Warning: sprintf(): Too few arguments in /home/insaf24net/public_html/wp-content/themes/infinity-news/inc/breadcrumbs.php on line 252

আল্লামা কাসেমীকে সম্মান দিতে আমরা কুণ্ঠিত কেনো?

মুফতী এনায়েতুল্লাহ | বিভাগীয় সম্পাদক : বার্তা২৪.কম


একটি ঘটনা বলে লেখাটি শুরু করতে চাই। ঘটনাটি আমার শোনা, বর্ণনাকারী এখনও বিদ্যমান এবং তিনি মানোত্তীর্ণ। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারাদেশের পাঁচশর বেশি জায়গায় জামায়াতুল মোজাহেদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) বোমা হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায়। ফরিদ সাহেব গ্রেফতারের পর অনেক রাজনৈতিক নেতা তার পাশে দাঁড়ায়নি, তার পক্ষে কথা বলেনি। এমন সময় আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমীকে এক সাংবাদিক জিজ্ঞাসা করলেন, মাওলানা ফরিদ কী বোমা হামলার ঘটনায় জড়িত বলে আপনি মনে করেন? তখন কাসেমী সাহেব হুজুর স্পষ্টভাষায় বলেন, না, আমি উনাকে যতটুকু চিনি। তাতে আমার দৃঢ় বিশ্বাস তিনি এ কাজ করতে পারেন না। কোথাও কোনো ভুল হচ্ছে। অথচ ফরিদ যেখানে দীর্ঘদিন বোখারি পড়িয়েছেন (ওই সময় ফরিদ সাহেবের বাসা ওই মাদরাসার পাশে ছিলো) ওই মাদরাসার পদস্থ (নাম-পরিচয় গোপন রাখা হলো) এক শিক্ষককে একই সাংবাদিক জানতে চাইলেন। তখন তিনি উত্তরে বলেছিলেন, শুনেছি, রাস্তার ওপারে মাওলানা ফরিদ নামের একজন থাকেন। তার সাথে আমার সবিশেষ পরিচয় নেই।

ঘটনাটি বলার কারণ হলো, ওই সময় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ বিএনপি-জামায়াত জোটে ছিলেন, এখনও আছেন। আর ওই জোট সরকারের আমলে পাঁচশ’র বেশি স্থানে বোমাবাজির মতো ভয়ঙ্কর অভিযোগে আটক একজনের (যদিও তাদের উভয়ের মাঝে রাজনৈতিক বিরোধ রয়েছে) পক্ষে এভাবে বলা সাহসেরই কাজ বটে। আর এটি মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমীর আছে।

আলোচনা প্রসঙ্গে সর্বশেষ দু’টো ঘটনার ঈঙ্গিত দিয়ে আমি মূল আলোচনায় চলে যাবো।

এক. করোনা পরিস্থিতিতে মসজিদ সংক্রান্ত সরকারি সিদ্ধান্ত এবং আলেম-উলামাদের সমর্থন থাকা সত্ত্বেও মসজিদ খোলে দেওয়ার জন্য বিবৃতি, মিটিং সময়বেঁধে দেওয়ার ঘটনা তার নেতৃত্বে হয়েছে।

দুই. করোনা পরিস্থিতিতে কওম মাদরাসায় সরকারি অনুদানের বিষয়ে তার নেতৃত্বে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। পরে বেফাকের খাস কমিটির তাদের সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী কে?
তিনি একজন শায়খুল হাদিস। তিনি দেওবন্দের আদর্শের ধারক-বাহক। তিন দশকের বেশি সময় ধরে তিনি বোখারির দরস প্রদান করে আসছেন। বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে প্রায় ১৫ হাজারের বেশি ছাত্র তার কাছে বোখারি পড়েছেন।

মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী কে?
এই সময়ে রাজধানী ঢাকার উল্লেখযোগ্য কয়েকজন গ্রহণযোগ্য শায়খুল হাদিসের অন্যতম একজন। বর্তমানে আল্লামা আহমদ শফীর পর সমাজ ও রাজনীতিতে সরব এক রাহবার। বয়সের দিক দিয়েও (সম্ভবত ৭৫) তিনি আল্লামা শফীর পর সিনিয়র।

মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী কে?
তিনি জামিয়া মাদানিয়া বারিধারার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রিন্সিপাল। এ ছাড়া আরও বহু মাদরাসা-মসজিদ প্রতিষ্ঠা ও পরিচলানার সঙ্গে জড়িত। কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিলি আরাবিয়ার সহ-সভাপতি। হাইয়াতুল উলইয়া লিল জাময়িাতিল কওমিয়ার সদস্য। জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব। খতমে নবুওয়াত আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর সভাপতি।

অত্যন্ত সূচারুরুপে এসব দায়িত্ব আঞ্জাম দিয়ে আসছে। বর্তমানে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে তার মতামত জাতিকে পথ দেখিয়ে আসছে। বিভিন্ন বিষযে তার যৌক্তিক দাবির বিষয়ে আলেমদের ঐক্যমত্য প্রমাণ করে তার দূরদর্শিতা।

মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী আপাদমস্তক দেওবন্দি মাসলাকের আলেম। তার ভক্তদের অনেকে তাকে বাংলার মাদানি বলে অভিহিত করেন, এটা তাদের ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ।

আফসোসের কথা
আমি ব্যক্তিগতভাবে হুজুরের ছাত্র নই, তার দলেরও কেউ নই। তবে তাকে যতটুকু চিনি, তাতে আমার মতো আরও অনেকেই একথা স্বীকার করতে বাধ্য হবেন- সাদাসিধে জীবন কিন্তু আদর্শের প্রশ্নে শতভাগ কঠোর।

নীতির ওপর অটল মাওলানা কাসেমী কালক্রমে এখন বৃদ্ধ বয়সে উপনীত। কিন্ত আমরা কী তাকে তার প্রাপ্য সম্মানটুকু দিতে পেরেছি? কেন পারিনি- অন্তত এই প্রশ্ন কিংবা বোধটুকু কী তার ছাত্র-শাগরেদ অথবা দলীয় নেতা-কর্মীদের মনে জাগ্রত হয়েছে কখনও?

মাওলানা নুর হোসাইন কামেসীর ছায়ায় থেকে রাজনীতি করেন, সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন, মসজিদের খতিব, বড় বড় মাদরাসার মুহতামিম, মুহাদ্দিস ও শায়খুল হাদিস হিসেবে পরিচয় দেন- এমন অন্তত শ’খানেক ব্যক্তিকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি, তাদের সঙ্গে আমার বেশ সখ্যতাও রয়েছে। তাদের কাছে খুব আগ্রহ নিয়ে এটা জানতে চেয়েছি, কিন্তু তারা লা জওয়াব! বিষয়টি আমাকে মারাত্মকভাবে আহত করেছে। তাহলে কী মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী তাদের কাছে রাজনীতির সিঁড়ি? স্বার্থসিদ্ধির হাতিয়ার? উত্তর আমার জানা নেই।

আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমীকে সম্মান দিতে আমরা কুণ্ঠিত কেনো?
নানা কারণে আমার মনে প্রশ্নের উদ্রেক হয়েছে, আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমীকে সম্মান দিতে আমরা কুণ্ঠিত কেনো?
তিনি নীতির প্রশ্নে আপোষহীন বলে?
তিনি নেতা-কর্মীদের তাদের প্রাপ্য ও ন্যয্যা সম্মান দেন বলে?
আন্দোলন-সংগ্রামের গতিপথ একটু আগেই অনুধাবন করেন বলে?

একটি উদাহরণ
বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক) বাংলাদেশের কওমি মাদরাসাসমূহের সবচেয়ে বৃহত্তম বোর্ড। তিনি এই বোর্ডের এক নম্বর সহ-সভাপতি। বেফাকের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী রহমাতুল্লাহি আলাইহির ইন্তেকালের পর স্বাভাবিকভাবেই এক নম্বর সহ-সভাপতি হিসেবে তার সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে আসীন হওয়ার কথা। কিন্তু না, তিনি অজানা কোনো কারণে এ পদ থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে।

বেফাকের সিনিয়র সহ-সভাপতি যিনি হবেন, পদাধিকার বলে তিনিই হাইয়াতুল উলইয়ার কো-চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাবেন।

আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী বেফাক এবং হাইয়ার নেতাদের মাঝে কোন দিক থেকে অযোগ্য যে তাকে সেই পদ থকে অন্যায়ভাবে বঞ্চিত করা হলো। তাকে বঞ্চিত করে কিন্তু নতুন কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। বর্তমান মহাসচিবকে ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সভাপতি করা হয়েছে। এখন তিনি একাধারে বেফাকের মহাসচিব, ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র সভাপতি ও হাইয়াতুল উলইয়ার ভারপ্রাপ্ত কো-চেয়ারম্যান।

এ ঘটনায় যে বিষয়গুলো সামনে আসে-
ক. মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমীর ওপর তার স্বগোত্রীয়দের (বেফাক) এতো ক্ষোভ কেন?
খ. মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমীর আশেপাশে থাকা নানা সুবিধাভোগীরা তার জন্য কী করেছেন?
গ. মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী কখনও পদ প্রত্যাশী ছিলেন না, এখনও নন। তিনি প্রচারবিমূখ মানুষ। কিন্তু তার শাগরেদ, ছাত্র ও দলীয় নেতা-কর্মীদের কী কোনো দায় নেই।
ঘ. মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমীকে ঘিরে থাকা গুটিকয়েক লোক কী তবে তাকে ধীরে ধীরে জনবিচ্ছিন্ন করে তুলছেন? না হলে, কেন তাকে তার প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হবে?

বিষয়টি আদর্শগত লড়াই, সত্য প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম। এখানে ভিন্ন ব্যাখ্যার কোনো সুযোগ নেই। সুতরাং মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমীকে ঘিরে থাকাদের এটা বুঝতে হবে, সে অনুযায়ী কর্মপন্থা নির্ধারণ করতে হবে। তারা এটা করতে না পারলে তাদের পরিত্যাগ করাই হবে শ্রেয়তর কাজ।

এ বিষয়ে মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমীর শাগরেদ ও নেতাকর্মীদের মনে রাখতে হবে, বাইপ্রোডাক্টদের সঙ্গে নিয়ে কোনোভাবেই লক্ষ্য হাসিল সম্ভব নয়। কাণ্ডজ্ঞানহীন ঠুনকো সেনাপতি দিযে সাময়িক কাজ হাসিল হয় বটে, আখেরে স্থায়ী কিছু হয় না। বাক্যবাগীশ তালপাতার সেপাইদের ওপরে আদর্শকে স্থান দান করাই কর্তব্য। অতীতের ফতুর ও দেউলিয়া এবং নানা দ্বারে করুণা ভিক্ষাকারীদের সঙ্কট উত্তরণে সংযুক্ত করার মানেই হলো- বোঝা বাড়ানো। যারা যথাসময়ে তাদের প্রাচীন রক্ত ও সুপ্তভাবে লালিত বিশ্বাসের পক্ষেই কথা বলবে। রাজনীতির আদি প্রভুর চরণের দিকেই তারা ঠাঁই খুঁজে নেবে। এতটুকু সরল সত্য অনুধাবনে ইতিমধ্যে কারোই অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

পুনশ্চ: আলোচ্য লেখার বিষয়ে অনেকের দ্বিমত রয়েছে, থাকবে। এটা জেনেই লেখাটি প্রস্তুত করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *