মঙ্গলবার, জুন ১৫, ২০২১

ইনসাফ ইসলাম ও স্বাধীনতার প্রতীক

খন্দকার মুহাম্মাদ হাবিবুল্লাহ | লেখক ও প্রাবন্ধিক, দোহা কাতার


বাংলাদেশের মিডিয়া জগত বলতে গেলে অনেকটাই সেক্যুলারগোষ্ঠী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। আর এরা অনেক সময় পত্রিকা ও টেলিভিশন টিকিয়ে রাখার স্বার্থে ভিনদেশী স্বার্থকে বাংলাদেশী স্বার্থের উপরে প্রাধান্য দেয় এবং ভিনদেশী সংস্কৃতিকে বাঙ্গালী সংস্কৃতির নামে চাপিয়ে দেয়ার অপচেষ্টা করে থাকে। তারা দেশবিরোধী কাজগুলো সূক্ষ্মভাবে করলেও ইসলামবিরোধী কাজগুলো প্রকাশ্যে করার চেষ্টা করছে ইদানীং। ইসলাম ও মুসলমানদেরকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করা ছাড়াও ইসলামী ব্যক্তিত্বদের নিয়ে ভিত্তিহীন সংবাদ ও মাদ্রাসা-মসজিদ নিয়ে অপপ্রচার চালাতে এরা ইদানীং আগের মত আর রাখঢাক রাখছে না। এরা ইসলামবিরোধী কথাবার্তা প্রচার করার পরে আবার জনগণের চাপের কারণে ক্ষমা চাওয়ার নজিরও আছে। তাদের দেশবিরোধী ও ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ড অনেক মানুষ ধরতে না পারলেও দেশপ্রেমিক জ্ঞানী মানুষেরা বুঝতে পারে। এরই মধ্যে আবার গত কয়েক বছর আগে হঠাৎ করে উদয় হয়ে কিছু মানুষ শাহবাগে অবস্থান নিয়ে প্রকাশ্যে ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে কথাবার্তা বলতে লাগলো এবং অনলাইনে তা প্রচার করতে লাগলো। যে কারণে হেফাজতে ইসলামকে মাঠে নামতে হয়েছিল সেইসব ইসলামবিদ্ধেষী লোকগুলোর ইসলাম অবমাননার প্রতিবাদ করতে। সেই সময় দেশপ্রেমিক ও ইসলামপ্রিয় মানুষেরা এমন একটি পত্রিকার অপেক্ষায় ছিল, যা দেশীয় স্বার্থকে রক্ষা করবে, সুস্থ সংস্কৃতির বিকাশে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে এবং ইসলামী ভাবধারাকে সমাজে ফুটিয়ে তুলবে। তাদের সেই অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে আলোর মুখ দেখেছিল ইনসাফ ২০১৪ সালে।

সেক্যুলার পরিবেষ্টিত মিডিয়া জগতে ইসলামী ভাবধারার একটি পত্রিকা টিকে থাকা কতটা কষ্টের তা অনেকেই হয়ত বুঝতে পারবে না। তাছাড়া কওমি ঘরানার লোকজন মিডিয়া জগতকে একসময় দুনিয়াবি বিষয় বলে এড়িয়ে যেতো। এমনকি বাংলা ভাষার গুরুত্ব বুঝতেই আমাদের অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে। মিডিয়া জগতের গুরুত্ব সবাই এখনো ঠিক বুঝতে পারছেন তা বলা যাবে না। যে কারণে আজ পর্যন্ত কোনো আলেম, কোনো মুফতি সাহেব একটু বড় করে বলেননি যে, এই যুগে ইসলামী মিডিয়াতে দান করা ছওয়াবের কাজ। অথচ এই কথাটি মুফতী সাহেবদের বলা উচিৎ ছিল। আমরা যখন বুঝতে পারলাম যে, মাতৃভাষা ও মিডিয়া এ যুগে শক্তিশালী হাতিয়ার, তখন পদ্মা, মেঘনা ও যমুনার জল অনেক গড়িয়ে গেছে। দেশের চালকের আসন ও মিডিয়া জগত তখন এক একচেটিয়া সেক্যুলারদের দখলে।

হাতেগোনা কিছু প্রিন্ট মিডিয়া তখনো অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে টিকে ছিল একমাত্র মানুষের ভালবাসার কারণে। তার মধ্যে ছিল দৈনিক ইনকিলাব আর মাসিক মদীনাসহ হাতেগোনা কয়েকটি পত্রিকা। এক সময় মানুষ অনলাইন মিডিয়ার প্রতি ঝুঁকল এবং ফেসবুক, টুইটার, ওয়াটসাপ ইত্যাদি চালু হওয়ার আগে মানুষ অডিও চ্যাট ও ব্লগের মাধ্যমে নিজেদের মতামত ও ভাব প্রকাশ করতো। তখনও বলতে গেলে ইসলামবিরোধী মহলের জয়জয়কার পুরো নেট দুনিয়া জুড়ে। কওমিরা তখনো এ জগত নিয়ে বেখবর ছিল। তবে কিছু সচেতন কওমি তরুণ তখনো সেইসব ইসলামবিদ্ধেষী ব্লগগুলোতেও যোগ্যতা বলে নিজেদের উপস্থিতির জানান দিতো স্বল্প পরিসরে হলেও। সেইসব সচেতন তরুণদের মধ্যে একজন ছিলেন ইনসাফ এর সম্পাদক মাহফুজ ভাই। যিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, পিছিয়ে থাকা কওমিদেরকে টেনে নিয়ে আসতে হবে এখানে। বলা যায় তাঁর সেই স্বপ্ন ও চেষ্টার অপর নাম হল।

শুরুর দিকে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে বললে ভুল হবে। বরং বলতে হবে ইসলামী মিডিয়ার জন্য টিকে থাকা আগেও কষ্টের ছিল এখনো কষ্টের। তবে সুখের বিষয় হল এখন কওমি জগত আগের চেয়ে অনেক বেশি সচেতন এবং তারা নিজেদের যোগ্যতা বলে অল্প দিনেই দীর্ঘদিনের অপূর্ণতাকে পূরণ করে দিয়েছে অনেকটাই। ইদানীং কওমি ছাত্র-শিক্ষকরা মিডিয়া জগতে সগৌরবে উপস্থিত, সচেতন এবং কর্মঠ। দাওয়াতি কাজ, ফিকহি আলোচনা, ফতোয়া, তালিম, সাংবাদিকতা সবখানেই এখন তারা সরব আলহামদু লিল্লাহ। অনলাইন মিডিয়াতে কওমিদের টেনে আনতে যেসব ব্যক্তিত্ব অসাধারণ অবদান রেখেছেন তাদের সবার নাম নিলে এই লেখা অনেক লম্বা হয়ে যাবে। তবে দুইজন মুরব্বির নাম না নিলে সেটা অকৃতজ্ঞতা হয়ে যাবে, যারা অনলাইন মিডিয়াতে কওমি জগতের জন্য রাহবার হিসেবে কাজ করেছেন ও করে যাচ্ছেন। তাদের একজন হলেন হযরত মাওলানা ডক্টর আফম খালিদ হোসেন সাহেব, আর অন্যজন হলেন মুহতারাম মাওলানা শরিফ মুহাম্মদ সাহেব। তাদেরকে আল্লাহ উত্তম বিনিময় প্রদান করুন।

সেই থেকে একে একে অনেক ইসলামী পত্রিকার আবির্ভাব ঘটেছে আলহামদু লিল্লাহ। যেমন ইসলাম টাইমস, উম্মাহ, ফাতেহ, আওয়ার ইসলামসহ আরো অনেক। এভাবেই পথ চলা। এভাবেই আমারা নিজেদের উপস্থিতির জানান দিতে পেরেছি ইসলামী পত্রিকাগুলোর মাধ্যমে। যোগ্য, সচেতন, জ্ঞানী, মেধাবী কওমি আলেমদেরকে আল্লাহ উত্তম বিনিময় প্রদান করুন, যারা অল্প দিনেই মিডিয়া জগতে তাদের সরব উপস্থিতির মাধ্যমে দেশ ও জাতির পক্ষে অবদান রেখে যাচ্ছেন।

কওমি জগত সচেতন হলে এদেশের স্বাধীনতা সুদৃঢ় হবে তা সন্দেহাতীতভাবে বলা যায়। কারণ কওমি জগতের ওলামায়ে কেরাম সব সময় দেশের পক্ষে জান বাজি রাখতে প্রস্তুত ছিল, আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। বিভিন্ন দুর্যোগের সময় তারা সাধারণ মানুষকে যেভাবে নিঃস্বার্থভাবে সাহায্য করেছেন তা বলতে গেলে নজিরবিহীন। বর্তমানে করোনা মহামারির এই দুঃসময়ে যখন মানুষ নিজেদের আত্মীয়স্বজনদেরকে পর্যন্ত দূরে ঠেলে দিচ্ছে, সন্দেহজনক রোগীদেরকে বাড়ী থেকে বের করে দিচ্ছে আর মৃতদের কাফন-দাফনের ব্যবস্থা করতে ভয় পাচ্ছে, ঠিক তখনই একদল কওমি আলেম নিজেদের জীবন ঝুঁকিতে ফেলে হলেও মানবতার সেবায় এগিয়ে এসেছেন। তারা হিন্দু মুসলিম নির্বিশেষে করোনা রোগে মৃত যে কোনো মানুষকে তাদের ধর্মীয় রীতিনীতি অনুযায়ী কাফন-দাফন ইত্যাদি করে যাচ্ছেন। কারণ ইসলাম মানুষকে মানুষের মর্যাদা দিতে শেখায়। এমনকি মৃত মানুষের মর্যাদা দেয়ার বিষয়টিও ইসলামের শিক্ষা। সর্বোপরি তারা দেশপ্রেমিক। দেশপ্রেমিক বলেই তারা যে কোনো দুর্যোগের সময় দেশ ও জাতির সেবায় এগিয়ে আসে। এই কওমি জগতের বিপক্ষে যখনই যারা যে কোনো ধরণের বিরোধিতায় লিপ্ত হবে তারা নিঃসন্দেহে দেশের শত্রু হিসেবে প্রমাণিত হবে।

ইনসাফের ষষ্ঠ বর্ষ পূর্তিতে আমি ইনসাফসহ সমস্ত ইসলামী পত্রিকার দীর্ঘায়ু কামনা করছি এবং ইসলামী পত্রিকাগুলোর সাথে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সাথে সাথে কওমি ছাত্রদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি একটি দরকারি বিষয়ে। আর তা হলো আপনারা অনলাইনে কী লিখবেন? আর কী লিখবেন না? কীভাবে লিখবেন? আর কীভাবে লিখবেন না? ফিকহি ও ইখতেলাফি বিষয়াদিতে কীভাবে কী বলবেন? আর কী বলবেন না? কোনও ইসলামী ব্যক্তিত্ব বা দাঈর ব্যাপারে অথবা কোনো ইসলামী দলের ব্যাপারে কতটা কী বলবেন? কীভাবে বলবেন? আর কী বলবেন না? এইসব বিষয়ে অভিজ্ঞদের কাছ থেকে আগে শেখার চেষ্টা করবেন। মনে রাখবেন আপনারা এদেশের স্বাধীনতা ও দীন ইসলামের রক্ষক। আপনার কথাবার্তা কেমন হওয়া উচিৎ আর কেমন হওয়া উচিৎ নয় তা অভিজ্ঞদের কাছ থেকে অবশ্যই জেনে নেয়ার চেষ্টা করবেন। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তার দীনের খেদমত করার তাওফিক দান করুন।

spot_imgspot_img
spot_img

আরও