শুক্রবার, ডিসেম্বর ৯, ২০২২

ইনসাফ নামই যথেষ্ট

মুসা আল হাফিজ | কবি ও সাহিত্যিক


‘ইনসাফ’, এ নামই যথেষ্ট। আর কোনো স্লোগানের দরকার নেই। এ নামে নিহিত অঙ্গীকার ও দায় একটি পত্রিকাকে যদি শাসন করে, সে সত্য ও তথ্যের সুষম সমন্বয় ঘটাতে বাধ্য। ইনসাফ নিজের শব্দ ও শিরোনামে, বর্ণনা ও বিশ্লেষণে ইনসাফের প্রতি দায়বদ্ধ থাকার চেষ্টা করেছে। ফলত সে ইয়েলো জার্নালিজমের (হলুদ সাংবাদিকতা) কাছে প্রতারিত হয়নি। পাঠককেও সপে দেয়নি নিজেদের মনোমতো রংচড়ানো সংবাদ ও সাংবাদিকতার হাতে। এর মানে সাংবাদিকতার সততার প্রতি সে ছিলো আন্তরিক।

‘সততা ও আন্তরিকতা’ এ দুই প্রত্যয় আজ খুবই উপেক্ষিত হচ্ছে। সাংবাদিকতা এখন প্রতিপত্তিশীল রাঘববোয়াল আর পুঁজিপতিদের স্বার্থের গোলামীতেও ব্যবহৃত হচ্ছে। এ মাত্রা বেড়েই চলছে কেবল। ফলে পুঁজিবাদী শোষণ ও কালোটাকার মালিকের ভূড়ি বা স্বার্থের পাহারাদারিতে খুবই সতর্ক থাকছে মিডিয়া। জনতার সত্য ও তথ্য লাভের অধিকার তার কাছে মৌলিক গুরুত্ব হারাচ্ছে। দেশ ও জাতির প্রতি সত্যিকার অঙ্গীকার ও দায়বোধের অভাব থাকায় তাদের পরিবেশিত সংবাদ ও বিশ্লেষণ দেশ ও জাতিকে যতোটা পথ দেখায়, তার চেয়ে বেশি পথ ভোলায়। ইনসাফ এই গড্ডালিকা প্রবাহ থেকে বেঁচে থাকার সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে।

আগে বলা হতো, সংবাদমাধ্যম গণমতের প্রতিফলন ঘটায়। এখন কিন্তু সংবাদমাধ্যম গণমত তৈরীও করে। ফলে উদ্দেশ্যমূলক প্রোপাগান্ডার অভিযোগে বহু সংবাদমাধ্যম কলুষিত। দেশি, বিদেশী বিভিন্ন গণবিরোধী শক্তির বিভিন্ন প্রকল্প ও উদ্দেশ্য হাসিলের অনুকূলে তারা মানুষের মন-মানসিকতাকে প্রস্তুত করার কাজ করে। ভোগবাদ, পর্নোসংস্কৃতি, বস্তুবাদ, পুঁজিবাদ ইত্যাদির খেদমত তারা করে চলে। অনেকেই নানা উপায়ে ইসলামোফোবিয়া ছড়াতে থাকে। একটি মুসলিমপ্রধান জনগোষ্ঠীর আত্মপরিচয় ভুলিয়ে দেয়ার কাজে তারা থাকে মগ্ন। এ রকম সংবাদ মাধ্যমের দৌরাত্ম্য বাংলাদেশের বাস্তবতায় প্রকট। এই পরিস্থিতিতে ইনসাফ কাজ করে চলছে। দেশ ও জাতির প্রতি অঙ্গীকারাবদ্ধ থেকে বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রেখে তার এই পথচলা বেগবান হোক আরো, প্রসারিত হোক আরো।

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img