বুধবার, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৩

পূর্ব ভূমধ্যসাগরে তুরস্কের পক্ষে দাঁড়াল আমেরিকা

পূর্ব ভূমধ্যসাগরে বুধবার (২৬ আগস্ট) যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়েছে তুরস্ক ও আমেরিকা। অঞ্চলটিতে ফ্রান্স ও গ্রিসের যৌথ মহড়ার কয়েক ঘণ্টার মাথায় পাল্টা এ মহড়া চালায় আঙ্কারা ও ওয়াশিংটন।

তুর্কি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম ডেইলি সাবাহ।

টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে তুর্কি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তুরস্কের ফ্রিগেটস টিসিজি বারবারোস এবং টিসিজি বুর্গাজাদা পূর্ব ভূমধ্যসাগরে আমেরিকান ডেস্ট্রয়ার ইউএসএস উইনস্টন এস চার্চিলকে সঙ্গে নিয়ে যৌথ নৌ অনুশীলন চালিয়েছে।

মহড়াকালীন তিনটি যুদ্ধজাহাজের ছবিও প্রকাশ করেছে আঙ্কারা। এরমধ্যে দুটি ছিল তুর্কি পতাকাবাহী। অন্যটিতে তুরস্ক ও আমেরিকা উভয় দেশের পতাকা উড়ছিল।

এদিকে এই মহড়ার দিনই পূর্ব ভূমধ্যসাগর পরিস্থিতি নিয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের সঙ্গে কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বুধবারের এই ফোনালাপে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এবং আঞ্চলিক পরিস্থিতি নিয়েও কথা বলেন দুই নেতা।

আনাদোলু এজেন্সির খবরে বলা হয়েছে, ফোনালাপে এরদোগান ট্রাম্পকে মনে করিয়ে দেন যে, পূর্ব ভূমধ্যসাগরে তুরস্ক কোনও ধরনের অস্থিরতা তৈরি করছে না। তার দেশ জোরালোভাবে এটা প্রমাণ করেছে যে, তারা উত্তেজনা কমাতে আগ্রহী। এ ইস্যুতে তুরস্ক সংলাপে বসতেও প্রস্তুত রয়েছে।

২৬ আগস্ট একাদশ শতকে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে সেলজাক তুর্কিদের বিজয় স্মরণে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানেও পূর্ব ভূমধ্যসাগরে গ্রিসের সঙ্গে বিরোধ নিয়ে কথা বলেন এরদোগান। এ সময় তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, পূর্ব ভূমধ্যসাগরে কোনও ছাড় দেবে না তুরস্ক। কৃষ্ণ সাগর, আজিয়ান সাগর ও ভূমধ্যসাগরে নিজেদের অধিকার বজায় রাখতে আঙ্কারা সম্ভাব্য সবকিছু করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

প্রতিবেশী দেশগুলোর উদ্দেশে এরদোগান বলেন,এসব বিষয়ে কোনও ভুল সিদ্ধান্ত নিলে তা তাদের ধ্বংস ডেকে আনবে। আমরা অন্য কারও অঞ্চল, সার্বভৌমত্ব ও স্বার্থের দিকে নজর দিচ্ছি না। কিন্তু যেগুলো আমাদের সেগুলোতে কোনও প্রকার ছাড় দেওয়া হবে না।

গ্রিসকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ভুল এড়িয়ে চলুন, তাহলেই ধ্বংস এড়াতে পারবেন। যেগুলো আমাদের সেগুলো নিয়ে আমরা কোনও আপস করবো না।

spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_img