়া টেলিভিশন, পত্রিকা, রেডিও স্টেশন ও অনলাইন চালানো অসম্ভব। কোনো মিডিয়া টিকে থাকতে চাইলে টাকা আয়ের উৎসগুলোর বিরুদ্ধে তারা দাঁড়াতে পারে না।
কিন্তু গণমাধ্যম যখন নিজেদের ওপর নিজেদের সেন্সরশিপ প্রয়োগ করে গোলটা বাঁধে তখনই। অর্থাৎ কোন খবর ছাপা হবে, কোন লেখককে জায়গা দেওয়া হবে কাকে হবে না, কী ধরণের সম্পাদকীয় নীতি গ্রহণ করা হবে ইত্যাদির মধ্য দিয়ে ক্ষমতাসীনদের জন্য বিপজ্জনক খবর, বিশ্লেষণ, উপ সম্পাদকীয় ইত্যাদি পরিহার করা হয়। নিজেদের স্বার্থের খবরকে প্রধান্য দেওয়া হয় তখন আর সেটা রাষ্ট্রের স্তম্ভ বলে স্বীকৃতি পায় না। তখন মিডিয়া পরিণত হয় স্বার্থের অস্ত্রে। যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

কিন্তু হালের সাংবাদিকতায় আমরা অহরহ সেই চিত্রই দেখতে পাচ্ছি। এটা শুধু আমাদের দেশের ক্ষেত্রে নয়, সব দেশেই। আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে জুথিড মিলারের কথা? না থাকলে একটু মনে করিয়ে দেই।
জুথিড মিলার নিউইয়র্ক টাইমসের সাংবাদিক ছিলেন। তিনি বিস্তারিত প্রমাণসহ (!) প্রকাশ করে দিয়েছিলেন ইরাকের প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের অস্ত্রভাণ্ডার গড়ে তোলার কথা। সেকি ফিরিস্তি! যেন তিনি নিজ চোখে দেখে এসে রিপোর্ট করেছেন। এর বিনিময়ে পুলিৎজারসহ অনেক কিছু তার কপালে জুটেছিল। পরে মার্কিন বাহিনী বাগদাদে উপস্থিত হয়ে সাদ্দামের গোপন সেই অস্ত্রভাণ্ডারের খোঁজে চারদিক লণ্ডভণ্ড করেও সে রকম কোনো কিছুর সন্ধান পায়নি। সেই ফাঁকে জুথিড হাওয়া। পরে অবশ্য তার স্বদেশি আরেক অনুসন্ধানী সাংবাদিক সেইমুর হার্শ পুরো ঘটনার পেছনে সিআইএর খেলার ছক উন্মোচন করেছিলেন, ততদিনে জল অনেকটা গড়িয়ে গেছে। ইরাক রীতিমতো ধ্বংসস্তুপে পরিণত। সেই ইরাক আজও দাঁড়াতে পারেনি। মৃত্যু উপত্যকায় পরিণত হয়েছে গোটা ইরাক। কিন্তু ইরাক হামলার যৌক্তিকতার বিষয়ে জুথিডে দেওয়া তথ্যমতে পশ্চিমা গণমাধ্যমে যেভাবে ভরসা করেছিল, ঠিক সেভাবে ভরসা না করলেও বিশাল জনগোষ্ঠী এখনও গণমাধ্যমকে সেভাবে বিশ্বাস করে। আর বারবার ধোঁকা খায়।

সাম্প্রতিক সময়ের আরেকটি প্রসঙ্গ মনে করিয়ে দেই। উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন প্রায় ২০ দিনের মতো লোকচক্ষুর আড়ালে ছিলেন। কিন্তু এই কুড়ি দিন ধরে পশ্চিমের সংবাদ মাধ্যমের সংবাদ বিশ্লেষকেরা বিশ্লেষণে মেতে ছিলেন দেশটির ভবিষ্যৎ নিয়ে। কেউ বলেছেন উত্তর কোরিয়ার স্বৈরাচারী শাসনের জাঁতাকল থেকে মুক্ত হওয়া এটাই সুবর্ণ সুযোগ। কেউ বলছেন কিম পরিবারের যে কেউ ক্ষমতার হাল ধরুন না কেন, তার জন্য নতুন পরিস্থিতিতে দেশ শাসন করা সহজ হবে না। কতিপয় বিশ্লেষক আরও এক কাঠি এগিয়ে গিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্বের আভাস খুঁজেছেন। বলেছেন চাচা-ভাতিজির লড়াইয়ে কে জেতে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

অর্থাৎ পশ্চিমের সাংবাদিকরা ধরেই নিয়েছিলেন কিম জং-উন মারা গেছেন কিংবা মারা না গেলেও এতটাই গুরুতর অসুস্থ যে, তার পক্ষে দেশ শাসন করা তো দূরের কথা, দুই পায়ে ভর করে দাঁড়ানোরই সুযোগ নেই। কিন্তু তিনি যখন সুস্থ অবস্থায় ফিরে এলেন, সংবাদকর্মীরা তখন হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন। তবে সেটা ছিলো ক্ষণিকের নীরবতা।

এই যে দু’টো দৃশ্যপটের কথা বললাম, তা আবারও দেখিয়ে দিচ্ছে পশ্চিমা সংবাদ মাধ্যমের প্ররোচনায় কত সহজে আমরা প্রতারিত হই। শুধু পশ্চিমা নয়, আমাদের দেশেও আমরা প্রতারিত হই। সাম্প্রতিক বিশ্বে বারবার এই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে থাকলেও এর থেকে কোনো শিক্ষা আমরা পাইনি এবং পশ্চিমের সংবাদ মাধ্যমকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সংবাদের সবচেয়ে বড় উৎস হিসেবে ধরে নিয়ে ব্যস্ত থেকেছি এবং থাকছি। তারা যা দেখাচ্ছে, দেখছি। যা পড়তে দিচ্ছে পড়ছি। যা পড়তে দিচ্ছে না, তা ধেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছি, অনুসন্ধানের প্রয়োজন ভেতরে জাগরুক হচ্ছে না।

এখানেই সাংবাদিকতার নৈতিকতা জড়িত। কোন সংবাদ কিভাবে পরিবেশন করবো, কতটুকু প্রকাশ করবো- সেটার সীমারেখা থাকতে হবে। সেটা কিতাবে থাকলেও বাস্তবে নেই। কিম জং-উন ফিরে এসেছেন। আর সাদ্দাম? সাদ্দামের বিষয়ে বিশ্ববাসী প্রতারিত হয়েছে। বিনা ব্যাখ্যায় পশ্চিমাদের সংবাদ বিশ্বাস করে একটি দেশকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিয়েছে। মানবিকতা, সতত্য, কল্যাণকামীতা, শান্তি প্রচেষ্টা পায়ে দলে আরও একবার আমরা ঠকে গিয়েছি সাংবাদিকতার নৈতিকতা ও দায়বদ্ধতা সামনে।

পশ্চিমের সংবাদমাধ্যম যে সবসময় ধোয়া তুলসীপাতা, তা একেবারেই নয়। বিশেষ করে বিতর্কিত অনেক প্রশ্নেই, এমনকি গোপনে সিআইএর হয়ে কাজ করতেও পিছপা হয় না তারা। আমরা জানি দূর বিদেশের সংবেদনশীল কোনো সংবাদের ক্ষেত্রে সত্য-মিথ্যা যাচাই করার সামর্থ্য আমাদের নেই। ফলে পশ্চিমারা যা আমাদের খেতে দিচ্ছে, তাই আমরা খেয়ে নিচ্ছি।

যেহেতু জবাবদিহিতামূলক সাংবাদিকতা বলতে যা বোঝায় তা আসলে কোথাও শতভাগ প্রতিষ্ঠিত করা যায়নি। তাই এই একচ্ছত্র নির্ভরশীলতা থেকে কীভাবে বের হয়ে আসা যায়, তা নিয়ে মনে হয় চিন্তাভাবনা করা দরকার। সেটা দেশ-বিদেশের সব ক্ষেত্রেই হতে পারে।

আমাদের দেশীয় প্রেক্ষাপটে সাংবাদিকতার নৈতিক গুণাগুণ, বিচার বিশ্লেষণের ক্ষমতা, নিরপেক্ষতা ইত্যাদি নিয়ে কথা বলার যথেষ্ট অবকাশ রয়েছে। তার পরও নতুন নতুন মিডিয়া আসছে, কেউ কেউ মিডিয়া গড়ার স্বপ্ন দেখছেন। এসব স্বপ্নের এক বাস্তবায়ন ‘ইনসাফ’।

২০১৪ সালের ৫ মে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু হয় পত্রিকাটির। বয়স হিসেবে অর্ধযুগ পেরিয়েছে তারা। অনেক সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে ছয় বছর টিকে থাকা বেশ কঠিন। প্রয়োজনীয় জনবল, সাপোর্ট, বাজেট ও পরিকল্পনার হয়তো অনেকে কিছু তারা করতে পারেনি। কিন্তু সীমিত পরিসরে হলেও সত্য উচ্চকিত করার কাজটি কিন্তু অনেকটাই করেছে বুক ফুলিয়ে। তাদের পথচলার এই সংগ্রাম চলতে থাকুক, ইনসাফ তার অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাক; প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই মাসে এটাই আমার আন্তরিক চাওয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *