বৃহস্পতিবার, জুন ৩০, ২০২২

করোনা নির্মূলে আশার আলো দেখাচ্ছে তুরস্কের রে-থেরাপি

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নাহিয়ান হাসান


আরডি গ্লোবাল ইনভামডের তথ্যমতে, কোভিড-১৯ সহ অন্যান্য মহামারী নির্মূলে তুর্কী বিজ্ঞানীদের কর্তৃক আবিষ্কৃত রে-থেরাপি নিয়ে ক্লিনিকালভাবে গবেষণা চলছে।

আঙ্কারার গাজী বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্ডিওভাসকুলার সার্জন হিকমেত সেলজুক গেদিক আরডি গ্লোবাল ইনভামডের পক্ষে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন যে, রোগীদের চিকিৎসা প্রক্রিয়ায় রে-থেরাপি প্রয়োগের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে তুর্কী ‘রে চিকিৎসা পদ্ধতি’ অবলম্বনের আবেদন মঞ্জুরের পর তা নিয়ে ক্লিনিকাল গবেষণা শুরু হতে যাচ্ছে।

তুর্কিবিম হল একটি রে-চিকিৎসা ব্যবস্থা যা তুর্কিবিম সিলেকটিভ-সেনসিটিভ ইউভিসি এবং লেজার থেরাপি বা তুর্কিবিম নামে তুর্কী বিজ্ঞানীদের দ্বারা তিন বছর গবেষণার পর বিশ্ব বিখ্যাত তুর্কি সংস্থা প্রথম প্রকাশ করেছিল। এটি এমন এক চিকিৎসা পদ্ধতি হবে যা প্রথমবারের মতো মানবদেহের অভ্যন্তরে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটিকে তুরস্কের নেওয়া বৈশ্বিক পদক্ষেপগুলোর মধ্যে এমন এক পদক্ষেপ হিসাবে বিবেচনা করা হচ্ছে যা চিকিৎসার ইতিহাসে এক অন্যন্য দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করবে।

প্রক্রিয়াটি ভাইরাস এবং ব্যাকটিরিয়ার মতো অণুজীবগুলির উপর অধ্যয়ন দিয়ে শুরু হয়েছিল পাশাপাশি বিষাক্ত বস্তুসমূহের বিশ্লেষণগুলির ক্ষেত্রেও গবেষণা অব্যাহত রাখা হয়েছিল। এই চিকিৎসা পদ্ধতি দিয়ে প্রাণী এবং মানব কোষ সংস্কৃতি সম্পর্কিত গবেষণা সমাপ্ত হওয়ার পর তা এখন ক্লিনিকাল গবেষণার পর্যায়ে পৌঁছেছে।

নভেম্বর ২০১৯ থেকে গবেষক দলটি কোভিড-১৯ নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রেও এই একই পদ্ধতি ব্যবহারের দিকে মনোনিবেশ করেছিল।

৪মে, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এই চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে ক্লিনিকাল গবেষণা করার আবেদনটি অনুমোদন করে এবং এই বিষয়টি আন্তর্জাতিক চিকিৎসা সংস্থাকে জানানোর পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিক কর্তৃক এই চিকিৎসা পদ্ধতির গবেষক দলটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং সহযোগিতার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।

গবেষকরা জানিয়েছেন, এই চিকিৎসা অণুজীব, ছত্রাক, ব্যাকটিরিয়া এবং ভাইরাস জাতীয় জীবের সম্পূর্ণ ধ্বংস নিশ্চিত করে এবং এটি কোষ এবং মানুষের ‘ডিএনএ’তে কোনো ক্ষতিও করে না।

এই চিকিৎসা পদ্ধতির আন্তর্জাতিক স্বত্বাধিকার আবেদন জমা দেওয়ার পর এপ্রিলে তা নিয়ে ক্লিনিকাল গবেষণা শুরু হয়েছিল।

উল্লেখ্য, চীনে উৎপত্তি হওয়া বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে গত কয়েক মাসে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img