Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইসলামী বিপ্লবের পূর্বশর্ত নির্মানে ইনসাফ নেতৃত্বের ভূমিকা পালন করছে

শেখ ফজলুল করীম মারুফ | সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি : ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন


যেকোন বিপ্লবের প্রধানতম পূর্বশর্ত হলো, বিপ্লবের পক্ষে জনমানস তৈরি হওয়া। বিপ্লবের পক্ষে তত্ত্ব তৈরি হওয়া এবং সেই তত্ত্ব দেশের মানুষের জন্য কতটা কার্যকর সেই আলোচনাই নয় বরং কতটা অপরিহার্য সেই আলোচনা সর্বত্র বিরাজমান থাকা বিপ্লবের পূর্বশর্ত। এটা না হলে যত শক্তিশালী সংগঠনই গড়ে উঠুক না কেন তাদের পক্ষে বিপ্লব করা সম্ভব না। এমনকি যাদের মুক্তির জন্য বিপ্লব তারাই বিপ্লবের বিরুদ্ধে দাড়িয়ে যাবে।

বাংলাদেশ একটি মুসলিম প্রধান দেশ। মুসলিম দুনিয়া থেকে ভৌগোলিকভাবে বিচ্ছিন্ন এই ভূখন্ডের হাজার বছরের ইসলাম সম্পৃক্ততার ইতিহাস থাকলেও দুর্ভাগ্যজনকভাবে খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ এর অধীনে পরিচালিত হওয়ার সৌভাগ্য হয়নি। এমনকি এই ভূখন্ডে খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তত্ত্ব ও প্রয়োগ উভয়দিক থেকেই পরিপূর্ণ কোন সংগঠনের ইতিহাসও একেবারে নতুন। ফলে বাংলাদেশে ইসলামী বিপ্লবের পক্ষে ইতিবাচক জ্ঞানভাষ্য, পরিভাষা, আলোচনা-পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ তৈরি হয় নাই। বরং এর বিপরিতে ইসলামের বিপক্ষে প্রচুর তত্ত্ব, জ্ঞানভাষ্য, সমালোচনা, পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ হাজির আছে।।

এই সময়ে ইসলামী বিপ্লবের জন্য অপরিহার্য হলো, বিপরিত সমালোচনার জবাব তৈরি করা ও নিজেদের পক্ষে ইতিবাচক জ্ঞানভাষ্য তৈরি করা।

কিন্তু এই কাজ কোন রাজনৈতিক দলের পক্ষে করা সম্ভব না। এর জন্য দরকার বিশেষায়িত কোন সংস্থা।

আমার মনে হয় ইনসাফ আধুনিক বাংলাদেশে তেমনি একটি বিশেষায়িত সংস্থা যারা ইসলামী বিপ্লবের সেই অপরিহার্য কাজটি দক্ষতার সাথে করে যাচ্ছে।

“ইনসাফ”কে আমার কাছে যতটা না সংবাদ মাধ্যম মনে হয় তারচেয়ে অনেক বেশি একটি মিশনারী সংস্থা বলে মনে হয়, যে এদেশের ইসলামী বিপ্লবের জন্য জ্ঞানভাষ্য তৈরি করছে। সমকালীন সমস্যাগুলোকে ইসলামের আলোকে বিশ্লেষণ করছে এবং সমকালীন ইস্যুতে ইসলামের ভাষ্য তৈরি করছে।

ইনসাফের এই কাজ এদেশের ইসলামী বিপ্লবের জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে। ইনসাফের আরেকটি প্রতিষ্ঠাবার্ষিক এ জন্য ইসলামী বিপ্লবের মাঠ কর্মীদের পক্ষ থেকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন।

ইনসাফ যে কাজ শুরু করেছে তা দীর্ঘ সময় সাপেক্ষ কাজ। এই কাজে নগদ কোন সাফল্য নাই। কোন প্রাপ্তিও নাই। আপাতদৃষ্টিতে এ যেনো মরুভুমিতে পানি ঢালার মতো কাজ। এই ধরনের কাজে প্রচন্ড ধৈর্য, নিমগ্নতা, আত্মনিবেদন দরকার। খানিকটা উম্মাদনা, বৈরাগ্যতা ও ধ্যানমগ্নতা না থাকলে এই ধরনের কাজে লেগে থাকা যায় না। তবে যারা আদর্শের প্রতি ও স্বপ্নের প্রতি এই মগ্নতা, বৈরাগ্যতা নিয়ে অবিরাম কাজ করে গেছে তারাই সভ্যতাকে কিছু দিতে পেরেছে।

ইনসাফ সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার খানিক সেই বর্গের মানুষ। ইনসাফ নিয়ে তার মগ্নতা, এর জন্য বৈরাগ্যতা ও তার ধ্যানমগ্নতা আমাকে বিস্মিত করে। বস্তুবাদের এই সময়ে, জাগতিক চাওয়া-পাওয়ার এই সময়ে সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার আদর্শের পেছনে, স্বপ্নের পেছনে যেভাবে আত্মনিবেদন করেছেন তা সত্যিই বিরল। এদেশের ইসলামী আন্দোলনের ইতিহাসে ইনসাফ সম্পাদক একটি শিক্ষনীয় অধ্যায় ইতোমধ্যেই হয়ে গেছেন। আলহামদু লিল্লাহ।

ইনসাফকে মূল্যায়ন করার মতো যোগ্যতা আমার নাই। তবে একজন মাঠকর্মী হিসেবে যে অনুধাবন তা থেকেই ইনসাফ থেকে আরো যা চাই-

১. আরো বেশি অন্তর্ভুক্তিমূলক হওয়া। ইনসাফ ইতোমধ্যেই দেশের সকল ইসলামপন্থী শক্তিগুলোর একটি সাধারণ মঞ্চ বা কেন্দ্র হয়ে উঠেছে। তবে এই কেন্দ্রে সকলের আনাগোনা ও সাচ্ছন্দ্যবোধ সম্ভবত সমান না। ইনসাফ কারো জন্য অস্বস্তি তৈরি করেছে ব্যাপারটা এমন না কিন্তু সবাইকে জানানো স্বাগত ও সবাইকে দেয়া উষ্ণতার মাঝে রকমফের আছে কিনা তা আরেকটু পর্যালোচনা করে দেখার অনুরোধ করবো।

২. ইনসাফ একটি নিয়মিত পাঠচক্রের আয়োজন করতে পারে। যেখানে নানা বিষয় নিয়ে নিয়মিত আলোচনা হবে। পাঠচক্রের অনেক ধরন হয়। যেকোন ধরনের একটি পাঠচক্রের সাপ্তাহিক আয়োজন ইনসাফের লক্ষ্যপানে আরেক ধাপ এগিয়ে দেবে।

৩. মাসিক একটি লোকবক্তৃতার আয়োজন ইনসাফ করতে পারে। ইনসাফের সেই জ্ঞানতত্ত্বীয় অধিকার আছে। বিষয়ভিত্তিক এই ধরনের লোকবক্তৃতা জ্ঞান তৈরিতে বড় ধরনের অবদান রাখে।

৪. ইনসাফ লাইভটা নিয়মিত হতে পারে। বাংলাদেশে ইসলামপন্থীদের কথা ও বক্তব্য অনলাইনে তেমন পরিশীলিতভাবে উপস্থাপিত হয় না। ইনসাফ এই কাজটি করতে পারে। সাধারনের মাঝে ইনসাফ লাইভের গ্রহণযোগ্যতা আছে।

৫. ইনসাফ রাজনৈতিক বিশ্লেষণমূলক লেখার আধিক্য বাড়াতে পারে। দেশিয় বা আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক বিষয়গুলো নিয়ে দৈনিক বা সাপ্তাহিক একটু ভারি ও বিশ্লেষণী প্রবন্ধ প্রকাশিত হতে পারে।

আরো অনেক কিছুই চাই। ইনসাফ ও এর সম্পাদক নিজেদেরকে বড় করতে করতে তাদের প্রতি অনেক বেশি প্রত্যাশা তৈরি করেছেন। তবে একজন মাঠ কর্মী হিসেবে এই ধরনের কাজের সীমাবদ্ধতা সম্পর্কেও খানিকটা আঁচ করতে পারি। তাই আর বেশি বাড়াচ্ছি না।

পরিশেষে,
ইনসাফ এগিয়ে যাক। বাংলাদেশে ইনসাফের রাজ কায়েমে ইনসাফ নেতৃত্বের ভূমিকায় সফল হোক এই প্রত্যাশা করি। ইনসাফ সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকারের ধ্যানমগ্নতা আল্লাহ আরো বাড়িয়ে দিক সেই কামনা করি। একজন মাঠকর্মী হিসেবে যেনো ইনসাফের পাশে সর্বদা থাকতে পারি সেই দোয়া করি। আল্লাহ ইনসাফকে কবুল করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *