Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইনসাফ : ইসলামী ঘরানার চেতনা গড়ার প্রতিষ্ঠান

সালমান সাইফ | শিক্ষার্থী : ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স ও সাংবাদিক : যুবকণ্ঠ


ইনসাফ পত্রিকা! শুধুমাত্র একটি প্রতিষ্ঠান নয়, একটি ইসলামী ঘরানার চেতনা গড়ার প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে পত্রিকাটি অর্ধযুগ পেরিয়ে ৭ম বর্ষে পদার্পণ করেছে। এজন্য তাদের অসংখ্য শুভকামনা ও শুভেচ্ছা রইলো।
ভাবা যায়? এদেশে যখন সব জায়গায় তথাকথিত হলুদ মিডিয়ার বিচরণ, ঠিক তখন তাদের সাথে পাল্লা দিয়ে একেবারে নাকের ডগায় বসে ৬ বছর পার করে ৭ম বছরে চলছে তাঁদের যাত্রা!

ইনসাফ এদেশে প্রথম ইসলামী ঘরানার কোন মিডিয়া হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো ৬ বছর আগে! ইনসাফ সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার স্যারের অতুলনীয় পরিশ্রমের ঘাম আর মেধায় ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম আজ লাখো পাঠকের পত্রিকা।ইনসাফের পরপরই এদেশে আরো কয়েকটি ইসলামী মিডিয়া প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তারাও সুন্দর কাজ করে যাচ্ছে।

একটা সময় দেশে যখন হলুদ মিডিয়া প্রতিনিয়ত ইসলামকে ব্যঙ্গ-কটাক্ষ্য করে সংবাদ প্রকাশ করতো, তখন আমাদের মাঠে ময়দানে আন্দোলন করা ছাড়া কোন উপায় ছিলোনা। যেটা কখনো কখনো সুফলের পাশাপাশি কুফলও বয়ে আনতো।

তখন উলামায়ে কেরামের নেতৃত্বে বা তাদের পাশে দাঁড়ানোর মতো এমন কোন মিডিয়া ছিলোনা যে তাদের করা সংবাদের জবাব আরেকটা সংবাদের মাধ্যমেই দিবে। কিন্তু ইনসাফ আসার পর তাদের জবাব গুলো এখন সংবাদের মাধ্যমে আমরা দিতে পারি। যেটা ইনসাফের জন্য সম্ভব হয়েছে!

কোন প্রতিপক্ষ হয়ে নয়, বরং সত্যটা কে প্রকাশ্যে আনে ইনসাফ। তথ্যনির্ভর সংবাদ প্রকাশ করে তাঁরা। মিডিয়ায় যেখানে নাস্তিক মুক্তমনা গুলোর বসবাস সেখানে ইনসাফ আজ বীরদর্পে এগিয়ে যাচ্ছে তাদের সুন্দর কাজের মাধ্যমে।

আমাকে যদি জিজ্ঞেস করা হয় ইনসাফের কী কী ভালো লাগে?আমি প্রথমের সম্পাদক সাহেবের কথা বলবো। যে মানুষটা না থাকলে হয়তো ইনসাফের আজ এই পর্যন্ত আসা হতোনা। হয়তো ইনসাফ নামে কোন অনলাইন পত্রিকার জন্মই হতোনা। এইতো বছরখানেক আগে ইনসাফে সাংবাদিকতার উপর ট্রেনিং করেছি তখন খুব কাছ থেকে স্যার কে দেখার সুযোগ হয়েছে, মিশেছি স্যারের সাথে, কথা হতো অনেক বিষয়ে, স্যারের প্রতিটা কথা থেকেই শেখার অনেক কিছু থাকে।

যদি কেউ জিজ্ঞেস করে ইনসাফের খারাপ লাগে কি কি? তাহলে একটা কথায় বলবো এখনো পর্যন্ত খারাপ লাগার মতো কিছু পাইনি। যদি কখনো পাই সেটা না হয় স্যার কে ফোন দিয়ে জানিয়ে দিবো। তারপরও যদি বলে দেখেন কোন খারাপ দিক বের করা যায় কী না! তাহলে একটু রাগান্বিত হয়েই বলবো হ্যা অনেক খারাপ দিক আছে! তার মধ্যে কয়েকটা খারাপ দিক তুলে ধরি, ইনসাফ কখনো তৈলাক্ত খবর প্রকাশ করেনা। কাউকে খুশি করতে ব্যক্তিগত আক্রোশ নিয়ে কখনো খবর প্রকাশ করেনা। হ্যা আরোও খারাপ দিক হলো ইনসাফ নিয়ে কোন নেতিবাচক আলোচনা সমালোচনা হয়না।

আজকাল দেখা যায় মিডিয়াগুলোর প্রধান উদ্দেশ্য থাকে কীভাবে তারা সবসময় আলোচনা সমালোচনায় থেকে নিজেদের টিআরপি বাড়াবে। কিন্তু সেই জায়গায় ইনসাফ দেখিয়ে দিয়েছে যে নেতিবাচক আলোচনায় থাকা ছাড়াও একটা পত্রিকার র‍্যাংকিং বাড়ানো যায়। ভালো কাজের মাধ্যমে জনমানুষের পাঠক হওয়া যায়। তথ্যনির্ভর সংবাদ প্রকাশ করে মানুষের আস্থাশীল হওয়া যায়।

হ্যাঁ, আরো খারাপ দিক হলো ইনসাফের সম্পাদক সর্বমহলে একজন গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি। যার গুণের মহিমায় ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম আজ ৭ বছরে পা দেয়া হাতেগড়া সন্তান।এরকম আরো অসংখ্য দিক তুলে ধরা যাবে যেগুলো কে আমি আমার ভাষায় খারাপ খারাপ বলতে পারিনা। বাকিটা লাখো পাঠকের বিবেচনায় ছেড়ে দিলাম।

আল্লাহ্ সুবহানু তাআ’লা যদি চান, ইনসাফ কে ভবিষ্যতে পাঠকের হাতে হাতে দেখতে চাই। যেখানে অনলাইনের পাশাপাশি অফলাইনেও তাদের দৌড় থাকে বীরদর্পে। দৈনিক ইনসাফ ই-পেপার যেন প্রতিটা ঘরে ঘরে থাকে সেই স্বপ্ন দেখি।

পরিশেষে ইনসাফের সকল কর্মকর্তাদের অসংখ্য ভালোবাসা অভিনন্দন। এগিয়ে যাক পাঠকের ভালোবাসার ইনসাফ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *