Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

কাশ্মীর নিয়ে চীন-পাকিস্তানের সংলাপকে মাথাব্যাথার কারণ মনে করছে কেন ভারত?

চীনা স্টেট কাউন্সিলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াঙ ইয়ি ও পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাখদুম শাহ মাহমুদ কোরেশি গত শুক্রবার (২১ আগস্ট) দক্ষিণ চীনের হাইনান প্রদেশে চীন-পাকিস্তান ফরেন মিনিস্টার্স স্ট্র্যাটেজিক ডায়ালগের দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেন।

চীন ও পাকিস্তান ২০১৮ সালের নভেম্বর চীন-পাকস্তান স্ট্র্যাটেজিক ডায়ালগকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে উন্নীত করে।

চীন-ভারত উত্তেজনার প্রেক্ষাপটে এবং ভারত দখলকৃত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার প্রথম বর্ষপূর্তির কয়েক দিনের মধ্যে ভারত সম্ভবত চীন ও পাকিস্তানের মধ্যকার সংলাপকে ভারতকে টার্গেট করে কৌশলগত জোট হিসেবে দেখছে।

কাশ্মীরের ব্যাপারে চীন বারবার বলে আসছে যে ইস্যুটি ভারত ও পাকিস্তানর মধ্যকার ঐতিহাসিক বিরোধ। চীন এই পরিস্থিতিকে জটিল করে এমন কোনো একতরফা পদক্ষেপের বিরোধী।

চীনা অবস্থানের জবাবে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রবাস্তব একদিন পর শনিবার বলেন, যৌথ প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে কাশ্মীরের উল্লেখের বিষয়টি ভারত প্রত্যাখ্যান করে। তিনি দাবি করে বলেন, ভারত মনে করে এটি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের সামিল।

নয়া দিল্লির কাছ থেকে এমন প্রতিক্রিয়া অপ্রত্যাশিত নয়। ভারত জোর দিয়ে দাবি করছে, কাশ্মীর প্রশ্নে তার অবস্থান চীন, পাকিস্তান ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অবস্থানের সাথে অপ্রাসঙ্গিক।

প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে সীমিত নয়। এর কারণ হলো, কাশ্মীর হলো ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার বিরোধপূর্ণ অঞ্চল এবং তা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে ব্যাপকভাবে স্বীকৃত। অধিকন্তু, বিশেষ স্বায়ত্তশাসিত মর্যাদা বাতিল করার পর স্থানীয়দের, বিশেষ করে মুসলিমদের রীতিনীতি ও জীবনযাত্রা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হয়েছে। কাশ্মীর প্রশ্নে ভারতের বক্তব্য এই বিরোধপূর্ণ অঞ্চলের ব্যাপারে চীনা অবস্থানে কোনো প্রভাব বিস্তার করবে না।

শ্রীবাস্তব শনিবার চীন পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর (সিপিইসি) প্রশ্নে ভারতের অবস্থান তুলে ধরে বলেন, এটি ভারতের ভূখণ্ড দিয়ে অতিক্রম করেছে, তার দাবি পাকিস্তান এটিকে অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে।

তবে ভারতের আপত্তির কারণেই চীন সিপিইসি পরিত্যাগ করবে, এমন নয়। বরং চীন এটির প্রসার করা অব্যাহত রাখবে। পাকিস্তানের সাথে চীনের জোরালো জাতীয় শক্তি ও ব্যাপকভিত্তিক সহযোগিতার কারণে ভারত বলতে গেলে কোনোভাবেই সিপিইসির উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না।

আমেরিকার নেতৃত্বাধীন পাশ্চাত্যের দেশগুলো বারবার হংকং ও তাইওয়ানের মতো চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়াদিতে চীনকে উত্যক্ত করতে থাকলেও পাকিস্তান শুক্রবার জোরালভাবে চীনের মূল স্বার্থগুলোর প্রতি দৃঢ় সমর্থন দিয়েছে এবং তাইওয়ান, জিনজিয়াং ও হংকংয়ের সাথে সম্পর্কিত বিষয়াদিতে চীনের প্রতি আস্থাশীল থাকার কথা জানিয়েছে। এসব ইস্যুতে এটিই পাকিস্তানের ধারাবাহিক অবস্থান।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও গ্লোবাল টাইমস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *