Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

আয়া সোফিয়া: পশ্চিমারা যে তথ্য গোপন করছে (প্রথম পর্ব)

মুহাম্মাদ গোলাম রব্বানী ইসলামাবাদী | গবেষক ও রাষ্ট্রচিন্তক


ইসলাম ও মুসলিমদের প্রতি পাশ্চাত্যের দৃষ্টিভঙ্গী সবসময়েই সন্দিগ্ধ হয়ে এসেছে। তাদের প্রচার-মাধ্যম, প্রশাসনিক দৃষ্টিভঙ্গী ইত্যাদিতে মুসলমানদের প্রতি একটা বিরূপ-দর্শন বিভিন্ন প্রকাশে স্পষ্ট হয়ে ওঠে। সম্প্রতি তুরস্কের আয়া সোফিয়াকে নিয়ে আন্তর্জাতিক বিশ্বের প্রতিক্রিয়া সে-কথাকেই জানান দিচ্ছে। পাঠকদের জানা থাকা দরকার, তুরস্কের বিখ্যাত মসজিদ আয়া সোফিয়া: যা কুসতুনতুনিয়া (Constantinople) বিজয়পূর্ব ‘সেন্ট সুফিয়া’ নামে খৃষ্ট সমাজের কাছে পবিত্র গীর্জা হিসাবে প্রসিদ্ধ ছিলো। রোমান ক্যাথলিক এবং অর্থডক্স—উভয় শ্রেণীর জন্য সেন্ট সোফিয়া ছিলো পবিত্র একটি উপসনালয়। ইতিহাসে দেখা যায়, প্রথম রোমান সম্রাট জাসটিনিয়ানের নির্দেশে ৫৩২ ঈসায়ী সালে এর নির্মাণকাজ শুরু হয়ে ৫৩৭ সালে শেষ হয়। ১৪৫৩ সালে ইসলামের মহান সিপাহসালার সুলতান মুহাম্মাদ ফাতেহ’ রহ.-র হাতে কুসতুনতুনিয়ার পতনের আগ পর্যন্ত দীর্ঘ ৮৯৮ বছরব্যাপী বর্তমানের আয়া সোফিয়া সেন্ট সুফিয়া নামে ঈসায়ী সমাজের গীর্জাঘর হিসাবে পরিচিত হয়ে আসে। ১৪৫৩ সালে কুসতুনতুনিয়া বিজয়ের পর সুলতান মুহাম্মাদ ফাতেহ তৎকালীন গীর্জার জাযকদের কাছে সেন্ট সুফিয়াকে ক্রয়ের প্রস্তাব দেন। এতে সেন্ট সুফিয়ার জাযকবৃন্দ একটি লিখিত দলিলের মাধ্যমে সুলতান ফাতেহের কাছে গীর্জাঘরটি ও জমি বিক্রয় করেন এবং সুলতান তা মসজিদের জন্য ওয়াকফ করে একটি ট্রাস্টের কাছে সমর্পণ করেন। সেই থেকে ‘সেন্ট সুফিয়া’ গীর্জাটি আয়া সুফিয়া নামে মুসলিমে বিশ্বের গৌরবোজ্জ্বল মসজিদ হিসাবে পরিচিত হয়ে এসেছে এবং তা রাষ্ট্র হিসাবে তুরস্কের জাতীয় সম্পদ হিসাবে বিবেচিত। ইতোমধ্যে এ সম্পর্কিত সুলতান মুহাম্মাদ ফাতেহের ক্রয়-সনদের (Charter) চিত্র কিছুকিছু ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে। যেহেতু সুলতান ফাতেহ জমি ও স্থাপনা নিজ অর্থে ক্রয় করেছেন, তাই সেটাকে মসজিদে রূপান্তর করে নেন। এরপর থেকে উক্ত স্থাপনায় ঈসায়ী সমাজের আর কোন বৈধ অধিকার বজায় থাকেনি।

খুব সম্ভবত, ২০০৫ সালে একটি তুর্কী এনজিও এই মর্মে আদালতে আর্জি জানায়, আয়া সোফিয়া কুসতুনতুনিয়া বিজয়ী সুলতান মুহাম্মাদ ফাতেহের ব্যক্তিগত সম্পত্তি যা তিনি পরে মসজিদের জন্য ওয়াকফ করে যান। সঙ্গতকারণে তারা ১৯৩৪ সালে কামাল আতার্তুক কর্তৃক আয়া সোফিয়াকে মসজিদ থেকে জাদুঘরে রূপান্তরকরণকে অবৈধ ঘোষণা করে পুনরায় মসজিদ হিসাবে রূপান্তরের আদেশ প্রার্থনা করেন। আদালত পূর্ণাঙ্গ পর্যবেক্ষণোত্তর রায় প্রদান করে বলেন: আয়া সোফিয়া যেহেতু সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ ফাউন্ডেশনের সম্পত্তি, তাই ১৯৩৪ সালে জাদুঘরে রূপান্তরের সিদ্ধান্ত ছিলো সম্পূর্ণ অবৈধ। সুলতানের রেখে যাওয়া সনদ-মোতাবেক এটাতে পরিবর্তনের কোন সুযোগ নেই ( The Council of State ruled that since the Hagia Sophia is owned by the Fatih Sultan Mehmet Han Foundation, it’s status on the deed is listed as a mosque and cannot be changed. The council reasoned Ottoman Sultan Mehmet II, who conquered Istanbul, deemed the property to be used by the public as a mosque without any fees and was not within the jurisdiction of the Parliament or a ministry council. The Council of Ministers’ decision to turn the mosque into a museum was made in 1934, in the early years of the modern secular Turkish state founded by Mustafa Kemal Ataturk. The lawyer of the group seeking to convert the iconic edifice back into a mosque argued that the building was the personal property of Ottoman Sultan Mehmet II. A state attorney, meanwhile, argued that the 1934 decision was legal. He recommended the request be rejected, arguing that a decision on restoring the structure’s Islamic heritage was up to the government, the agency said. (https://www.trtworld.com/turkey/turkish-court-rules-1934-conversion-of-hagia-sophia-into-museum-illegal-38028)।

এখন দেখা যাচ্ছে, আয়া সোফিয়াকে নিয়ে এক ধরনের বিভ্রান্তি তৈরির চেষ্টা হচ্ছে। প্রথমত, এটা মূলত ঈসায়ীদের গীর্জা এবং সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ ১৪৫৩ সালে কুসতুনতুনিয়া দখলের পর সেন্ট সুফিয়াকে বলপূর্বক মসজিদে রূপান্তরিত করেন—এমন ধারণা প্রচারিত হয়ে এসেছে। বিষয়টি নিয়ে আমাদের অনেকের মধ্যেই বিভ্রান্তি দৃষ্টিগোচর হচ্ছে। যুক্তি উত্থাপনের খাতিরে নয়, উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, ১২৩৬ সালে রাজা তৃতীয় ফার্নিনান্ডের (Ferdinand III of Castile) স্পেন বিজয়ের পর কর্ডোভার কেন্দ্রীয় মসজিদকে গীর্জাতে পরিণত করা নিয়ে কোন বিভ্রান্তি হচ্ছে না। অথচ সবাই জানেন, আয়া সোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তরিত করার ক্ষেত্রে সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ ক্রয়-সনদের মাধ্যমে যে স্বচ্ছতা রেখে গিয়েছেন—তা কিন্তু কর্ডোভার ক্ষেত্রে পাওয়া যায়নি। উপরন্তু সম্প্রতি স্পেনের মুসলিমরা ঈসায়ীদের পাশাপাশি কর্ডোভার বর্তমান গীর্জায় নামায পড়ার অনুমতি চাইলে স্পেনের চার্চ ও ভ্যাটিকেন তা প্রত্যাখ্যান করে (Muslims across Spain have lobbied the Catholic Church to allow them to pray in the complex, with the Islamic Council of Spain lodging a formal request with the Vatican. However, Spanish church authorities and the Vatican have opposed this move.-https://en.wikipedia.org/wiki/Mosque%E2%80%93Cathedral_of_C%C3%B3rdoba )। যা হোক, আসলেই সুলতান ফাতিহ সেন্ট সুফিয়া ক্রয় করেছেন কি না, তা নিয়ে মুসলিমদের মধ্যেই অজ্ঞতাবশত সন্দেহ রয়েছে বলে আমার মনে হয়েছে। বিষয়টি সম্পর্কে সন্দেহ নিরসনে কিছু তথ্য এখানে তুলে ধরছি:

প্রথমত, ২০০৫ সালে দায়েরকৃত মামলার আদেশের (ruling) একটি অংশ আমি আগে উল্লেখ করেছি। আদালত সেখানে বলেছে: The Council of State ruled that since the Hagia Sophia is owned by the Fatih Sultan Mehmet Han Foundation, it’s status on the deed is listed as a mosque and cannot be changed. অর্থাৎ, কাউন্সিল অব স্টেট আদেশ প্রদান করছে যে, আয়া সোফিয়া সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ ফাউন্ডেশনের স্বত্বাধীন সম্পত্তি, সনদে এটাকে মসজিদ হিসাবে সজ্ঞায়িত করা হয়েছে এবং এটা কোনভাবেই পরিবর্তনযোগ্য নয়। তাহলে, স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে, বাদী পক্ষ আদালতে দলীল-দস্তাবেজ দিয়ে প্রমাণ করতে পেরেছে: আয়া সোফিয়া সুলতান ফাতিহ জাযকদের কাছ থেকে ক্রয় করেছিলেন।

দ্বিতীয়ত, সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট এরদোগানের বক্তব্যসম্বলিত তুর্কী ভাষায় একটি ভিডিও ক্লিপ ইউটিউবে আপলোড করা হয়েছে (How Ayasofya become property of Sultan Fatih? Tells Erdogan )। ক্লিপটির সাব-টাইটেলে এরদোগানের বক্তব্যের উর্দু অনুবাদ করা আছে। অনুবাদটি পাঠকদের উদ্দেশ্যে এখানে তুলে ধরছি:

کیو کہ آیا صوفیا نہ ریاست کی ملکیت ہے بلکہ وقف اثاثہ ہے- جب سلطان فاتح نے استنبول فتح کیا تو رومن بادشاہ کا عہدہ بھی پالیا-اور اس وجہ سے بازنطین کے نام رجسٹرڈ تمام املاک کے مالک بھی بن گیئے-تو قانون کے لحاظ سے اور اس کی بنائ گئی وقف کے نام ہو گئی- جمہوری دور میں، سرکاری طور پر یہ وراست نامہ نئے الفاظ کے ساتھ تیار کرتے ہو ئے جاری ہوا اور اس کی قانونی حیثیت کو رجسٹر کیا گیا- اگر آیا صوفیا سلطان فاتح کی وراثت نہ ہوتی تو وہ اس کو واقف کرنے کا کوئی قانونی حق نہ رکھتے ہوتے-

(বলা হচ্ছে: কেননা, আয়া সোফিয়া রাষ্ট্রের অধীন কোন সম্পত্তি নয় বরঞ্চ ওয়াকফকৃত সম্পত্তি। সুলতান ফাতিহ যখন ইস্তাম্বুল বিজয় করলেন, তৎকালীন রোমান বাদশাহর ক্ষমতাও পেয়ে গেলেন। সম্রাট বাইজেনটাইনের নামে নিবন্ধিত সব সম্পদের মালিক হয়ে গেলেন সুলতান। গণতান্ত্রিক যুগে সরকারীভাবে সুলতানের উত্তরাধিকার-সনদকে আধুনিক ভাষায় রূপান্তরিত করে জারি করা হয় এবং এর আইনগত অবস্থানকে নিবন্ধিত করা হয়। আয়া সোফিয়া যদি সুলতানের উত্তরাধিকার-স্বত্ব না হতো, তবে তিনি স্থাপনা ও জমি ওয়াকফ করার কোন আইনগত অধিকার পেতেন না।)

তৃতীয়ত, সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ কর্তৃক সেন্ট সুফিয়া ক্রয় করা ও ওয়াকফ করার বিষয়টি কিছুকিছু আন্তর্জাতিক প্রচার-মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। যেমন, বহুল পরিচিত বৃটিশ সাংবাদিক রেডলী (Yvonne Ridley) যিনি ২০০১ সালে আফগানিস্তানে তালিবানের হাতে বন্দী হন এবং ২০০৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে মুক্তি পেয়ে ইসলাম গ্রহণ করেন, Middle East Monitor-র ১৩ই জুলাই ২০২০ সংখ্যায় Hagia Sophia: Religious and political leaders are missing their own chances to right historical wrongs অর্থাৎ, আয়া সোফিয়া: ঐতিহাসিক ভুল সংশোধনে ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নেতারা তাদের সুযোগ হারাচ্ছেন শীর্ষক একটি নিবন্ধ লিখেন। সেখানে তিনি লিখেন: The decision to preserve the church-turned-mosque as a museum had no legitimacy since the Hagia Sophia building and land was protected by a Waqf established by Sultan Mehmet II back in 1453. The original deed confirming this is still in the archives in Ankara. The wealthy Ottoman leader and conqueror of Constantinople, as it was known then, bought the building from the Christian authorities of the day. (বলা হচ্ছে, ১৪৫৩ সালে দ্বিতীয় সুলতান মুহাম্মাদের ওয়াকফ দ্বারা সংরক্ষিত গীর্জা থেকে মসজিদে রূপান্তরিত করা স্থাপনাটিকে জাদুঘর হিসাবে রেখে দেয়ার সিদ্ধান্তের কোন আইনগত বৈধতা নেই। আয়া সোফিয়ার স্থানান্তরের মূল দলীল এখনও আঙ্কারায় সংরক্ষিত আছে। এটা জানা কথা যে, বিত্তশালী উসমানীয় সম্রাট যিনি কুসতুনতুনিয়া জয় করেন, তৎকালীন খৃষ্টান কর্তৃপক্ষ থেকে গীর্জাটি কিনে নিয়েছিলেন।)

চতুর্থত, মূলসূত্র উল্লেখ ছাড়াই কয়েকটি নিউজ পোর্টাল আয়া সোফিয়া সংক্রান্ত কিছু তথ্যের উল্লেখ করেছে। সূত্রের উল্লেখ না থাকলেও তথ্যগুলো আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে। উদাহরণসরূপ, অনলাইন নিউজ পোর্টাল উম্মাহ২৪ ডট কম তাদের ১২ই জুলাই, ২০২০ সংখ্যায় আয়া সোফিয়াকে নিয়ে একটি নিবন্ধ প্রকাশ করে। সেখানে বলা হচ্ছে: ১৪৫৩ সালে উসমানিয়া খলিফা আবুল ফতেহ সুলতান মোহাম্মদ ইস্তাম্বুল বিজয়ের পর খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতাদের কাছে এটি ক্রয় করে নেওয়ার প্রস্তাব দেন। তবে রাষ্ট্রীয় কোষাগারের অর্থে নয়, বরং নিজের ব্যক্তিগত অর্থ দ্বারা। সুলতান দ্বিতীয় মোহাম্মদ (আবুল ফতেহ সুলতান মোহাম্মদ) শত্রু এবং ইতিহাস সম্পর্কে অত্যন্ত বিচক্ষণ ও বুদ্ধিমান ছিলেন। শাসক হিসেবে রাজ্যের কোষাগার কিংবা মুসলমানদের “বায়তুল মাল” থেকে কোনো অর্থের পরিবর্তে তিনি ওই ভবন ক্রয় করার প্রস্তাব দেন একান্ত ব্যক্তিগত সম্পদ দ্বারা, যা ছিল এক নজিরবিহীন পদক্ষেপ।

১৪৫৩ খ্রীস্টাব্দে হরিণের চামড়ার উপর লিখিত খ্রীস্টান ধর্মীয় নেতাদের কাছ থেকে আয়া সোফিয়া ক্রয়ের দলীল এখনও তুরস্কে সংরক্ষিত আছে। খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতারা “আয়া সোফিয়া”কে বিক্রয় করতে সম্মত হওয়ার পর একজন সাধারণ মুসলমান হিসেবেই তিনি ওই সম্পদ ক্রয় করতে একটি ব্যক্তিগত চুক্তি স্বাক্ষর করেন তাদের সাথে, যেটির সাথে প্রশাসনিক কোনো সংশ্লিষ্টতা রাখেননি। লেনদেনটি ক্রয় ও স্বত্বত্যাগের একটি চুক্তির মাধ্যমে নথিভুক্ত করা হয়েছিল, এবং মূল্য পরিশোধের বিষয়টি ভাউচার দ্বারা প্রমাণিত।

এভাবেই “আয়া সোফিয়া” খ্রিস্টানদের কাছ থেকে ক্রয় করে নেওয়ার পরপরই আবুল ফতেহ সুলতান মোহাম্মদ (আল্লাহ তাঁর প্রতি সন্তুষ্ট হউন) সেখানে একটি ওয়াকফ এসোসিয়েশন গঠন করেন এবং আয়া সোফিয়া ভবনটিকে তাদের মালিকানায় দান করে দেন এবং তিনি ওসিয়তনামা লিখে যান। যাতে নিম্নোক্ত কথাও লেখা ছিল- “এই ভিত্তি কেউ যদি পরিবর্তন করে, তার এবং তাদের উপরে আজীবন ধরে আল্লাহ পাকের, নবীজী (সা.) এর, ফেরেস্তাকূলের, সকল শাসকগণের এবং সকল মুসলমানের লানত পড়ুক! আল্লাহ পাক যাতে তাদের কবরের আজাব মাফ না করেন, হাশরের দিনে তাদের মুখের দিকে যাতে না তাকান! এই কথা শোনার পরেও কেউ যদি একে পরিবর্তনের চেষ্টা চালিয়ে যায়, পরিবর্তনের গুনাহ তার উপরে পড়ুক! আল্লাহর আজাব পড়ুক তাদের উপরে! আল্লাহ পাক সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ।”– আবুল ফতেহ সুলতান মুহাম্মদ, (১লা জুন, ১৪৫৩)।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে প্রতীয়মান হয়, আয়া সোফিয়াকে সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ বলপূর্বক তৎকালীন বাইজানটাইন ঈসায়ীদের কাছ থেকে কেড়ে নেননি, যা ঈসায়ী বিজয়ী শাসকেরা দখলকৃত স্থানে মুসলিমদের মসজিদগুলোর সাথে করেছেন। যেমন, স্পেনের কর্ডোভা। উপরোক্ত বিষয়গুলো পাশ্চাত্যের মিডিয়া এবং রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ প্রকাশ্যে স্বীকার করতে নারাজ। তারা কেবল বলে বেড়াচ্ছে, ১৪৫৩ সালে সুলতান ফাতিহ বাইজানটাইন দখল করে ঈসায়ীদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সেন্ট সুফিয়াকে মসজিদে রূপান্তরিত করেন। দুর্ভাগ্যজনকভাবে মুসলিম-সমাজের কিছু অংশ যারা বিষয়টি জানেন না, মনে করছেন, সুলতান ফাতিহ আয়া সোফিয়াকে বলপূর্বক গীর্জা থেকে মসজিদে রূপান্তরিত করেছেন। শুধু তাই নয়, পাশ্চাত্য সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহের বিজয়কে কালিমালিপ্ত করতে ইতিহাসবিকৃতিও ঘটিয়েছে। সবার মনে রাখা দরকার, ১৪৫৩ সালে সুলতানের বাইজানটাইন বিজয় সাধারণ কোন দেশ দখলের বিজয় নয়, বরঞ্চ পবিত্র হাদীসে বর্ণিত রসুলুল্লাহ সা.-র একটি গুরুত্বপূর্ণ ভবিষ্যৎবাণীর বাস্তবায়ন। তাই সুলতান ফাতিহ তার অভিযানের পুরো সময়ে অমানবিক, অসুন্দর ও অন্যায় কোন আচরণ করেননি। পাশ্চাত্য উক্ত বিষয়টি জেনেই ইসলামের মহানবী সা.কে বিতর্কিত করতে সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহ রহ.-র অভিযান নিয়ে ইতিহাসবিকৃতি ঘটিয়েছে। উইকিপিডিয়ার সাম্প্রতিক ইংরেজি সংস্করণে Mosque (1453–1935) উপশিরোনামে বলা হচ্ছে: Constantinople fell to the attacking Ottoman forces on 29 May 1453. In accordance with the traditional custom at the time, Sultan Mehmet II allowed his troops and his entourage three full days of unbridled pillage and looting in the city shortly after it was captured. Once the three days passed, he would then claim its remaining contents for himself Hagia Sophia was not exempted from the pillage and looting and specifically became its focal point as the invaders believed it to contain the greatest treasures and valuables of the city. Shortly after Constantinople’s defenses collapsed and the Ottoman troops entered the city victoriously, the pillagers and looters made their way to the Hagia Sophia and battered down its doors before storming in. All throughout the period of the siege of Constantinople, the trapped worshippers of the city participated in the Divine Liturgy and the Prayer of the Hours at the Hagia Sophia and the church formed a safe-haven and a refuge for many of those who were unable to contribute to the city’s defense, which comprised women, children, the elderly and the sick and the wounded. Being hopelessly trapped in the church, the many congregants and yet more refugees inside became spoils-of-war to be divided amongst the triumphant invaders. The building was significantly desecrated and looted to a large extent, with the helpless occupants who sought shelter within the church being enslaved. While most of the elderly and the infirm/wounded and sick were killed, and the remainder (mainly teenage males and young boys) were chained up and sold off into slavery. [১৪৫৩ সালের ২৯শে মে উসমানীয় বাহিনীর আক্রমণের মুখে কনস্ট্যান্টিনোপোলের (কুসতুনতুনিয়া) পতন হলে সে সময়কার প্রথানুসারে দ্বিতীয় সুলতান মুহাম্মাদ তার বাহিনী ও সঙ্গী-সাথীদেরকে শহর-দখলের পর পূর্ণ তিন দিন পর্যন্ত লাগামহীন লুটতরাজ করে যেতে অনুমতি দেন। এভাবে তিন দিন অতিবাহিত হলে তিনি অক্ষত সম্পদগুলো নিজের বলে দাবি করতেন। আয়া সোফিয়াকেও লুটতরাজের হাত থেকে রেহাই দেয়া হয়নি। বিশেষ করে, আয়া সোফিয়াকে লুটতরাজের কেন্দ্রে পরিণত করা হয়। কারণ, হানাদাররা মনে করেছিলো: এটি শহরের সবচেয়ে দামি সম্পদ এবং এখানে মূল্যবান ধনরত্ন রয়েছে। কনস্ট্যানটিনোপোলের প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ভেঙ্গে যাবার পর উসমানীয় বাহিনী বিজয়ীর বেশে শহরে প্রবেশ করে; লুটতরাজকারীরা আয়া সোফিয়ার দিকে এগিয়ে যায় এবং লুটতরাজ চালাবার আগে তারা সদর দরোজা ভেঙ্গে ফেলে। কনস্ট্যানটিনোপোল দখলের পুরো সময় ধরে আয়া সোফিয়ায় নিয়মিত প্রার্থনাকারীরা আটকে পড়েছিলো এবং গীর্জাঘরটি বৃদ্ধ, অসুস্থ মানুষ, স্ত্রীলোক, শিশু আর যারা যুদ্ধে অংশ নিতে অসমর্থ ছিলো–তাদের জন্য নিরাপদ আশ্রয় হিসাবে গড়ে ওঠে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে চার্চে যারা আটকা পড়েছিলেন, অনেক উপাসনাকারী, এমন কি ভেতরে আশ্রয় গ্রহণকারী–সবাই জয়ী হানাদারদের কাছে ‍যুদ্ধলব্ধ হিসাবে বণ্টিত হয়ে যায়। গীর্জাঘরটি ব্যাপকভাবে ধ্বংস ও লুণ্ঠিত হয়, চার্চের ভেতরে অসহায় আশ্রয় গ্রহণকারীদেরকে ক্রীতদাসে পরিণত করা হয়। সেখানে অক্ষম, আহত ও অসুস্থদেরকে হত্যা করা হয় এবং বাকি যারা ছিলো, বিশেষ করে তরুণ ও যুবক পুরুষদেরকে শিকলে বেঁধে দাস হিসাবে বিক্রি করে দেয়া হয়।]

আসলে কী ঘটেছিলো ১৪৫৩ সালের ২৯শে মে সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহের হাতে কুসতুনতুনিয়ার পতনের দিনে? আপাতত কোন মুসলিম লেখকের আশ্রয় না নিয়ে অমুসলিম কোন লেখকের তথ্য খুঁজতে সচেষ্ট হলাম। কিন্তু অধিকাংশের বর্ণনায় পাওয়া গেল তথ্য লুকানো বা বিকৃতির অপচেষ্টা। তাদের কণ্ঠে এক-ই কথা: কুসতুনতুনিয়া বিজয় করে সুলতান মুহাম্মাদ সেন্ট সুফিয়াকে মসজিদে পরিবর্তনের আদেশ দেন। সাথে উপরের লুটতরাজের ইঙ্গিত তো আছেই। চিন্তার রেখা কপালকে আক্রমণ করতে থাকলো অহরহ। ব্যক্তিগত সংগ্রহে এমন কিছু আছে কি না—সেটা খুঁজতে গিয়ে আল্লাহর মেহেরবানীতে পেয়ে গেলাম সত্তরের দশকে এক মার্কিন ঐতিহাসিক Stanford J. Shaw-র লেখা History of the Ottoman Empire and Modern Turkey গ্রন্থটি। লেখক স্ট্যানফর্ড জে. শ ক্যালিফোর্নিয়া য়ুনিভার্সিটির ইতিহাসের একজন অধ্যাপক ছিলেন। তাঁর লেখা গ্রন্থটি একটি অন্যতম প্রামাণ্য উৎস হিসাবে খ্যাত। সেখানে তিনি লিখেছেন–“While Islamic law would have justified a full-scale sack and massacre of the city in view of its resistance, Mehmet kept his troops under firm control, killing only those Byzantines who actively resisted and doing all he could to keep the city intact so that it could be the center of his world empire. Many inhabitants and soldiers took refuge at the Genoese colony of Galata, across the Golden Horn, which had remained neutral during the siege. This violated its neutrality, but Zaganos made an agreement by which Galata was joined to the Ottoman Empire and its defenses torn down, in return for which its inhabitants were allowed to retain their holdings and gain freedom of religion and trade within the sultan’s dominions. The people of Galata were to retain their properties, but they were to have no tax or customs privileges other than the exemption of their children from the dev§irme tribute imposed in the Balkans.” (HISTORY OF THE OTTOMAN EMPIRE AND MODERN TURKEY, P-57, STANFORD SHAW, Professor of History University of California, Los Angeles, Reprinted: 1978, CAMBRIDGE UNIVERSITY PRESS, USA.)

[ ইসলামী আইন যেখানে সশস্ত্র প্রতিরোধের নিরিখে শহরে একটি পূর্ণমাত্রার আক্রমণের অনুমতি দেয়, সেখানে সুলতান মুহাম্মাদ তাঁর সৈন্যদেরকে পরিস্কার নিয়ন্ত্রণে রাখেন; হত্যা করেন কেবল সেসব বাইজানটাইনকে যারা সক্রিয়ভাবে উসমানীয় বাহিনীকে প্রতিরোধ করেছিলো এবং তিনি শহরটিকে তার সাম্রাজ্যের কেন্দ্রবিন্দু হিসাবে অক্ষত রাখতে সাধ্যমতো সব কিছুই করেছিলেন। অনেক বাসিন্দা ও সৈন্য গোল্ডেন হর্ন অতিক্রম করে গালাতার জেনোস কলোনিতে আশ্রয় নেয়, যেখানকার শাসক শহর দখলের সময় নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করেছিলেন। বাইজানটাইন সৈন্যরা সেখানে আশ্রয় নেয়ায় নিরপেক্ষতা লঙ্ঘিত হয়। কিন্তু শাসক জাগানোস এমন একটি চুক্তি করে যার মধ্য দিয়ে গালাতা উসমানীয় সাম্রাজ্যে যোগ দেয় এবং তাদের সৈন্যরা বৈশ্যতা মেনে নেয়। বিনিময়ে সুলতানের সাম্রাজ্যে গালাতের বাসিন্দারা তাদের বসতভিটা ফিরে পাওয়া, ধর্মীয় স্বাধীনতা অর্জন ও ব্যবসা-বাণিজ্য করার অধিকার পায়। গালাতের বাসিন্দারা তাদের সম্পদ ফিরে পায় এবং তাদের উপর কোন করও আরোপিত হয়নি।]

শুধু তাই নয়, স্ট্যানফর্ড জে. শ তাঁর গ্রন্থের ১৪৩ পৃষ্ঠায় আরও লিখেছেন– “While encouraging contact with the Christian heritage, the promotion of Ottoman Muslim culture remained Mehmet IPs primary aim. Thousands of abandoned and decayed Christian churches were rebuilt as mosques, and medreses were built around them to serve as centers for the new enlightened ulema congregating in Istanbul.” ( অর্থাৎ, খৃষ্টীয় ঐতিহ্যের সাথে যোগাযোগে উৎসাহ দেয়ার সময় সুলতান মুহাম্মাদ ফাতিহের প্রথম লক্ষ্য ছিলো, উসমানীয় সংস্কৃতির বিস্তার। হাজারের মতো পরিত্যক্ত ও ধ্বংসপ্রাপ্ত গীর্জাকে মসজিদ হিসাবে পুনঃনির্মাণ করা হয়; ওগুলোর পাশে মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করা হয় এবং সেগুলোর দেখভালের জন্য প্রখ্যাত আলিম-উলামাকে ইস্তাম্বুলে নিয়ে আসা হয়।) তাহলে দেখা যাচ্ছে, সুলতান ফাতিহ কুসতুনতুনিয়া দখলের পর সাংস্কৃতিক উন্নয়নের জন্য খৃষ্টীয় ঐতিহ্যকে ধ্বংস না করে সমন্বয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। আর যেসব গীর্জাকে তিনি মসজিদে পরিণত করেছিলেন, সেগুলো ছিলো আগে থেকেই পরিত্যক্ত বা ধ্বংসপ্রাপ্ত, যা দেখার জন্য ঈসায়ীদের কেউ ছিলো না। এমন উদাহরণ এখনও য়ুরোপে পাওয়া যাবে, পরিচর্যার অভাবে অনেক গীর্জা মুসলিমরা কিনে নিয়ে মসজিদে পরিণত করেছে। এখন আগামী এক শ’ বছর পরে কেউ যদি অভিযোগ করে বলে বসে: য়ুরোপের অমুক-অমুক চার্চকে মুসলিমরা মসজিদে পরিণত করেছে—সেটা সত্যের মাপকাঠিতে কতোটুকু গ্রহণযোগ্য হবে?

এভাবে আমরা দেখছি, ইস্তাম্বুলের আয়া সোফিয়া ও কুসতুনতুনিয়া বিজয় নিয়ে পাশ্চাত্য প্রচুর মিথ্যাচার ও তথ্যবিকৃতি ঘটাচ্ছে। তারা, বিশেষভাবে ঈসায়ী ধর্মগুরুরা এমনভাবে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে, মনে হতে পারে, সুলতান ফাতিহ জোরপূর্বক গীর্জা দখল করে মসজিদ বানিয়েছেন, সেখানে অত্যাচার-নিপীড়ন চালিয়েছেন ইত্যাদি…ইত্যাদি। উপরের আলোচনা এ জন্যই তুলে ধরলাম যেন পাঠক বুঝতে পারেন, পাশ্চাত্য-নেতারা ও মিডিয়া সুকৌশলে কী গোপন করছে। আমার আশ্চর্য লাগছে , ঈসায়ীদের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস পর্যন্ত সব জেনেশুনে আয়া সোফিয়াকে মসজিদ হিসাবে বহাল রাখার বিরোধিতায় নেমেছেন। এমন কি রাশিয়ার প্রভাবশালী বিশপ হিলারিয়নও মসজিদ হিসাবে আয়া সোফিয়ার বিরোধিতায় নেমে বলেছেন: এটা হবে বিশ্ব খৃষ্টান সম্প্রদায়ের জন্য এক আঘাত।(The influential bishop Hilarion, who heads the Russian Orthodox Church’s department for external church relations, also expressed his sorrow. “It is a blow to global Christianity … For us [Hagia Sophia] remains a cathedral dedicated to the Saviour,” he told. Aljazeera 12.07.2020) অথচ স্পেন আক্রমনের সময় কর্ডোভার কেন্দ্রীয় মসজিদকে যে বলপূর্বক চার্চে পরিণত করা হয়, য়ুরোপের শতশত মসজিদকে আস্তাবলে পরিণত করা হয়, সে বিষয়ে পুরো খৃষ্টান-জগৎ কিন্তু মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছে। এই হচ্ছে তাদের মুখোশের ভেতরের দিক।

মূলকথা হচ্ছে, আয়া সোফিয়া নামের মসজিদটি সাধারণ কোন মসজিদ নয়। এর সাথে জড়িত আছে মুসলমানদের বীরত্ব, আত্মমর্যাদাবোধ ও সভ্যতার দ্বারোম্মচনের অধ্যায়। তাই খৃষ্টান-জগতের মাথাব্যথা হলো, যদি আবারও মসজিদ হিসাবে
আয়া সোফিয়া মাথা উঁচু করে দাঁড়ায়, তবে একে কেন্দ্র করে মুসলিমরা পাশ্চাত্যের বিরুদ্ধে আরও বৃহৎ কোন জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করবে। হতে পারে আয়া সোফিয়ার আবেগকে অবলম্বন করে নতুন প্রজন্মের কোন সুলতান ফাতিহের জন্ম হবে। তাই, পাশ্চাত্য চায় না: মুসলমানরা আয়া সোফিয়ার ইতিহাসের রাস্তায় এ শতাব্দির নতুন কোন ক্রুসেড-বিজয় অর্জন করুক—যা কিনা কর্ডোভার মাযলূম মসজিদসহ হারানো সব মসজিদকে পুনরুদ্ধারের সংকল্পকে বাস্তব রূপ দান করবে। আল্লাহর রহমতের উপর ভরসা করে বলতে পারি, এরদোগানের মহান উদ্যেগে আয়া সোফিয়া এমন এক মসজিদ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করবে, যার আযানের ধ্বনি এ যুগের মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে খিলাফাতে উসমানীয়ার স্বপ্নকে নতুন করে জাগরিত করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *