মঙ্গলবার, জুলাই ১৪, ২০২০

আব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেন

প্রসঙ্গ: কুরবানী কিছু ভুল চিন্তার অপনোদন

শায়েখ সাজিদুর রহমান | মুহতামিম : জামিয়া দারুল আরকাম আল-ইসলামিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া, শায়খুল হাদিস : জামিয়া ইউনুছিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও সহ সভাপতি : বেফাক الحمد لله،...

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর শারীরিক অবস্থার ফের অবনতি

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) পরবর্তী সেকেন্ডারি নিউমোনিয়ায় ভুগছেন। দীর্ঘ একমাস রোগে ভোগায় তার শরীর দুর্বল। স্বরতন্ত্রের প্রদাহের কারণে...

পণ্য প্রবেশে বাঁধা, ভারতকে চিঠি দিল বাংলাদেশ

কোভিড ১৯ পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘদিন বানিজ্য বন্ধ থাকার পর সব ধরনের মাধ্যমে ৬ জুন থেকে ভারত-বাংলাদেশ আবার আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য শুরু হয়েছে। কিন্তু ভারতীয় পণ্য...

সংসদে ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট পাস

অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যত শ্লোগান নিয়ে জাতীয় সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার জাতীয় বাজেট পাস হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (৩০ জুন)...

দেশে করোনায় একদিনে রেকর্ড ৬৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত আরও ৩৬৮২ জন

দেশে একদিনে আরও ৩৬৮২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সবমিলিয়ে দেশে ১৪৫৪৮৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মোট শনাক্তের হার ১৮.৪৪ শতাংশ। এসময়ের মধ্যে সারাদেশে নমুনা পরীক্ষা করা...
আব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেনআব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেনআব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেনআব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেন

নাহিয়ান হাসান


এই গল্প নবম শতাব্দীর বহুবিদ্যাজ্ঞ এবং ইঞ্জিনিয়ার যিনি ইঞ্জিন চালিত বিমান আবিষ্কারের প্রায় এক হাজার বছর পূর্বেই শূন্যে উড্ডয়নের ভারী যন্ত্র আবিষ্কার করে আকাশে উড়ার দুঃসাহস করেছিলেন।

রাইট ভাত্রিদ্বয় সম্ভবত প্রথম ইঞ্জিনচালিত বিমান আবিষ্কার করেছিলেন। তবে নবম শতাব্দীর ইঞ্জিনিয়ার আব্বাস ইবনে ফিরনাস রেশম, কাঠ এবং পাখির আসল পালক দ্বারা নির্মিত এক জোড়া ডানার সাহায্যে আকাশে উড়ে বেড়ানো প্রথম মানব হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকেন।

ঐতিহাসিকদের মতে,৬৫ থেকে ৭০ বছর বয়সে ইবনে ফিরনাস ইয়েমেনের জাবাল আল আরুস পর্বতের খাড়া শৃঙ্গ থেকে ঝাঁপিয়ে পরে বাতাসে উড়ে বেড়িয়েছিলেন। তিনি কমপক্ষে ১০মিনিট বাতাসে উড্ডীন ছিলেন। এই সংক্ষিপ্ত উড্ডয়ন তাকে আহত এবং হতাশ দুটোই করেছিল। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে অবতরণের যান্ত্রিক কৌশলে তিনি অবহেলা করেছেন যার কারণে বাতাসে তিনি তার বিমানের ভারসাম্য বজায় রাখতে পারেননি এবং শেষমেশ দুর্ঘটনা কবলিত অবতরণের সম্মুখীন হয়েছেন।

ইবনে ফিরনাস এর পরেও আরো ১২ বছর জীবিত ছিলেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে ধীরে অবতরণের ক্ষেত্রে ডানা ও লেজের পরিপূরক ভূমিকা রয়েছে। আর তিনি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছিলেন কয়েক দশক যাবত পাখিদের উড্ডয়ন এবং অবতরণ নিয়ে গবেষণা করার পর। ইবনে ফিরনাসই সেই ব্যক্তি যিনি অর্নিথোপ্টার তৈরি করার পিছনে “উড্ডয়নের ক্ষেত্রে পাখি বিমানের জন্য অনুকরণীয় এবং ডানা ঝাপটিয়ে উড়তে সক্ষম”এই তত্ত্ব সফলভাবে প্রমাণ করেছিলেন। তাঁর উড়ন্ত যানের নকশাগুলো বিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে বিমান চলাচল প্রকৌশলের মূলভিত্তিতে পরিণত হয়েছিল।

চূড়ান্ত পরিমার্জনের আগে কয়েক দশক পর্যন্ত আকাশে উড়ে বেড়ানো মানুষের জন্য শুধু স্বপ্নই ছিল। সেই শতাব্দীগুলোতে ইতিহাস ছিল রূপকথা আর মনগড়া গল্পে ভরপুর;যেখানে ডানা বিশিষ্ট মানুষ আকাশে অত্যাশ্চর্য সব জিনিস করে বেড়াতো! গ্রীক পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, ইকারাস তার বাবার না যাওয়ার উপদেশ সত্ত্বেও সূর্যের এত কাছে উড়ে গিয়েছিল বলে বিশ্বাস করা হয় যে তার মোমের পালকগুলি গলে গিয়েছিল ফলে তার দুর্ঘটনা কবলিত অবতরণ ঘটে এবং পরবর্তীতে সে সমুদ্রে ডুবে যায়।

ব্যবহারিক বা বাস্তবিক পক্ষে আকাশে উড়ার বিষয়টি তখনই সামনে আসে যখন দুজন চীনা দার্শনিক মোজি এবং লু বান
পরীক্ষামূলক ভাবে সর্বপ্রথম কোনো বস্তুর আকাশে উড্ডয়ন পরিচালনা করেছিলেন। তাদেরকে ঘুড়ির আবিষ্কারকও বলা হয়ে থাকে। ফলাফল স্বরূপ, তাদের এই অগ্রণী ভূমিকার বিনিময়ে তারা পার্শ্ববর্তী প্রতিদ্বন্দ্বী রাষ্ট্রগুলোর কাছ থেকে সামরিক কলাকৌশল নিজ দেশের জ্ঞানভাণ্ডারে জমা করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

বলা হয়, ইবনে ফিরনাস এখনো তার কর্মক্ষেত্রের অগ্রনায়ক হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকেন।কেননা তিনিই সর্বপ্রথম শূন্যে উড্ডয়নশীল ভারী বস্তু নিয়ে আকাশে উড়েছিলেন।

তিনি নবম শতকের আন্দুলুসিয়ার ইযন- রেন্ড-ওন্ডা (বর্তমান স্পেনের রন্ডা)অঞ্চলে জন্মগ্রহণ করেন।তিনি তার যৌবনের বেশিরভাগ সময় তৎকালীন ‘কর্ডোভা আমিরাতে’কাটিয়েছেন যা উমাইয়া খলীফাদের আমলে জ্ঞানবিজ্ঞানের প্রধানকেন্দ্রগুলোর অন্যতম একটি প্রধানকেন্দ্র ছিল।

কিছু ঐতিহাসিক সমীক্ষা এই রায় দেয় যে,আল ফিরনাস আর্মেন ফিরমানের দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন যিনি মূলত কোনো বিজ্ঞানী বা কারিগরী প্রকৌশলবিদ ছিলেন না বরং প্রকৃতির একজন বিশুদ্ধ পর্যবেক্ষক ছিলেন। আল ফিরমানই প্রথম ব্যক্তি যিনি কাঠের পাটাতনে পাখির পালক এবং রেশম আবৃত করে সর্বপ্রথম ডানা বানিয়েছিলেন। অষ্টম শতাব্দীর ৮৫০সনে আল ফিরমান কর্ডোভার সবচেয়ে উঁচু মিনার বিশিষ্ট মসজিদের মিনারে আরোহন করেছিলেন এবং তার আবিষ্কৃত ডানাটি পরিধান করে তিনি শূন্যে ঝাঁপিয়ে পরেছিলেন। যদিও তার উড্ডয়নের এই প্রচেষ্টাটি খুব দ্রুতই অকৃতকার্য হয়েছিল এবং তিনি জমিনে ভূপাতিত হয়েছিলেন কিন্তু উড্ডয়নের পরপর তার উড়ুক্কু যানের ডানা একেবারে সঠিক সময়েই স্ফীত হয়েছিল এবং তার অবতরণকে ধীরগতির করে দিয়েছিল।ভূপাতিত হয়ে হাড্ডি না ভাঙ্গাই তার জন্য যথেষ্ট সৌভাগ্যের ব্যাপার ছিল। দেরিতে ভূপাতিত হওয়া তার জীবন রক্ষার কারণ হিসেবে সাব্যস্ত হয়েছিল।

ইবনে ফিরনাস আল ফিরমানের দুঃসাহসিক উড্ডয়ন অভিযাত্রা সেই উৎফুল্ল জনসমাগমের মাঝে দাঁড়িয়ে থেকে দেখেছিলেন যাদের সকলেই উর্ধ্বাকাশে আল ফিরমানের আশ্চর্যজনক ফলাফল দেখে আশ্চর্যান্বিত ও প্রভাবিত হয়েছিল। তখন থেকেই ইবনে ফিরনাস অনুধাবন করতে শুরু করেছিলেন যে,শূন্যে উড়ে বেড়ানোর বিষয়টি নিয়ে আরো গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে।

তিনি দীর্ঘ ২৩ বছর যাবত বিভিন্ন পাখি ও কীটপতঙ্গের উড়ে বেড়ানোর প্যাটার্ন বা কলাকৌশল সম্পর্কে অধ্যয়ন করেছেন। তারপরেই তিনি তার উড়ুক্কু যান আবিষ্কার করেছিলেন। সেটি তার সাফল্যের অন্যতম একটি বছর হওয়া সত্ত্বেও আবিষ্কারে ক্ষান্ত না থেকে তিনি ইয়েমেনের জাবাল আল আরুস পর্বতের উঁচু শৃঙ্গ থেকে তা পরিধান করে ঝাঁপিয়ে পরেছিলেন।

এর কয়েক শতাব্দী পর ১৬৩০সনে একজন উসমানীয় তুর্কী ‘আহমেদ জেলেবী’ সফলভাবে আকাশে উড্ডয়ন করে বিখ্যাত বসফরাস প্রণালীর উপর দিয়ে উড়ে গিয়ে ভূমিতে অবতরণ করেছিলেন।

অন্যান্য উদ্ভাবন:
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রতি ইবনে ফিরনাসের তুমুল আগ্রহ তাকে পানি চালিত ঘড়ি আবিষ্কারের দিকে নিয়ে গিয়েছিল। এছাড়াও তিনি বালু এবং কোয়ার্টজ স্ফটিকের বৈশিষ্ট্য বুঝার জন্য সেগুলো নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করেছিলেন। অনেক ঐতিহাসিক এই দুটি উপকরণের মাধ্যমে স্বচ্ছ গ্লাস আবিষ্কারের কৃতিত্ব তাকেই দিয়ে থাকেন।এমনকি বিখ্যাত আন্দুলুসিয়ান গ্লাসের জনকও তিনি যা এখনো মানুষ ব্যবহার করে এবং এখনো এর তুমুল চাহিদা পরিলক্ষিত হয়। ভিজুয়াল চ্যালেঞ্জের ক্ষেত্রেও আমরা তার উদ্ভাবনের দ্বারা অনেক উপকৃত হয়েছি। যেহেতু লেন্স যা ক্ষুদ্র বস্তু দেখতে ও ক্ষুদ্র লেখা পড়তে আমাদের সাহায্য করে তা আবিষ্কারের কৃতিত্বও যে তাকে দেওয়া হয়!

ইবনে ফিরনাস ছিলেন বারবার বংশের লোক। তার নামের মূলধাতু আফার্নাস হতে উদ্ভূত, যা এখন একটি ব্যাপক প্রচলিত ও সাধারণ নাম হিসেবে মরোক্কো এবং আলজেরিয়া উভয় রাষ্ট্রের মধ্যেই বলতে শুনা যায়। বেশ কয়েকটি বিমানবন্দর, সেতু, পাহাড়, পার্ক,সড়ক এবং বৈজ্ঞানিক সংস্থাকে এই নামে নামকরণ করা হয়েছে, বিশেষ করে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে। এমনকি বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছেই তার একটি মূর্তি এবং স্পেনের কর্ডোবার গুয়াডাল্কিভির নদীর উপর সেতুটিও তার নামে নামকরণ করা হয়েছে।

তিনি ৮৯০ বা ৮৯৫ সনের মাঝামাঝি সময়ে মৃত্যুবরণ করেছিলেন। অনেক ঐতিহাসিকের প্রবল ধারণা মতে, আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ার কারণে তার মৃত্যু ত্বরান্বিত হয়েছিল।

আব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেনআব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেন
আব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেন
আব্বাস ইবনে ফিরনাস : প্রথম মানুষ যিনি আকাশে উড়েছিলেন

সর্বশেষ

উত্তাল আমেরিকা: সেন্ট জনস চার্চে আগুন, মাটির নিচে লুকালেন ট্রাম্প

মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যে শ্বেতাঙ্গ পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে পুরো আমেরিকা। শুক্রবার রাতে ওয়াশিংটন ডিসিতে হোয়াইট হাউজের বাইরে বিক্ষোভকারীরা উপস্থিত...

কিছু মানুষ কখনও করোনায় আক্রান্ত হবে না: বলছে গবেষণা

সব মানুষের শরীরে সংক্রমণ ঘটানোর সক্ষমতা নেই করোনাভাইরাসের। সম্প্রতি এক নতুন গবেষণা বলছে, কিছু মানুষের শরীরে এমন ধরনের 'টি সেল' রয়েছে, যার কারণে তারা...