Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইনসাফ : নিপীড়িত মুসলিম উম্মাহর আদর্শবাদী কণ্ঠস্বর

আনাস বিন ইউসুফ


ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পদে অর্ধযুগ অতিক্রম করে ফেলল ‘ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম’। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে লড়াইয়ে ইসলামী ঘরনার শক্তিশালী গণমাধ্যমের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। একবিংশ শতাব্দির যে চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করার উপর মুসলিম উম্মাহর পরবর্তী ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে– তার অন্যতম হচ্ছে গণমাধ্যমের চ্যালেঞ্জ। দীর্ঘ সময় পর্যন্ত বাংলাদেশে ইসলামী ঘরানার একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ও রুচিশীল মিডিয়ার শূন্যতা বিরাজমান ছিল। শাপলা-ট্রাজেডি পরবর্তী সময়ে এই শূন্যতা আরো প্রকট আকারে অনুভূত হতে থাকে—যখন কিনা প্রতিপক্ষের সম্মুখ আঘাতে জর্জরিত হয়েও সবশেষ গণমাধ্যম-অপপ্রচারের চূড়ান্ত আঘাতটা বুকে পেতে নিতে হত আমাদেরকে। এমনি এক মহাকঠিন ও চ্যালেঞ্জিং সময়ে ইনসাফের যাত্রা শুরু হয়—শাপলা ট্রাজেডির ঠিক এক বছর পর।

পথচলার সূচনাতে ইনসাফের সাথে পরিচিত ছিলাম না। যতদিনে ইনসাফের সাথে আমার পরিচয় ঘটে ততদিন ন্যায়ের পক্ষে লড়াইয়ে সাফল্যের প্রামাণ রেখে খানিকটা পথ অতিক্রম করে ফেলে ইনসাফ। বিশুদ্ধ চিন্তা-চেতনা ও রুচিশীলতার অনন্য প্রতীক হয়ে উঠে প্রিয় এ প্রতিষ্ঠানটি।

বাংলাদেশে ইসলামী ঘরানার অনলাইন পোর্টালের সংখ্যা বর্তমানে কম নয়। বলতে দ্বিধা নেই— এ সবগুলোর পথিকৃৎ হচ্ছে ‘ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম’। ইনসাফের কল্যাণে ইসলামী চিন্তাধারার প্রতিনিধি সমাজ গণমাধ্যম শাখায় কাজের অনুপ্রেরণা যেমন অর্জন করছে, ঠিক তেমনি দেশের সাধারণ মিডিয়াগুলোও এদেশের ইসলাম ও মুসলমানদেরকে পাশ কাটিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার আত্মঘাতী প্রবনতা পরিহারে বাধ্য হয়েছে।

ন্যায়ের চেতনায় সদা জাগরুক থেকে ‘ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম’কে প্রতিষ্ঠা করার জন্য যে মানুষটি দিনরাত নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি শ্রদ্ধেয় মাহফুজ খন্দকার ভাই। আমি প্রাণভরে দোয়া করি, আল্লাহ যেন এ মানুষটির দৃঢ়চেতা মনোবল, ইচ্ছাশক্তি এবং মেধা ও কর্মস্পৃহায় অফুরান বরকত দান করেন। আমীন।

ইনসাফকে আমি দেখি, “নিপীড়িত মুসলিম উম্মাহর এক আদর্শবাদী কণ্ঠস্বর” হিসেবে। আমি আমার এ মূল্যায়নের অল্প-বিস্তর কোনো ব্যাখ্যা এখানে বলবো না। শুধু এটুকু বলবো- আপনি গুনেগুনে মাত্র এক সপ্তাহ ইনসাফকে ফলো করুন, ইনসাফের একজন মনযোগী পাঠক হয়ে পর্যবেক্ষণ করে দেখুন—ইনসাফ কী বলতে চায়।

মুসলিম বিশ্বের নানাপ্রান্তে নিত্য-নতুন ঘটে যাওয়া সত্যগুলো অন্য দশটি গণমাধ্যমের কাছ থেকে শুনলে আপনি হতাশ হতে পারেন। হতাশায় ভেঙ্গে পড়তে পারেন। কখনোবা নিজেকে এবং নিজের অপরাপর মুসলিম ভাইদেরকে অপরাধী হিসেবে জানতে শুরু করবেন। কিন্তু ‘ইনসাফ’ আপনার কাছে সেই সত্যটিকে বিকৃতিহীন সত্যের আকৃতিতে তুলে ধরবে নির্ভয়ে, অবলীলায়। ফলে হতাশার কালো মেঘ আপনাকে আচ্ছন্ন করতে পারবে না; ঘুরে দাঁড়াবার স্বপ্ন জেগে উঠবে অন্তর-জগতে। আগত উজ্জল ভবিষ্যতের হাতছানি যেন এখনি উপলব্ধি করতে পারছেন আপনি—ইনসাফের কল্যাণে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *