Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইনসাফ চেতনার বাতিঘর

মারুফ বিল্লাহ তাকী


ইনসাফ শব্দটির মাঝে লুকিয়ে আছে একটি চেতনা, অফুরন্ত আশা, দৃঢ় বিশ্বাস ও আস্থার জায়গা। অর্ধযুগ পেরিয়ে ইনসাফ পদার্পণ করলো সপ্তমবর্ষে। তিলে-তিলে গড়ে ওঠা এই ইনসাফ নিয়ে মনের মনিকোঠায় লুকিয়ে আছে অনেক কথা। জেগে উঠতে চেয়েছিল আবেগ, উচ্ছাস, ভালোবাসা ও ব্যথা। কিন্তু দমিয়ে রেখেছিলাম বহুদিন যাবত। ভাবছি, ইনসাফের অর্ধযুগ তো হলো। এবার নাহয় একটু মুখ খুলি? উম্মাহ’র নিকট মনের ব্যথাগুলো বলি?

পাঠক ভাবছেন হয়তো, ইনসাফ আবার কী ব্যথা দিলো আমায়। তারা তো মাশাআল্লাহ ভালোই কাজ করছে। অন্যদের তুলনায় দ্বীনি কার্যক্রমে সর্বাগ্রে। শত বাধা-বিপত্তির মাঝেও তারা এগিয়ে যাচ্ছে। তবুও তাদের নিয়ে মুখ খোলার কী আছে?

আসলে ব্যথাটা ইনসাফকে নিয়ে নয়; ইনসাফের জন্য বরং গর্ব হয়। ব্যথাটা এজন্যই, কেন ইনসাফ আজ তিনযুগে পদার্পণ করলো না? কষ্ট লাগছে, কেন ইনসাফ নামে দৈনিক পত্রিকা হলো না? বিষন্নমনে ভাবছি, ইনসাফ নামে একটি দ্বীনি টেলিভিশনের মুখ কেন আজও দেখতে পারলাম না?

প্রশ্নগুলোর একটিই উত্তর- চিন্তার সীমাবদ্ধতা। চিন্তার যে সীমা অতিক্রম না করলে ইনসাফ নামক একটি মিডিয়া বিপ্লব ঘটতো না, মিডিয়ায় ইসলামি ঘরানার আশ্রয়স্থল জন্ম হতো না এবং স্বপক্ষীয় মিডিয়ার এই ভুবনেরও হয়তো দেখা মিলতো না। আমাদেরও উচিত চিন্তার এই সীমাবদ্ধতা তুলে, শরীয়তের আলোকে মুক্ত চিন্তা করা।

আলহামদুলিল্লাহ! ইনসাফ পেরেছে। তাদের সে ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তে মুসলিম উম্মাহ’র নতুন শক্তি সৃষ্টি হয়েছে, মিডিয়া দখলের নতুন স্বপ্ন জন্ম নিয়েছে মুমিন মনে, ডিজিটাল পৃথিবীতে সেকেলে থাকার মনমানসিকতায় বিশাল পরিবর্তন এসেছে ইনসাফের কারণে এবং যুগোপযোগী চিন্তাভাবনা করার মতো কিছুটা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে জনমনে।

ইনসাফের এই সফল পথচলা আমাদের অনেককিছু শিখায়। তন্মধ্যে বিশেষভাবে আঙুল দিয়ে ইনসাফ দেখিয়ে দিয়েছে, আমাদের একগুঁয়ে চিন্তা বদলাতে হবে। পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি বদলেছে তাই আমাদেরকেও নতুনভাবে সবকিছু ভাবা শিখতে হবে৷ ইনসাফ আমাদের আরো শিখায়, শরীয়তের গণ্ডীতে থেকেও কিভাবে আধুনিক হওয়া যায়, ডিজিটাল কার্যক্রমে হাত দেয়া যায় এবং কিভাবে যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত নিয়ে নিন্দুকের নিন্দায় পরোয়া না করে দ্বীনি কার্যক্রম চালানো যায়।

আসুন, ইনসাফ থেকে শিখি। ইনসাফের মতো করে ভাবি। ইনসাফের চেতনা সকলে লালন করলে, সেদিন হয়তো বেশি দূরে নয়; যেদিন এ দেশের মিডিয়া নয় কেবল পুরো দেশজুড়ে কালিমা খচিত বিজয়ী নিশান পতপত করে উড়বে৷ এরই সাথে ফিরে আসবে ইনসাফপূর্ণ জীবনব্যবস্থা ইনশাআল্লাহ।

ইনসাফ! ধন্যবাদ তোমাকে, তোমার ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তকে। অজস্র ভালোবাসা তাদের জন্য, যারা ইনসাফ নামক একটি বিপ্লব ঘটিয়েছে এবং সেসব খাদিম, যারা এখনো নিঃস্বার্থ খিদমত করে যাচ্ছে। আপনারা ও ‘আমাদের ইনসাফ’ এগিয়ে যাক। আরো মসৃণ হোক পথচলা, এই কামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *