Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইনসাফ ইসলামী ঘরানার পত্রিকার পথপ্রদর্শক

মুহাম্মাদ ইরফান হাওলাদার | সাঈদ নূরসী গবেষক


যখন আমি এইচএসসি পড়ি তখন ইংলিশ ফর টুডে বইতে পাওয়ার অফ মিডিয়া শিরোনামে একটা গল্প ছিলো। গল্পটা এমন প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় যখন চারিদিকে যুদ্ধের ঘনঘটা সেই সময় রেডিও অনুষ্ঠানে এমন কিছু কথা প্রচার করা হয় যা জনমনে ভীতির সৃষ্টি করে। চারিদিকে যুদ্ধের আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

সারা দেশের মানুষ দ্রুত নিজের বাড়ি ফিরতে মড়িয়া হয়ে উঠে। রাস্তায় দীর্ঘ ট্র্যাফিক জ্যামের সৃষ্টি হয়। কিন্তু আসলে পরবর্তীতে জানা যায় যে রেডিওতে যুদ্ধে সংক্রান্ত একটি কবিতা পড়া হয়েছিল। কিন্তু মানুষ সেটাকে ভুল বুঝে। এর কারন ঐ সময় সকলের কাছে রেডিও ছিলো একমাত্র প্রচার মাধ্যম। মানুষ রেডিওর ঘোষণা অনুযায়ী যুদ্ধের পরিস্থিতি অনুধাবন করতে পারতো।

তো দেখা গেলো রেডিওর অসতর্কভাবে কিছু অনুষ্ঠান প্রচারের ফলে পুরো দেশে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

ঐ গল্পের মূল যে ম্যাসেজ আমাদের জন্য ছিলো সেটা হলো মিডিয়া বা প্রচার মাধ্যমের গুরুত্ব। প্রচার মাধ্যমের ক্ষমতা। একটি প্রচার মাধ্যম চাইলেই একটি জাতির রাতের ঘুম হারাম করতে পারে।

আসলেও প্রচার মাধ্যম তরিৎ গতীতে মানুষকে প্রভাবিত করে। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রর অবদান সকলেরই জানা রয়েছে।

এতো গেল অতীতের কথা, বর্তমানেও আমার মিডিয়ায় গুরুত্ব নিজ চোখ দেখতে পাই। তুর্কীতে বহিশত্রুর দ্বার যে সেনা বিদ্রোহ হয়েছে তা ভন্ডুল করে দেয় প্রেসিডেন্ট এরদোগানের কয়েক মিনিটের ইউটিউবে এবং পরবর্তীতে বিশেষ ব্যাবস্থায় টিভিতে দেয়া বক্তব্য। আরও লক্ষণীয় তুর্কীর বীদ্রোহীরাও প্রথমে যেসকল জিনিস নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছিলো তার মধ্যে সকল ইলেকট্রনিকস এন্ড প্রিন্ট মিডিয়া ছিলো।

মিডিয়ার গুরুত্ব আমরা অনেক দেরিতে বুঝতে পারলেও ইহুদি এবং খৃষ্টানরা তাদের মিডিয়াকে আমাদের বিরুদ্ধে ব্যাবহার করে আসছে বহু আগে থেকেই। উসমানী খেলাফতের পতন মূহুর্তে সুলতান আব্দুল হামিদ ইহুদি প্রভাবিত এবং মালিকানাধীন পত্রিকার দ্বারা নিজ জনগণের কাছেই হয়েছে রক্ত পিপাসু সুলতান। এমনকি ইহুদিদের পত্রিকার মিথ্যা সংবাদের কারনে সুলতান তার জনগণের আস্থা হারায়। পত্রিকাগুলো তাদের লেখনির মাধ্যমে জনমনে খেলাফতের বিরুদ্ধ উসকে দেয়। গনতন্ত্রের উদারতাকে তাদের চোখে উন্নতির মোড়কে তুলে ধরে। এমনকি আরব তুর্কী বিদ্রোহের জন্য ঐসব পত্রিকার মিথ্যা সংবাদ ছিলো অন্যতম মৃল কারণ।

বর্তমানেও বিশ্ব মিডিয়ার প্রায় সিংহ ভাগই ইহুদিদের দখলে। এর দ্বারা তারা আমাদের সাংস্কৃতিক আগ্রাসন করছে। মিশরের হোসনি মোবারকের পতনের পিছনেও শক্তিশালী সামাজিক প্রচার মাধ্যম ফেসবুকের ভূমিকা ছিলো। সবচেয়ে অবাক হবেন মুসলিম বিশ্বের বিষফোড়া ইসরায়েলের স্বপ্নদ্রষ্টা থিওড্রো হ্যারজাল যাকে ইসরায়েল তাদের রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে তিনি সাংবাদিক ছিলেন। তার সংবাদপত্রের কলাম পড়ে খোদ খলিফা আব্দুল হামিদের ঘরেও খেলাফত বিরোধী লোক তৈরি হয়েছিল।

আসলে পাওয়ার অফ মিডিয়া নিয়ে বলতে গেলে বলে শেষ করা যাবে না। আর এটাকে অস্বীকার করা হবে দিনের বেলা সূর্যকে অস্বীকার করার মতো। আমাদের সকলের শ্রদ্ধেয় হাফেজি হুজুরের মানিক মিয়া এভিনিউর জনসমাবেশে কোন মিডিয়ার প্রচার না করার পরে উনি বলেছিলেন আমাদের কিছু মিডিয়াও দরকার। উনি বুঝতে পারলেও আমাদের শুরুটা হয়েছে অনেক দেরিতে, যদিও লেটার ইজ বেটার দ্যেন নেভার। ইনসাফ এই দিকে দেশের ইসলামী ঘরানার প্রথম পত্রিকা হিসেবে পথপ্রদর্শক হয়েছে। তার ধারাবাহিকতায় এখন আরও অনেকগুলো পত্রিকা যাত্রা শুরু করেছে। যদিও সবগুলোর আরও বহু মান উন্নয়নের দিক রয়েছে। কিন্তু যেহেতু শুরু হয়েছে ইনশাআল্লাহ আজ না হয় কাল পূর্ণতা পাবেই।

আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো যেগুলো রয়েছে সেগুলোকে পৃষ্ঠপোষকতা করা। যাতে আমাদের মিডিয়াগুলো নক্ষত্রের পতনের মতো না হয়। সকলের নিজ নিজ অবস্থান থেকে আমাদের সকল মিডিয়াগুলোর পৃষ্ঠপোষকতা করা অতি জরুরি নিজেদের অস্তিত্বের লড়াইয়ের জন্যই।

হাটি হাটি পা পা করে ইনসাফ আজ ৬ষ্ঠ বছর থেকে ৭ম বছরে পর্দপন করেছে। ইনসাফের জন্য দোয়া এবং শুভকামনা। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে ইনসাফের সাথে সংবাদ প্রচারেে ধারাবাহিকতা বজায় থাকুক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *