রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১

ইনসাফ; একটি উত্থানের গল্প!

ওমর ফারুক | শিক্ষার্থী : মাদানীনগর


পাঠকমহলে সমাদৃত পত্রিকা ইনসাফ তার সাফল্যমণ্ডিত অর্ধযুগ পেরিয়ে সপ্তম বর্ষে পদার্পণের এই শুভক্ষণে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও তাদের একনিষ্ঠ প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানাই।

বর্তমান বিশ্ব সত্য-মিথ্যার যে বুদ্ধিবৃত্তিক লড়াইয়ের উত্তপ্ত রণাঙ্গনে পরিণত হয়েছে, মিডিয়া পলিটিক্স সে যুদ্ধের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার। বহু আগ থেকেই পশ্চিমা মিডিয়াগুলো সত্যকে মিথ্যা আর সাদাকে কালোরূপে উপস্থাপন করে ন্যায় এবং ইনসাফ প্রতিষ্ঠার বিপরীতে তাদের নীল এজেন্ডা বাস্তবায়নের অপচেষ্টায় লিপ্ত। বিশ্বজুড়ে তারা মানবতা,স্বাধীনতা ও সুস্থ সংস্কৃতির চেতনা বিকাশের ফাঁপা বুলি আওড়িয়ে ভালো-মন্দ সঠিকভাবে নিরূপণে মানুষকে দ্বিধাগ্রস্ত করে তুলছে।

ধর্মান্ধতা, ইসলামভীতি ও জঙ্গীসহ কিছু নব্য উদঘাটিত শব্দের মাধ্যমে তাদের করা মিথ্যাচারে বিশ্বমানবতার প্রকৃত ঝাণ্ডাধারীরাই আজ নিষ্পেষিত। সংবাদ এবং সাংবাদিকতার মূল্যবোধ এমনকি নূন্যতম মনু্ষ্যত্ববোধকেও খুইয়ে তারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নির্দিষ্ট মত ও গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত।

দুঃখের বিষয়, পশ্চিমা মিডিয়ার লেজুড়বৃত্তিতে দেশীয় হলুদ মিডিয়াগুলোও তাদের পুঁজিবাদী নব্য প্রভুদের একনিষ্ঠ অনুসারী। তাই এই মিডিয়াযুদ্ধে আমাদের কিছু আপোষহীন সত্যান্বেষী সেনাব্যারাক প্রয়োজন ছিলো।

এমন পরিস্থিতিতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন আশু বাধা-বিপত্তিকে তোয়াজ না করে হেফাজতসমর্থিত ঐতিহাসিক ইসলামী বিপ্লবের শিক্ষাকে পুঁজি করে ২০১৪ সালের ৫ই মে স্রোতের বিপরীতে দেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফের এই বর্ণাঢ্য পথচলা শুরু হয়। সময়ে সময়ে বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে দেশী-বিদেশী বহু নিষিদ্ধতা, প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করে;শৃগালের রক্তচক্ষু,শকুনের শ্যেন দৃষ্টিকে পাশ কাটিয়ে আজকের এই দিনে ইনসাফের অবস্থান পাঠকের হৃদয়জুড়ে।ইনসাফের এই দীপ্ত পথচলায় উজ্জীবিত হয়ে আরো নতুন নতুন ইসলামী ঘরানার অনলাইন পোর্টালের যাত্রার মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়ায় আমাদের সুদৃঢ় প্লাটফর্ম গড়ে উঠছে।

একজন পাঠক হিসেবে আমার কাছে ইনসাফের সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে নৈতিকতা, নিরীক্ষণ খুব মুগ্ধকর ও আস্থার বিষয়।আমি ইনসাফের উত্তোরত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি। প্রত্যাশা করি আগামীর পথচলা নির্ঝঞ্ঝাট ও সুমসৃণ হোক।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img