বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২১

বিগত সময়ের মত সব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে এগিয়ে যাবে ইনসাফ

ওবাইদুল্লাহ ওবাইদ | প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : কওমি ভিশন


খ্রিস্টপূর্ব ৪৯ সালে রোমান সম্রাট জুলিয়াস সিজারের হাত ধরে সংবাদ পত্রের পথচলা শুরু হয়। উপমহাদেশে কাগজে লেখা সংবাদপত্র বের হয় ১৭৮০ সালে ইংরেজ সাংবাদিক জেমস অগাস্টাস হিকির হাতে। প্রথম সংবাদপত্রের নাম ‘বেঙ্গল গেজেট’, যেটি ছিলো ইংরেজি ভাষায় লেখা। আর বাংলা ভাষায় সংবাদপত্র ছাপা শুরু হয় ১৮১৮ সালে ‘রঙ্গপুর বার্ত্তাবহ’-এর মাধ্যমে।
(সূত্র : বাংলা সংবাদপত্র ও বাঙালির নবজাগরণ)।

অনলাইন সাংবাদিকতা বা সংবাদ মাধ্যমের পরিচয় দিতে লম্বা কথা বলার প্রয়োজন নেই। প্রচলিত সাংবাদিকতার আধুনিক রূপই হচ্ছে অনলাইন সংবাদপত্র বা অনলাইন সাংবাদিকতা। বাংলাদেশে অনলাইন সংবাদপত্র আসে ২০০৪ সালে। বলা যায় বাংলাদেশে অনলাইন সংবাদপত্র চালু হয়েছে অনেক পরে। দেশের প্রথম অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। বিশিষ্ট সাংবাদিক আলমগীর হোসেন ছিলেন এর প্রধান সম্পাদক ও অন্যতম উদ্যোক্তা

সংবাদপত্রের শুরু থেকে আজকের আধুনিক যুগ পর্যন্ত ইসলাম ও মুসলমানদের পক্ষে কথা বলেছে এমন কোনো মিডিয়ার খোঁজ ইতিহাসের পাতায় পাওয়া যায় না। অথচ ইসলাম মুসলমানদের বিজয় ও শাসনামল কম ছিল না। এক প্রকার বলাই যায়, মিডিয়া অঙ্গনে ইসলাম এবং ইসলামী অঙ্গনে মিডিয়া বরাবরই অবহেলিত ছিল। এখনও সে অবহেলা কাটিয়ে উঠতে পারেনি। এই আধুনিক ও সচেতনতার যুগেও মিডিয়া অঙ্গনে আলেমদের দাপুটে অবস্থান না হওয়ার পিছনে অনেক কারণ রয়েছে। সব বাধাকে পিছনে ফেলে যারা এ পথে নেমে আসেন তাদের শুনতে হয় নানা কথা। কেউ ভাবেন আলেম হয়ে সাংবাদিক হওয়া সাজে না। এটি তুচ্ছ কাজ। আবার কেউ ভাবেন এসব আমাদের দ্বারা সম্ভব নয়। অথচ তাবলিগে দীন ও ইসলামী সভ্যতা সংস্কৃতির প্রচার-প্রসারে মিডিয়ার গুরুত্ব অনেক। এই গুরুত্বটা অনুধাবন করতে না পারাটাই ইসলামী অঙ্গনে মিডিয়া অবহেলিত হওয়ার মূল কারণ।

এসব বাধা বিপত্তি ডিঙিয়ে, অসম্ভবকে সম্ভব করে, অজানা আতঙ্ক ও না-পারার ভয়কে জয় করে, ইনসাফ দেখিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছে যে, আলেমদেরও গণমাধ্যম হতে পারে। আলেমরাও সাংবাদিকতা করতে পারেন। ২০১৪ সনের ৫ মে স্রোতের বিপরীত ইনসাফ পরিবারের এমন কালজয়ী সিদ্ধান্ত নিতে পারাতেই আজকের প্রজন্ম বলতে পারে আমাদেরও মিডিয়া আছে।

এরপর আরো অনেকগুলো ইসলামী মিডিয়া মাঠে এসেছে। প্রশংসার সাথে কাজ করছে। এ পত্রিকাগুলো অবশ্যই সাধুবাদ পাওয়া যোগ্য।

একটি মিডিয়ার প্রতিষ্ঠার পর অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ সামনে আসে। যার অন্যতম হচ্ছে স্বচ্ছতা, নিরপেক্ষতা, নিষ্ঠা, নতুনত্ব ও আস্থা ধরে রাখতে পারা। আমি মনে করি ইনসাফ এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সফল হয়েছে। এর পুরো কৃতিত্ব ইনসাফের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক জনাব সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার এবং তার সুদক্ষ কর্মী বাহিনীর।

তবে একটি কথা নিজের তিক্ত অভিজ্ঞতার আলোকে বলতে হয়, আমাদের যে বিশাল ইউনিটি রয়েছে সবার সমন্বয়ে একটি জাতীয় দৈনিক বের হওয়া কঠিন কোনো কাজ নয়। তিক্ত বাস্তবতা তো এটাই যে, এখানে সবার সমন্বয়টাই সবচে বড় চ্যালেঞ্জ। যার ফলে আমাদের দক্ষ কর্মী বাহিনী, অদম্য উৎসাহী আলেম সাংবাদিকবৃন্দ থাকলেও একটি উল্লেখযোগ্য দৈনিক বা মিডিয়া হাউজ তৈরি করা সম্ভব হয়নি। এখানে সমন্বয়হীনতা অর্থ সংকটই মূল কারণ। যেখানে বিভিন্ন কর্পোরেট কোম্পানি নিজস্ব অর্থায়নে মিডিয়া পরিচালনা করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন সেখানে আয়ের কোনো মৌলিক উৎস ব্যতীত ক্ষুদ্র স্পন্সর ও ডোনেশন নির্ভর হয়ে কাজে নামাটা অত্যন্ত ঝুঁকি সাহসিকতার বিষয়।

তবুও এ ঝুঁকির পথে ইনসাফ সাহসিকতার সাথে পা বাড়িয়েছে।

ইনসাফ তার এ পথচলার অর্ধযুগ পার করেছে। আমাদের প্রত্যাশা থাকবে ইনসাফ সকল সংকট কাটিয়ে আরো সমৃদ্ধ হয়ে দেশ, জাতি ও ইসলামের কল্যাণে যুগ যুগ ধরে কাজ করে যাবে ইনশাআল্লাহ।

আজকের বিশেষ সময়ে ইনসাফের সকল কলাকৌশলীকে জানাই হৃদয় নিংড়ানো অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img