Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ধৈর্য ও সংগ্রামের প্রতীক আল্লামা বাবুনগরী : যোগ্য পিতার সুযোগ্য সন্তান ও ইসলামি আন্দোলনের এক মহীরুহ

মুফতি এনায়েতুল্লাহ | বিভাগীয় প্রধান, বার্তা টোয়েন্টিফোর ডটকম


আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। ন্যায়-নীতির ওপর অটল-অবিচল থাকা বর্তমান সময়ের অনন্য, অবিসংবাদিত এক ব্যক্তিত্ব। আলেম-উলামা থেকে শুরু করে জনসাধারণের সঙ্গে গভীরভাবে সম্পৃক্ত একজন ধর্মীয় নেতা। তার ভক্ত, সমর্থকদের মধ্যে আলেম-উলামা, রাজনৈতিক নেতা, বুদ্ধিজীবী, ছাত্র-শিক্ষক যেমন রয়েছেন, রয়েছেন ধর্মপ্রাণ সাধারণ মানুষ। এই বাংলার আপামর আলেম-উলামা ও ধর্মপ্রাণ মানুষই তার শক্তি। যে শক্তির বলে তিনি পরিণত হয়েছেন সংগ্রামের প্রতীক হিসেবে।

শায়খুল হাদিস হিসেবে পরিচিতি থাকলেও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর রাজনৈতিক পরিচয় প্রকাশ পায় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিবের দায়িত্ব গ্রহণের মধ্য দিয়ে। ২০১০ সালের ১৯ জানুয়ারি হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফী হেফাজতে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি এই সংগঠনের চেয়ারম্যান।

ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষানীতির বিরোধিতার মধ্য দিয়ে আত্মপ্রকাশ করা হেফাজতে ইসলাম প্রস্তাবিত নারী উন্নয়ন নীতিমালার (২০০৯) বিরোধীতা করে আন্দোলন শুরু করে। ২০১৩ সালে সংগঠনটি ইসলাম ও রাসূলকে (সা.) কটূক্তিকারী নাস্তিক-ব্লগারদের ফাঁসি দাবী করে ব্যাপক আন্দোলন শুরু করে। এ প্রেক্ষিতে তারা ১৩ দফা দাবী উত্থাপন করে। দাবীর পক্ষে সভা-সমাবেশ, লংমার্চ ও ঢাকা অবরোধ কর্মসূচী পালন করে। ঢাকা অবরোধের দিন (৫ মে, ২০১৩) রাজধানীর মতিঝিলে অবস্থানকালে রাতে নিরাপত্তা বাহিনীর হামলায় বহু হেফাজত কর্মী আহত-নিহত হয়। গ্রেফতার করা হয় সংগঠনের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীসহ বেশ কয়েকজনকে। এর পর থেকে হেফাজতে ইসলাম রাজপথে উল্লেখযোগ্য কোনো কর্মসূচী পালন করতে পারেনি। মিছিল-মিটিং, বিবৃতির মাঝে আটকে যায় সংগঠনটি। অভ্যন্তরীণ নানাবিধ কারণে এখন হেফাজতে ইসলাম ক্ষয়িষ্ণু শক্তিতে পরিণত হয়েছে। তবে, হেফাজতকে নিয়ে এখনও শেষ কথা বলার সময় হয়নি। এটা ভিন্ন প্রসঙ্গও বটে। সে আলোচনা অন্যকোনো সময়।

হেফাজতে ইসলামের আন্দোলন পরবর্তী সময়ে এটা প্রতীয়মান হয়েছে, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী নেতা হওয়ার জন্য রাজনীতি করেননি। ব্যক্তিগত অভিলাষ পূরণের জন্য রাজনীতি করেননি। তিনি জনগণকে ধর্মীয় বিষয়ে সচেতন করতে, শোষণমুক্ত সমাজ গড়তে রাজনীতি করেন। যেনতেন প্রকারে শুধু তাদের কর্মসূচী পালন তার রাজনীতির উদ্দেশ্য কখনও ছিল না।

হেফাজতের স্থবিরতাকালীন সময়ে বিবৃতি কিংবা ওয়াজ মাহফিলে ইসলাম-মুসলমানের স্বার্থে আঘাত হানে এমন বিষয়গুলোর প্রতিবাদ তিনি অব্যাহত রাখেন। ফলে ক্ষমতার স্বাদপ্রিয় রাজনৈতিক নেতারা তাকে এড়িয়ে চলতে শুরু করেন। নানাভাবে তাকে কোনঠাসা করে রাখা শুরু হয়, যা এখনও চলমান।

রাজনীতি সর্বদা দু’ভাগে বিভক্ত। কেউ স্বার্থ ও সুবিধার জন্য রাজনীতি করেন। আর কেউ করেন নিজের দায়বোধ থেকে। এক্ষেত্রে মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী দ্বিতীয় কাতারের লোক। তাই তো দেখি, বড় বড় রাজনৈতিক দলের নেতারা চুপ থাকলেও মাওলানা বাবুনগরী একাই লড়ে চলছেন। প্রায়ই তিনি বিবৃতি দিয়ে বলছেন- রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আছে ইসলাম থাকবে। ইসলাম অবমাননাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। কাদিয়ানীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণা করতে হবে। আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠায় ইসলামী আদর্শ অনুসরণের বিকল্প নেই। মাজারের নামে সন্ত্রাস সহ্য করা হবে না। মঙ্গল শোভাযাত্রা ঈমান-আক্বিদা ও ইসলামী আদর্শের বিরোধী। মুসলমানদের ঈমানহারা করার ষড়যন্ত্র থেকেই গ্রিক মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। শিক্ষানীতি পাঠ্যসূচি ও প্রস্তাবিত শিক্ষা আইন বাতিল করতে হবে। রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেওয়া হলে তৌহিদী জনতা তা প্রতিহত করবে। বিশ্বে অশান্তির মূল কারণ ধর্মহীন শিক্ষা। এভাবে সম-সাময়িক নানা প্রেক্ষাপটে তিনি নিয়মিত বিবৃতি দিয়ে মুসলিম উম্মাহকে সাহস জুগিয়েছেন, পথ দেখিয়েছেন। সাধারণ মানুষ বিবৃতি থেকে নির্দেশনা পেয়েছে।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী কোরআনের হাফেজ। মাত্র দশ বছর বয়সে তিনি হাফেজ হন। এমনকি এক বৈঠকে পুরো কোরআন শোনানোর কৃতিত্ব রয়েছে তার ঝুলিতে। বর্তমানে তিনি আল জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদিস। চার তরিকার খেলাফতপ্রাপ্ত হয়ে আধ্যাত্মিক জীবনে একজন অলিয়ে কামেল হওয়ার সৌভাগ্যও অর্জন করেছেন আল্লামা বাবুনগরী।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর জন্ম চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি থানার বাবুনগর গ্রামে, ১৯৫৩ সালে। তিনি হাটহাজারী মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাদের একজন আল্লামা সুফি আজিজুর রহমান বাবুনগরী (রহ.)-এর পপৌত্র এবং বাবুনগর মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শাহ হারূন বাবুনগরী (রহ.)-এর নাতি। আল্লামা বাবুনগরী বাবার দিক দিয়ে সৈয়দ, আর মায়ের দিক দিয়ে সিদ্দিকী।

তার পিতা মিশকাত শরীফের বিখ্যাত ব্যাখ্যাগ্রন্থ ‘তানজিমুল আশতাতের’ রচয়িতা মাওলানা আবুল হাসান (রহ.)। তিনিও দীর্ঘদিন হাটহাজারী মাদরাসায় হাদিস এবং তাফসির পড়িয়েছেন। বৃহত্তম চট্টগ্রাম অঞ্চলে আল্লামা বাবুনগরীর পরিবার আক্ষরিক অর্থেই এক সম্ভ্রান্ত পরিবার। মাওলানা বাবুনগরীর পিতা-মাতার বংশে অনেক বড় বড় আলেম ছিলেন। তারা যুগশ্রেষ্ঠ বুজুর্গদের সোহবাতপ্রাপ্ত। তিনি বিয়ে করেছেন ফটিকছড়ির ভূজপুরে। তার শ্বশুরও একজন তাকওয়াবান ব্যক্তি। যে কারণে, বিনয়-নম্রতা, ভদ্রতা, তাকওয়া-পরহেজগারি, খোদাভীরুতা, ইলম-আমল, আখলাক-চরিত্র থেকে শুরু করে সব দিক দিয়েই অতুলনীয় আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর অন্য ভাইয়েরা উঁচু মাপের আলেম এবং মুহাদ্দিস। একজন মাওলানা শুয়াইব বাবুনগরী, তিনি বাবুনগর মাদরাসার মুহাদ্দিস। অন্যজন মাওলানা জোবায়ের বাবুনগরী, তিনি রাউজান সুলতানপুর মারাসার মুহাদ্দিস।
এক ছেলে ও পাঁচ মেয়ের জনক আল্লামা বাবুনগরীর ভগ্নিপতি ও ভাগ্নেরাও বড় আলেম। তার মেয়ের জামাতারাও আলেম ও মুহাদ্দিস। তারা নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে দক্ষতার পরিচয় দিয়ে স্বমহিমায় উদ্ভাসিত। ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর আম্মা ফাতেমা বেগম (৮৩) ইন্তেকাল করেন। মরহুমা নিজেও একজন বড় মাপের সাধক মহিলা ছিলেন। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে আলেম না হলেও তিনি ছিলেন আলেমের মতোই।

বলে রাখা ভালো, ১৯০১ সালে হাটহাজারী মাদরাসা প্রতিষ্ঠিত হয়। হাটহাজারী মাদরাসার চার প্রতিষ্ঠাতা হলেন- মাওলানা হাবিবুল্লাহ (রহ.), মাওলানা আবদুল হামিদ (রহ.), মাওলানা সুফি আজিজুর রহমান (রহ.) ও মাওলানা আবদুল ওয়াহেদ (রহ.)।

বাবুনগর মাদরাসায় তার প্রাথমিক শিক্ষার সূচনা হয়। এরপর চলে আসেন হাটহাজারী মাদরাসায়। এখানে ১০ বছর অধ্যয়ন শেষে ১৯৭৬ সালে দাওরায়ে হাদিস সম্পন্ন করেন। পরে উচ্চশিক্ষার জন্য পাকিস্তানের দারুল উলুম বাননূরী টাউন করাচিতে ভর্তি হন। সেখানে বিশ্ববিখ্যাত আলেমদের কাছে হাদিস, তাফসির ও ফিকাহশাস্ত্র বিষয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন। তিনি আল্লামা ইউসুফ বাননূরী (রহ.)-এর শিষ্যদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য একজন।

১৯৭৮ সালে পাকিস্তান থেকে ফিরে এসে জামিয়া ইসলামিয়া বাবুনগরে মুহাদ্দিস হিসেবে যোগ দেন। বাবুনগর মাদরাসায় তিনি বোখারি, মুসলিম ও আবু দাউদের দরস দিয়েছেন। এর পর আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ডাকে সাড়া দিয়ে ২০০৩ থেকে হাটহাজারী মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস হিসেবে যোগ দেন। আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আল্লামা শফীর একান্ত অনুগত ছাত্র এবং খলিফা। ২০০৩ সাল থেকে নানা প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে এখনও হাটহাজারী মাদারাসায় হাদিসের দরস দিয়ে যাচ্ছেন। সেই সঙ্গে মাদরাসার বিভিন্ন দায়িত্বও অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে পালন করছেন। তিনি বাংলাদেশে প্রথম দরসি ধারায় উলুমুল হাদিস চালু করেন।

দীর্ঘ চল্লিশ বছরের বেশি সময় ধরে তিনি হাদিসের দরস দিয়ে আসছেন। দেশের সর্বত্র রয়েছে তার অগণিত ছাত্র-শিষ্য। হজপালনের নিমিত্তে তিনি সৌদি আরব সফর করেছেন। এ ছাড়া পড়াশোনার সুবাদে পাকিস্তান। আর দাওয়াতি কাজে সফর করেছেন কাতার ও ভারত।

শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি একজন লেখক। আরবি, বাংলা ও উর্দু ভাষায় ত্রিশের অধিক গ্রন্থ তিনি রচনা করেছেন। তার রচিত উল্লেখযোগ্য কয়েকটি গ্রন্থ হলো- আত তাওহীদ ওয়াশ শিরক ওয়া আকসাহুমা, সীরাতু ইমাম আদ দারিমী ওয়াদ তারিফ বি শুয়ুখিহী, দাড়ি আওর ইসলাম, প্রচলিত জাল হাদিস, ইসলাম ও দাড়ি, ইসলাম আওর সাইন্স, মুকাদ্দামায়ে ফিকাহ, খুতবার ভাষা ও আহকাম, কুরবানির ইতিহাস: ফাজায়েল ও মাসায়েল, ইতিকাফ শবে কদরের ফাজায়েল ও মাসায়েল, দারুল উলুম হাটহাজারী ও ইলমে হাদিস, বিশ্ব বরেণ্যে মুহাদ্দিসগণের দৃষ্টিতে ইমাম আবু হানিফা, তাযকিরাতু আলামিল মুহাদ্দিসীন অন্যতম। তার রচিত গ্রন্থগুলো অসাধারণ জ্ঞান ও সাহিত্যচর্চার পরিচায়ক। এছাড়া বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও মাসিক পত্রিকায় সম-সাময়িক নানা প্রসঙ্গ নিয়ে তিনি প্রচুর প্রবন্ধ লিখেছেন। তার রচিত বাংলা প্রবন্ধের সংকলন প্রকাশ হয়েছে। আর আরবি প্রবন্ধগুলো একত্রে সংকলনের কাজ চলছে।

হেফাজতে ইসলামের ঢাকা অবরোধ কর্মসূচীর পরে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে ২০১৩ সালের ৭ মে পুরান ঢাকার ঢাকেশ্বরী মন্দির এলাকা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে। নানা জটিল রোগে আক্রান্ত আল্লামা বাবুনগরীকে পুলিশের রিমান্ডেও নেওয়া হয়। রিমান্ডের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে থাকাকালীন সময়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবশ্য তিনি জামিনে মুক্তি পান। গ্রেফতারের পর (২০১৩ সালে) তার পাসপোর্ট জব্দ করা হয়। জামিনে মুক্তির পর বারবার চেয়েও তিনি পাসপোর্ট ফেরত পাননি। পাসপোর্ট ফেরত চেয়ে পরিবারের সদস্যরা সংবাদ সম্মেলন করেন। এমতাবস্থায় তিনি অসুস্থ হয়ে গেলে, আন্দোলনের মুখে তাকে পাসপোর্ট ফিরিয়ে দেওয়া হয়।
২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত বেফাকের (বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া) ১০ম কাউন্সিলে গঠিত কমিটিতে প্রথমে সদস্য ও পরে সহ-সভাপতির পদ দেওয়া হয়। যদিও এটা নিয়ে তিনি কোনো প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেননি। তাকে সেভাবে বেফাকের কোনো বৈঠকে অংশ নিতে দেখা যায় না। এমনকি তিনি কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান স্বীকৃতি দিয়ে সংসদে আইন পাশ করায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাতে আয়োজিত শোকরানা মাহফিলেও যোগ দেননি।
ব্যক্তি জীবনে অত্যন্ত সহজ-সরল প্রকৃতির তিনি। সদালাপী হলেও নীতির প্রশ্নে কঠোর। নিয়মিত মাদরাসার ক্লাস ঠিক রেখে এখনও দেশের নানা প্রান্তরে ছুটে বেড়ান দ্বীনের দাওয়াত নিয়ে। শারীরিক অসুস্থতা সত্ত্বেও তিনি দেশ, জাতি ও ইসলামের বহুমুখী খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন দিনরাত।

জীবনের এই পড়ন্তবেলায় আল্লামা বাবুনগরী নানামুখী চাপে জর্জরিত। নানা অপবাদও সইতে হচ্ছে তাকে। মাদরাসার প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে অন্যায়ভাবে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার পরও তিনি আপন লক্ষে অবিচল। এই অবিচলতা তাকে ধৈর্য ও সংগ্রামের প্রতীকে পরিণত করেছে। যোগ্য পিতার সুযোগ্য সন্তান হিসেবে ও ইসলামি আন্দোলনের এক মহীরুহে পরিণত হয়েছেন। দোয়া করি, হকের পথে তিনি দৃঢ় থাকুন। তার ছায়া আমাদের ওপর আরও দীর্ঘ হোক। আমিন।
———————
০৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *