মঙ্গলবার, মে ১৭, ২০২২

নেপালকে মানচিত্র পরিবর্তন থেকে বিরত রাখতে শেষ চেষ্টা চালাচ্ছে ভারত

নেপালের নতুন রাজনৈতিক মানচিত্র অনুমোদন সংশ্লিষ্ট সংবিধান সংশোধনী বিল যেন পাস করা না হয় যে জন্য কাঠমান্ডুকে রাজি করাতে শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ভারত। নেপালের নতুন মানচিত্রে ভারতের দাবি করা তিনটি অঞ্চল অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

নেপাল এরই মধ্যে নতুন মানচিত্র প্রকাশ করেছে। এটি এখন সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য পার্লামেন্টে বিল উত্থাপন করা হয়েছে। বিলটি পাস হলে নেপালের জাতীয় প্রতীকে যুক্ত দেশের মানচিত্রের নতুন সীমারেখা আঁকা হবে।

সূত্র জানায়, ভারত নেপালকে জানিয়েছে যে তারা আলোচনার জন্য প্রস্তুত। মূলত নেপাল সংসদের কার্যক্রম পিছিয়ে দিতে ভারত এই কৌশল গ্রহণ করেছে।

ভারতের নিরাপত্তা ও কূটনৈতিক কর্মকর্তাদের মাধ্যমে এই নতুন প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। প্রস্তাবটি ভারতের আগের অবস্থান থেকে সরে আসার ইংগিত। এর আগে ভারত বলেছিলো যে কোভিড-১৯ মহামারী দূর হওয়ার পরেই কেবল তারা আলোচনায় বসবে।

ভারতের এই প্রস্তাব নেপালের রাজনৈতিক মহলকে ক্ষুদ্ধ করে। ফলে দেশটির সরকার ও বিরোধী দল নির্বিশেষে ভারতের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে।

নেপালের বিশ্লেষকরা যুক্তি দেন যে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী যদি মহামারীর মধ্যেই বিতর্কিত ভূখণ্ডের উপর দিয়ে সড়ক উদ্বোধন করতে পারেন তাহলে মহামারীর মধ্যে আলোচনাও চলতে পারে।

যদিও ভারতীয় পক্ষ নেপালে কোন ধরনের প্রস্তাব পাঠানোর কথা আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করেনি, তবে জানায় যে নয়া দিল্লি নেপালি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ গিওয়ালি ও কাঠমান্ডুর সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে।

ভারত আগেও এ ধরনের শেষ মুহূর্তের কৌশল গ্রহণ করে। ২০১৫ সালে নেপাল যখন বড় ধরনের সাংবিধানিক পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয় তখন শেষ মুহূর্তে তৎকালীন পররাষ্ট্র সচিব এস জয়শঙ্কর আলোচনার জন্য কাঠমান্ডু যান। ভারত সংলগ্ন সীমান্ত এলাকায় বসবাসরত মাধেশিরা ওই পরিবর্তনের বিরোধী ছিলো।

কিন্তু জয়শঙ্কর কাঠমান্ডুতে পা ফেলার আগেই নেপাল সব সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে এবং ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বানে কান দেয়া থেকে বিরত থাকে। যার জের ধরে নেপালের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করে ভারত।

এবারও একই পরিস্থিতি দেখা যাচ্ছে। নেপাল সরকার এরই মধ্যে পার্লামেন্টে নতুন মানচিত্র বিল উত্থাপন করেছে। এতে লিপুলেখ, কালাপানি ও লিমপিয়াধুরাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ভারতও তার মানচিত্রে এসব ভুখণ্ডকে নিজের বলে অন্তর্ভুক্ত করেছে।

নেপালের মানচিত্র প্রত্যাখ্যান করে ভারত বলে যে এটি ‘একতরফা কাজ’ এবং এর কোন ‘ঐতিহাসিক ও প্রমাণিক ভিত্তি নেই’।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img