Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

ইনসাফ : অর্ধযুগের গল্প

মারজান চৌধুরী | নির্বাহী সম্পাদক : ইনসাফ


অর্ধযুগ আগে শীতের শেষ দিকে শাহবাগে উত্তাপ ছড়িয়েছিল একটি গনজমায়েত। কিন্তু এর নেপথ্য কাহিনী জানতে বেশি সময় লাগেনি। তাই দেশ ও ইসলাম বিরোধী শক্তির নেতৃত্বে গড়ে উঠা সেই জমায়েত সাধারণ মানুষ বয়কট করা শুরু করে। শীতের শেষে দেখা মিলে বসন্তের। মুক্তিকামী জনতার ঢল নামে শাপলায়। ২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল, স্মরণকালের বৃহৎ লংমার্চ দেখে দেশবাসী। দেশপ্রেমিক তৌহীদি জনতা দাবি আদায়ে আল্টিমেটাম দেয়। সেই দাবি আদায় না হওয়ায় ৫ মে বিশ্ববাসী দেখে এক নজিরবিহীন জনসমাবেশ। নতুন এক সূর্যোদয়ের অপেক্ষায় যখন প্রহর গুনছিল মুক্তিপাগল জনতা, ঠিক তখন রাতের আঁধারে লাখো কোটি জনতার জোয়ার থামিয়ে দেয়া হয়।

এরপর থেকেই সবকিছু ঘোলাটে হতে থাকে। দেশের পরিস্থিতি থমথমে। চারিদিকে দালাল মিডিয়ার রাজত্ব। এভাবে কেটে যায় একটি বছর। ২০১৪ সালের ৫ মে মজলুমের আশার আলো হয়ে জন্ম নেয় ইনসাফ।

আমরা জানি মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল তিনটি বিষয়ের উপর ভিত্তি করে। সেগুলো হল- সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও ইনসাফ। এই তিনটি বিষয় ছিল মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা। পাকিস্তান অর্জনের জন্য একসময়ে যে জাতি সংগ্রাম করেছিল, সেই জাতি পাকিস্তানিদের মধ্যে ইনসাফ না থাকায় তাদের বিরুদ্ধেই অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিল। যার ফলশ্রুতিতে আমরা পেয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশ। তবে বর্তমানে বাংলাদেশেও ইনসাফের অনুপস্থিতি প্রকটভাবে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এসব কিছুও ইনসাফের উত্থানে ভূমিকা রেখেছে।

ইনসাফ যাত্রা শুরুর পর অনুসরণ করার মতো কাউকে পায়নি। তাই আদর্শের উপর অটল থেকে ইনসাফের দীর্ঘ এই যাত্রা নতুন এক আদর্শিক ধারার জন্ম দিয়েছে বলা যায়। এখানে সবার প্রতি ইনসাফ করা হয়, কারো প্রতি জুলুম করা হয় না। নির্দিষ্ট দল বা ধর্মের প্রতি অন্ধ বিশ্বাস বা বিদ্বেষ কোনটিই পোষণ করা হয় না। এখানে সত্যকে সত্য এবং মিথ্যাকে মিথ্যা হিসেবেই উপস্থাপন করা হয়। ইনসাফ জুলুমের বিরুদ্ধে, মজলুমের পক্ষে সবসময়। ইনসাফ মানবতার কথা বলে, সাম্যের কথা বলে, ন্যায়ের কথা বলে। এখানে অন্যায়ভাবে কাউকে সন্ত্রাসী বানিয়ে দেয়া হয় না, ভিলেনকে হিরো বানিয়ে দেয়া হয় না, হিরোকে ভিলেন বানিয়ে দেয়া হয় না। সংখ্যাগরিষ্ঠের মত ও সংখ্যালঘুদের মতকে সমান গুরুত্বের সঙ্গে দেখে ইনসাফ।

আজ অনেকেই ইনসাফকে অনুসরণ ও অনুকরণ করছে আলহামদুলিল্লাহ্‌। ইনসাফের আত্মপ্রকাশের পূর্বে দেশের গণমাধ্যমের অবস্থা সকলের মোটামোটি জানা আছে। সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতকে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি তাদেরকে আক্রমণ করাও রীতিমতো অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল গণমাধ্যম নামধারী এসব গণবিরোধী মাধ্যমের। কিন্তু অর্ধযুগ পরে এখন কথিত মূলধারার গণমাধ্যমের চরিত্র অনেকটাই পাল্টেছে। এতোটা পাল্টেছে যে, ইসলামী ঘরানার সংবাদকে অনেক ক্ষেত্রে ইসলামী মিডিয়ার চেয়েও গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশ করছে তারা। এটি নিঃসন্দেহে ইনসাফের সাফল্য, আলহামদুলিল্লাহ্‌। সেইদিন আর বেশি দূরে নয়, যেদিন আমাদের মিডিয়া বিপ্লবের স্বপ্ন বাস্তবে রূপ নিবে।

বিশ্বের সব প্রভাবশালী মিডিয়ার নিজস্ব তহবিল রয়েছে। তারা এমনকি নিউজের মধ্যেও সাহায্যের ব্যানার যুক্ত করে দেয়। তাছাড়া নির্দিষ্ট এজেন্ডা বাস্তবায়নে তারা যে পরিমাণ পৃষ্ঠপোষকতা পায়, ইসলামী মিডিয়া পায় না, আমাদের ব্যর্থতা এই যায়গায়, এটি স্বীকার করতেই হবে।

আমি মারজান হোসাইন চৌধুরী। ইনসাফের সবচেয়ে পুরনো কর্মী। ২০১৪ সালে অর্থাৎ প্রতিষ্ঠালগ্নেই ইনসাফে যুক্ত হয়েছি। শুরুতেই নির্বাহী সম্পাদক হওয়ার মত যোগ্যতা নিয়ে ইনসাফে যুক্ত হইনি। প্রতিনিধি থেকে শুরু করে বার্তাবিভাগের দায়িত্ব, এরপর সহকারি সম্পাদক, সর্বশেষ নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি।

‘অর্ধযুগ’ এটা হয়তো যে কারো কাছে খুবই সাধারণ একটি শব্দ, কিন্তু আমার কাছে মোটেও তেমন নয়। আমার কাছে এটি বিশাল গুরুত্বপূর্ণ ওজনদার একটি শব্দ। সময়ের কথা যদি বলি, ৬ বছর অনেকের কাছে চোখের পলক ফেলার মতো একটি সময়। কিন্তু আমার কাছে সময়টি দীর্ঘ। আমার কাছে এমন মনে হওয়ার কারণ হচ্ছে চলার পথ মসৃণ না হওয়া। এই দীর্ঘ সময়ে ইনসাফের উপর দিয়ে বয়েগেছে অসংখ্য ছোট-বড় ঝড়। কখনো অফিস কেন্দ্রিক, কখনো শুধু পত্রিকা কেন্দ্রিক, আবার কখনো প্রশাসনিক, এসবকিছুর সাক্ষী আমি।

জনাব সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার। তিনি ইনসাফের সম্পাদক ও প্রকাশক। নিজের সন্তানের মতো আগলে রেখেছেন ইনসাফকে। আমি তার কাছ থেকেই যোগ্যতা অর্জন করেছি, এতদূর আসতে পেরেছি। শুধু আমি নয় ইনসাফের সাথে সংশ্লিষ্ট বাকিরাও তাঁর কাছ থেকেই শিখেছেন, যোগ্যতা অর্জন করেছেন। এরপর স্ব স্ব পদে আসীন হয়েছেন।

অসাধারণ ব্যক্তিত্বসম্পন্ন একজন মানুষ তিনি। ইনসাফের জন্য তিনি সবকিছু উৎসর্গ করেছেন। কল্পানাতিত সুন্দরভাবে মোকাবিলা করেছেন সব সংকট। খেয়ে না খেয়ে, দিনকে রাত করে, রক্তকে পানি করে কাজ করেছেন এখনো করছেন, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত করে যাবেন বলে আমাদেরকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ইনসাফ পরিবারের বাহিরের কারো কাছে এসব কিছুকে বাড়িয়ে বলা মনে হতে পারে। কিন্তু আমি বলব, আল্লাহকে সাক্ষী রেখেই আমি এসব বলছি।

ইনসাফের সঙ্গে যারা যুক্ত তারা বেশিরভাগই দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত। কেউ মাদ্রাসার শিক্ষক, আবার কেউ ছাত্র। ভার্সিটি পড়ুয়া ছাত্ররাও আছেন এখানে। রয়েছেন আলেম ও মুফতি। অসাধারণ সমন্বয় হয়েছে ইনসাফের টীমে, যা হয়তো আর কোথাও দেখা যাবে না। এখানে যারা কাজ করে তারা দ্বীনের জন্য কাজ করে, দেশের জন্য কাজ করে, এছাড়া অন্য কোন উদ্দেশে নয়।

দেখতে দেখতে ৬বছর পেরিয়ে ৭ম বর্ষে পদার্পণ করলো বাংলাদেশের ইসলামী ঘরানার প্রথম ও জনপ্রিয় অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ। আমি ভাবতাম ইনসাফ হবে ‘বাংলাদেশের আলজাজিরা’। কিন্তু এখন আর ভাবি না। এখন আমি যেটা ভাবি, সেটা হল, ইনসাফ ‘ইনসাফ’ই হবে। কারণ এর নিজস্বতা আছে। অন্যদের মতো জগাখিচুড়ি মার্কা আদর্শ বা ধার করা আদর্শ নিয়ে ইনসাফ চলে না। আর এজন্য এটা বলতে দ্বিধা নেই যে, সত্যিই ‘ইনসাফ আস্থার প্রতীক’।

সঙ্গত কারণে ৫ ও ৬ মে আমরা প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে পারিনা। তবে মে মাসের কোন এক তারিখে আমরা প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করি। কিন্তু এবার বিশাল প্রস্তুতি থাকার পরও বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের (কোভিড ১৯) কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমরা আড়ম্বরপূর্ণ কোন অনুষ্ঠান করতে পারিনি। তাই অনলাইনে অনাড়ম্বরপূর্ণ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে।

আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই সহযোদ্ধাদের যারা শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ছিলেন এবং আছেন। দর্শক ও পাঠকদের নিকট আমরা চিরকৃতজ্ঞ। আপনাদের ভালোবাসা না থাকলে এই লম্বা পথ পাড়ি দেয়া কোনভাবেই সম্ভব ছিল না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *